তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৪ ডিসেম্বর ২০১৮

তথ্যবিবরণী 24/12/2018

তথ্যবিবরণী                                                                                       নম্বর : ৩৪৩০
   
ভোট গ্রহণের পূর্ববর্তী ও পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টায় নির্বাচনি আচরণবিধি পালনে করণীয়

ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ ১৯৭২ এর অনুচ্ছেদ ৭৮ অনুযায়ী ঢাকা জেলার ৫টি নির্বাচনি এলাকার (১৭৪ ঢাকা-১, ১৭৫ ঢাকা-২, ১৭৬ ঢাকা-৩, ১৯২ ঢাকা-১৯ এবং ১৯৩ ঢাকা-২০) একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে ভোট গ্রহণ করার পূর্ববর্তী ৪৮ ঘণ্টা অর্থাৎ ২৮ ডিসেম্বর শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহণ শেষ হওয়ার পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টা অর্থাৎ ১ জানুয়ারি মঙ্গলবার বিকাল ৪টা পর্যন্ত সময়ের মধ্যে নির্বাচনি এলাকায় কোনো ব্যক্তি জনসভা আহ্বান, অনুষ্ঠান বা তাতে যোগদান করতে এবং কোনো ব্যক্তি কোনো মিছিল বা শোভাযাত্রা সংগঠিত করতে বা তাতে যোগদান করতে পারবেন না। 
ঢাকা জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা আবু সালেহ মোহাম্মদ ফেরদৌস খান স¦াক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে আজ এ নির্দেশনা দেওয়া হয়।
এছাড়া উল্লিখিত সময়ের মধ্যে কোনো হিংসাত্মকমূলক কাজ বা বিশৃঙ্খলামূলক আচরণ, ভোটারগণ বা নির্বাচনি কাজকর্ম বা দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গকে ভয়ভীতি প্রদর্শন বা কোনো অস্ত্র বা শক্তি প্রদর্শন বা ব্যবহার করা যাবে না।
কোনো ব্যক্তি উক্ত বিধানাবলী লঙ্ঘন করলে তিনি অন্যূন দুই বছর এবং অনধিক সাত বছর সশ্রম কারাদ-ে এবং অর্থদ-েও দ-নীয় হবেন।
#


ছালেহ/মাহমুদ/নাছির/মোশারফ/জয়নুল/২০১৮/২১২০ঘণ্টা  

তথ্যবিবরণী                                                                                         নম্বর : ৩৪২৯
 
শিশু উন্নয়নে সমন্বিত গাইড লাইন প্রণয়নের লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত
 
ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং সূচনা ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে আজ ঢাকায় শিশু একাডেমিতে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়নাধীন শিশু উন্নয়ন ও শিশু সুরক্ষামূলক প্রশিক্ষণ এবং কর্মসূচিসমূহের মধ্যে সমন্বয় ও একটি সমন্বিত গাইড লাইন প্রণয়নের লক্ষ্যে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়। অটিজম এবং নিউরোডেভেলপমেন্টাল ডিজঅর্ডারস বিষয়ক জাতীয় উপদেষ্টা কমিটি এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে অটিজম বিষয়ক বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার শুভেচ্ছা দূত সায়মা ওয়াজেদ মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতা করেন।  
 
সায়মা ওয়াজেদ বলেন, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় মহিলা ও শিশুদের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করছে। এ কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করার জন্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দপ্তরসমূহকে সমন্বিতভাবে কাজ করার জন্য তিনি আহ্বান জানান। 
 
মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগম বলেন, সুষ্ঠু ও সুন্দর জাতি গঠনে নিরাপদ মাতৃত্ব অত্যন্ত জরুরি। নিরাপদ মাতৃত্ব শিশুদের ডিজঅ্যাবিলিটি কমিয়ে আনবে বলে তিনি সভায় অভিমত ব্যক্ত করেন। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সারা দেশের কমিউনিটি ক্লিনিকে অক্সিজেন সিলিন্ডার স্থাপনের প্রস্তাব করা হয়েছে। 
 
সচিব নাছিমা বেগমের সভাপতিত্বে সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ শিশু একাডেমির চেয়ারম্যান ও কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, বাংলাদেশ শিশু একাডেমির পরিচালক ও শিশু সাহিত্যিক আনজীর লিটন, সূচনা ফাউন্ডেশনসহ মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়, অর্থ মন্ত্রণালয় এবং মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।
 
#
 
খায়ের/মাহমুদ/মাসুম/সঞ্জীব/আব্বাস/২০১৮/২০২৯ ঘণ্টা   
তথ্যবিবরণী                                                                                        নম্বর : ৩৪২৮
                        
