তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১১ ডিসেম্বর ২০১৫

তথ্যবিবরণী ১১/১২/১৫

 

তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ৩৬৬৫ 

ডব্লিউটিও’র মন্ত্রিপর্যায়ের সভায় যোগ দিতে বাণিজ্যমন্ত্রীর ঢাকা ত্যাগ

ঢাকা, ২৭ অগ্রহায়ণ (১১ ডিসেম্বর) :

    বাণিজ্যমন্ত্রী এবং বিশ^বাণিজ্য সংস্থায় এলডিসিভুক্ত দেশসমূহের কোঅর্ডিনেটর ও মুখপাত্র তোফায়েল আহমেদ ১৫-১৮ ডিসেম্বর কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে অনুষ্ঠেয় ডব্লিউটিও মিনিস্টেরিয়াল কনফারেন্সে (এমসি-১০) যোগদানের লক্ষ্যে আজ ঢাকা ত্যাগ করেছেন। কনফারেন্সে বাণিজ্যমন্ত্রী ২১ সদস্যের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন। 

    সম্মেলনে এলডিসিভুক্ত দেশসমূহের জন্য ডিউটি ফ্রি, কোটা ফ্রি সুবিধা নিশ্চিতকরণ, সার্ভিস ওয়েভার, রুলস অভ্ অরিজিন, ভেলু এডিশন ক্ষেত্রে সুবিধা আদায়ের প্রচেষ্টা চালানো হবে। উন্নত বিশে^ ঔষধ রপ্তানির ক্ষেত্রে শর্ত শিথিলের চুক্তির মেয়াদ ইতোমধ্যে ১৭ বছর বৃদ্ধি করা হয়েছে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ যাতে সর্বোচ্চ সুবিধা পেতে পারে সেজন্য চেষ্টা চালানো হবে। 

    প্রতিনিধিদলে অন্যান্যের মধ্যে রয়েছেন- বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন, এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব অমিতাভ চক্রবর্তী, রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর ভাইস চেয়ারম্যান শুভাশীষ বসু, বিজিএমইএ’র প্রেসিডেন্ট মো. সিদ্দিকুর রহমান, বিকেএমইএ’র প্রথম সহসভাপতি এ এইচ আসলাম সানি, এমসিসি’র প্রেসিডেন্ট সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর এবং ডিসিসিআই’র আসিফ ইব্রাহিম।  

    উল্লেখ্য, বিশ^বাণিজ্য সংস্থায় বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলছে। চলতি সালে চতুর্থ বারের মতো বাংলাদেশ এলডিসিভুক্ত দেশগুলোর কোঅর্ডিনেটরের দায়িত্ব দক্ষতা ও সফলতার সাথে পালন করছে। বাংলাদেশের প্রচেষ্টায় উন্নত বিশে^ ডিউটি ফ্রি, কোটা ফ্রি সুবিধা আদায় করা হয়েছে। যদিও যুক্তরাষ্ট্রসহ এখনো কিছু উন্নত দেশ এ সুবিধা দিচ্ছে না। এবারের সম্মেলনে তা জোরালোভাবে তুলে ধরা হবে। 

#

বকসী/মিজান/নবী/সঞ্জীব/সেলিম/২০১৫/২০৩০  ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                     নম্বর : ৩৬৬৪
 
অল্পসময়ে  বাংলাদেশ বিশে^র অন্যতম বৃহত্তম অর্থনৈতিক দেশ হবে
                                ---পরিকল্পনামন্ত্রী
            
ঢাকা, ২৭ অগ্রহায়ণ (১১ ডিসেম্বর) :
    পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন,  বাংলাদেশ মাত্র তিন বছরে বিশ^ অর্থনৈতিক অগ্রগতির সূচকে ১৪ ধাপ এগিয়ে ৪৪তম অবস্থান অর্জন করেছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে  খুব অল্পসময়ের মধ্যেই  বাংলাদেশ বিশে^র অন্যতম বৃহত্তম অর্থনৈতিক দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা পাবে। তিনি বলেন, এ অর্জনের পেছনে রয়েছে  সরকারের সুচিন্তিত পরিকল্পনা প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন। জ্ঞানভিত্তিক জাতি প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সরকারের এ অগ্রগতিকে আরো বেগবান করতে কারিগরি শিক্ষা অগ্রণী ভূমিকা রাখতে পারে বলে তিনি অভিমত ব্যক্ত করেন ।
    মন্ত্রী আজ গাজীপুরে ঢাকা প্রকৌশল ও কারিগরি বিশ^বিদ্যালয় (ডুয়েট) এ ‘টেকসই উন্নয়নের জন্য সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের রিসেন্ট ইনোভেশন’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন ।
    পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারগণ দেশের অবকাঠামো বিনির্মাণ, শিল্পায়নসহ সার্বিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে। বর্তমান সরকার দেশের টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে ভিশন ২০২১ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করছে। উন্নয়নের এ ভিশন বাস্তবায়নে প্রকৌশলীসমাজ অন্যতম চালিকাশক্তি বলে তিনি উল্লেখ করেন।
    অনুষ্ঠানে ডুয়েট ভিসি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন এবং ডুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. নুুরুল ইসলাম বক্তৃতা করেন।