প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত জিসিএম রূপরেখা 
আন্তর্জাকিতভাবে গৃহীত হওয়া বাংলাদেশের অনন্য অর্জন
                                           --- রৌনক জাহান
ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উত্থাপিত গ্লোবাল কমপ্যাক্ট ফর মাইগ্রেশন (জিসিএম) এর রূপরেখা আন্তর্জাতিকভাবে গৃহীত হওয়া বাংলাদেশের অনন্য অর্জন। শেখ হাসিনা ২০১৬ সালে জাতিসংঘে অভিবাসন বিষয়ে একটি সামগ্রিক রূপরেখা সংবলিত যে গ্লোবাল কমপ্যাক্ট প্রস্তাব উত্থাপন করেছিলেন তা গত ১০-১১ ডিসেম্বর মরক্কোর মারাকেশে অনুষ্ঠিত ইন্টারগভর্নমেন্টাল কনফারেন্সে ১৬৪টি দেশ কর্তৃক গৃহীত হয়েছে। প্রবাসী কল্যাণ ও  বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব রৌনক জাহান আজ  মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক সভায় এসব কথা বলেন।  
রৌনক জাহান বলেন, গ্লোবাল কমপ্যাক্ট ফর মাইগ্রেশন (জিসিএম) এর ২৩টির উদ্দেশ্যের আলোকে সরকার বাংলাদেশের অভিবাসন নীতি ও বিধানকে আরো বেশি অভিবাসীবান্ধব করতে অঙ্গীকারবদ্ধ। বিশেষ করে নিরাপদ সুশৃঙ্খল এবং নিয়মিত অভিবাসন নিশ্চিত করতে জিসিএম একটি রূপরেখা হিসেবে কাজ করবে এবং সরকার সংশ্লিষ্ট সকলের সহযোগিতা নিয়ে তা বাস্তবায়ন করতে বদ্ধপরিকর। ২০১৬ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘে প্রথমবারের মতো জিসিএম এর প্রস্তাব করেন ও  তা বিশ্বব্যাপী গৃহীত হয়।
রৌনক জাহান বলেন, আন্তর্জাতিক অভিবাসন প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশের ইতিবাচক অংশগ্রহণ আজ বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত। তিনি আরো বলেন, সম্মানজনকভাবে স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে প্রতারণাবিহীন পরিবেশে যৌক্তিক অভিবাসন ব্যয়ে বাংলাদেশ বিশ্বের ১৬৮টি দেশে দক্ষ কর্মী প্রেরণে সফলতার সাথে দায়িত্ব পালন করছে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ আমিনুল ইসলাম, ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক গাজী মোহাম্মদ জুলহাস, এনডিসি, জনশক্তি কর্মসংস্থান ও প্রশিক্ষণ ব্যুরোর মহাপরিচালক মোঃ সেলিম রেজা, বোয়েসেল’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক মরণ কুমার চক্রবর্তীসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। 
 
রাশেদুজ্জামান/মাহমুদ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/২০৪০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                      নম্বর :  ৩৪২৭
 
মহান বিজয় দিবসের আলোচনা অনুষ্ঠানে বিডা’র নির্বাহী চেয়ারম্যান
            
স¦াধীনতার জন্য আত্মত্যাগকারীদের ঋণ স্বীকার করতে হবে
 
ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) এর নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী মোঃ আমিনুল ইসলাম বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান নিজের জন্য নয়, স্বপ্ন দেখেছিলেন বাংলাদেশের মানুষের জন্য, বাংলাদেশের মানুষের ভবিষ্যতের জন্য। মহান বিজয় দিবস উদ্যাপনের পাশাপাশি তাই বিজয়ের প্রাপ্তি নিয়ে গভীরভাবে চিন্তা করার প্রয়োজন আছে। 
মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আজ বিডা আয়োজিত আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী চেয়ারম্যান এসব কথা বলেন। বিডা কার্যালয়ে অনুষ্ঠানটির আয়োজন করা হয়।
নির্বাহী চেয়ারম্যান বলেন, যাঁরা স্বাধীনতার জন্য আত্মত্যাগ করেছেন তাঁদের ঋণ স্বীকার করতে হবে। ভবিষ্যতে সুন্দর একটি বাংলাদেশ গড়ার জন্য জাতি হিসেবে আমাদের জীবনকে অর্থবহ করার জন্য দায়িত্ববোধ নিয়ে প্রত্যেককে কাজ করতে হবে। 
#
 
ইয়াসমিন/মাহমুদ/মাছুম/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/২০৩০ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                        নম্বর : ৩৪২৬
                        
ক্রয়সীমার মধ্যে সেবা দিতে হবে
                --- বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী


ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বিদ্যুৎ খাতে মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জনের প্রয়োজনীয়তা ভবিষ্যতে আরো বাড়বে। মানুষ শুধু বিদ্যুৎ পেয়েই সন্তুষ্ট নয়। তারা মানসম্পন্ন নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ চায়। প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে, মানুষের ক্রয়সীমার মধ্যে সেবা পৌঁছে দিতে হবে। সরকার এসব নিয়ে কাজ করছে।
প্রতিমন্ত্রী আজ বিদ্যুৎ ভবনে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সাথে ডিপিডিসি ও আরইবি’র বিদ্যুৎ বিক্রয় চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, দ্রুততার সাথে ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়া হয়েছে। ৯৪ ভাগ এলাকায় বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে। ৫৫ লাখ সোলার হোম সিস্টেম ব্যবহৃত হচ্ছে। রূপকল্প ২০২১ পেরিয়ে রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা চালাতে হবে।
বিদ্যুতের একক ক্রেতা হিসেবে পিডিবির সাথে অন্যান্য বিতরণ সংস্থার বিদ্যুৎ বিক্রয় ও ক্রয় চুক্তি সম্পন্ন করার জন্য বাংলাদেশ এনার্জি রেগুরেটরি কমিশনের নির্দেশনা রয়েছে। এরই আলোকে আজ পিডিবি’র সাথে আরইবি এবং ডিপিডিসি চুক্তি সম্পাদন হলো। এ চুক্তির ফলে চুক্তিবদ্ধ সংস্থাসমূহ বিদ্যুৎ বিক্রয় ও ক্রয়ের আইনগত কাঠামোর আওতায় আসলো। চুক্তির মাধ্যমে পরস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়াদি নির্দিষ্ট করা হবে ফলে এখানে কোন বিরোধ হলে তা আইনের আওতায় নিরসন করা যাবে। বিদ্যুৎ উৎপাদন, সঞ্চালন ও বিতরণের সমন্বিত ও সুশৃঙ্খলা কার্যক্রম নিশ্চিত করতে পারলেই কেবল আন্তঃসংস্থার আয় ব্যয়, লাভ লোকসান, দায় দেনা ইত্যাদির হিসাব সুনির্দিষ্টকরণ ও অর্থ ব্যবস্থাপনায় শৃঙ্খলা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। 
চুক্তিতে পিডিবির ভারপ্রাপ্ত সচিব মোঃ ইমরুল হোসেনের সাথে আরইবি’র সচিব আসাফুদ্দৌলাহ ও ডিপিডিসি’র সচিব জয়ন্ত কুমার শিকদার স্বাক্ষর করেন। 
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউস, পিডিবি’র চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ, আরইবি’র চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মঈন উদ্দিন (অব.) ও ডিপিডিসি’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক বিকাশ দেওয়ান বক্তব্য রাখেন।

 
আসলাম/মাহমুদ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/২০০০ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                                    নম্বর : ৩৪২৫
 
বড়দিন উপলক্ষে ধর্মমন্ত্রীর শুভেচ্ছা         
ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বড় দিন উপলক্ষে বাংলাদেশের খ্রিস্টান ধর্মের অনুসারীদের   আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা  জানিয়েছেন  ধর্ম  বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের  দায়িত্বে নিয়োজিত মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।  
শুভেচ্ছা বাণীতে ধর্মমন্ত্রী বলেন, খ্রিস্টান সম্প্রদায় বাংলাদেশের অন্যতম ধর্মীয় জনগোষ্ঠী। দীর্ঘকাল থেকে এদেশে খ্রিস্টান  সম্প্রদায়ের লোকেরা শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করে আসছে। দেশ ও জাতি গঠনে এ সম্প্রদায়ের ভূমিকা অনস্বীকার্য। যিশু খ্রিস্ট্রের দেখানো সত্য ও ন্যায়ের উপদেশ  অনুসরণ করে এ সম্প্রদায়ের লোকেরা তাদের ধর্মীয় রীতি-নীতি পালন করে থাকে। যিশু খ্রিস্ট প্রদত্ত মুক্তির পথ তথা  ভালবাসা, সেবা, ক্ষমা, সহানুভূতির শিক্ষায় এ সম্প্রদায়ের লোকেরা অনুপ্রাণিত।
মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ।  এ দেশে মুসলিম, হিন্দু, বৌদ্ধ ও খ্রিস্টানসহ সকল ধর্মের লোকেরা আবহমান কাল থেকে সাম্প্রদায়ির সম্প্রীতির মধ্যে বসবাস করে আসছে। স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে অর্জিত মহান স্বাধীনতার মূল লক্ষ্য ছিল অসাম্প্রদায়িক সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করা। বঙ্গবন্ধুর সেই লালিত স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার এই মহান প্রচেষ্টায় ধর্মবর্ণনির্বিশেষে সকল জনগোষ্ঠীর  আন্তরিক অংশগ্রহণ আবশ্যক। 
শুভেচ্ছা বাণীতে ধর্মমন্ত্রী আরো বলেন, বড়দিনের আনন্দ ছড়িয়ে পড়ুক সকলের মাঝে। শান্তি, ন্যায় ও সত্যের শিক্ষায় উদ্ভাসিত হোক সকল প্রাণ - এই হোক বড়দিন উপলক্ষে সকলের প্রত্যাশা।
#
 