#
শেফায়েত/মিজান/সঞ্জীব/আব্বাস/২০১৫/১৯৪৭ ঘণ্টা  

 

তথ্যবিবরণী                                                                            নম্বর :  ৩৬৬৩

 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতকোত্তর (প্রফেশনাল) ভর্তির আবেদন ১৩ ডিসেম্বর শুরম্ন

 

ঢাকা, ২৭ অগ্রহায়ণ (১১ ডিসেম্বর) :

 

        জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৫ সালের স্নাতকোত্তর (প্রফেশনাল) কোর্সের বিএড, বিপিএড, বিএমএড, বিএসএড, এমএড, এমএসএড ও এলএলবি শেষবর্ষের অনলাইন ভর্তি কার্যক্রমের প্রাথমিক আবেদন ১৩ ডিসেম্বর বিকাল ৪টায় শুরম্ন হয়ে ২৯ ডিসেম্বর রাত ১২টা পর্যনত্ম চলবে।

 

        এ ভর্তি কার্যক্রমে আবেদনকারী প্রার্থীদের কোনো ভর্তি পরীক্ষা দিতে হবে না। আবেদনকারীদের স্নাতক পর্যায়ে উত্তীর্ণ পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে প্রতিটি কলেজের জন্য আলাদাভাবে কোর্সওয়ারি মেধাতালিকা প্রণয়ন করা হবে।

 

        ভর্তি সংক্রানত্ম বিসত্মারিত তথ্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের িি.িহঁ.বফঁ.নফ/ধফসরংংরড়হং অথবা ধফসরংংরড়হং.হঁ.বফঁ.নফ  ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে।

 

#

 

ফয়জুল/মিজান/নবী/সঞ্জীব/সেলিম/২০১৫/১৭০০ ঘণ্টা

 

Handout                                                                                               Number : 3662

 

LGRD Minister meets his Indian counterpart

 

New Delhi (India), December 11 :

 

             Minister for Local Government, Rural Development and Cooperatives Khandker Mosharraf Hossain, who is on a 3 day visit to India met his Indian counterpart Chaudhary Birender Singh today  at his office. During the meeting two ministers shared their experiences in running development programs in the rural areas where a large number of population live in both the countries.

 

            The Bangladesh Minister briefed about the various achievements in areas like health, education, social safety net, financial inclusion and agricultural development. The Indian Minister showed keen interest in programs taken up by the Government of Prime Minister Sheikh Hasina including the "One Home One Farm" project, community based clinics and programs taken to improve sanitation in rural areas.

 

            On Thursday, the Bangladesh Minister addressed the inaugural session of the Livelihoods Asia Summit being held in New Delhi where Bangladesh has been declared as the focus country in recognition of its recent success in attaining development goals. In his address as a special guest at the inaugural session, the Bangladesh Minister highlighted the progress achieved in the socio-economic sectors over the past 7 years particularly in attaining Millennium Development Goals in poverty reduction, health and education. He expressed optimism that with the present pace of development, Bangladesh would become a middle income country by 2021. The inaugural session was also addressed by the Minority Affairs Minister of India, Najma Heptulla who commended Bangladesh government's achievements in reducing poverty, empowering women and combating adverse impacts of climate change.

 

            The two day event included panel discussions on various policy issues with a view to exploring scalable solutions for skill development, inclusive business models, policy innovations and public-private partnerships as pathways for poverty alleviation. Policy makers, practitioners, academia, researchers, development partners and private sector companies from nine countries from the region including Bangladesh took part in these discussions. 

 

#

 

Mizan/Sanjib/Selim/2015/1700 Hrs

Todays Handout (2).doc Todays Handout (2).doc

Share with :

Facebook Facebook