আনোয়ার/মাহমুদ/রফিকুল/আব্বাস/২০১৮/১৯১০ ঘণ্টা   
 
 
                                            
  
তথ্যবিবরণী                                                                                                    নম্বর : ৩৪২৪
 
 
দক্ষ নৌকর্মী তৈরি করতে নৌপরিবহন সচিবের নির্দেশ
           
সোনাকান্দা (নারায়ণগঞ্জ), ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
নৌপরিবহন সচিব মোঃ আবদুস সামাদ বলেছেন, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান হতে নৌপ্রশিক্ষণ গ্রহণ করে অভ্যন্তরীন নৌ সেক্টরের জনবলের চাহিদা পূরণসহ বিভিন্ন বিদেশি জাহাজে আমাদের নৌকর্মীগণ কর্মদক্ষতা প্রদর্শন করছেন। দক্ষ নৌকর্মী তৈরি এবং নৌ সেক্টরকে দুর্ঘটনামুক্ত করে জনবান্ধব করার জন্য ডেক ও ইঞ্জিন পারসোনেল  প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (ডিইপিটিসি) কর্তৃপক্ষকে তিনি নির্দেশ দেন। 
 
নৌসচিব আজ নারায়ণগঞ্জের সোনাকান্দায় বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)’র নিয়ন্ত্রণাধীন ডেক ও ইঞ্জিন পারসোনেল প্রশিক্ষণ কেন্দ্র (ডিইপিটিসি) নারায়ণগঞ্জ, মাদারীপুর ও বরিশালের প্রশিক্ষণার্থীদের মাঝে সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে এ নির্দেশ দেন।
 
এসময় বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর এম মোজাম্মেল হক বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রের ৫৮ জন, মাদারীপুরের ১০ জন এবং বরিশালের ১০ জনসহ মোট ৭৮ জন প্রশিক্ষণার্থীর  মাঝে ২০১৮ সনের কোর্সের সনদ বিতরণ করা হয়। 
 
সচিব বলেন, সাধারণ শিক্ষা নিয়ে বিএ, এমএ পাস করে আমাদের দেশের যুবকরা অফিস সহায়কসহ নিম্নমানের চাকুরির জন্য প্রতিনিয়ত ঘুরে বেড়াচ্ছে। অথচ আমাদের সরকারি বেসরকারি প্রতিটি দপ্তরে কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন দক্ষ জনবলের অভাব রয়েছে। তিনি বলেন, বর্তমানে নৌ-সেক্টরে বহুল কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হলেও দক্ষ জনবল না থাকায় সকল ক্ষেত্রে আমরা এ সুযোগ  দিতে পারছি না। নৌ-সেক্টরে চীন, কোরিয়াসহ বিভিন্ন দেশে দক্ষ জনশক্তির চাহিদা রয়েছে। দক্ষ জনশক্তির অভাবে অভ্যন্তরীণ চাহিদা পূরণ করে বিদেশে কর্মী প্রেরণ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এক্ষেত্রে আমাদের দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলা জরুরি।
 
#
 
জাহাঙ্গীর/মাহমুদ/সঞ্জীব/আব্বাস/২০১৮/১৮৫৯ ঘণ্টা  

তথ্যবিবরণী                                                                                         নম্বর : ৩৪২৩
                        
উন্নয়নকে টেকসই করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ কাজ করছে
                                        --- সংস্কৃতি সচিব

ঢাকা, ১০  পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ নাসির উদ্দিন আহমেদ বলেছেন, বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ১ হাজার ৭৫২ মার্কিন ডলারে উন্নীত হয়েছে। নিজ অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ করে বাংলাদেশ সমগ্র বিশ্বকে চমক দেখিয়েছে। মেট্রোরেল, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র কর্ণফুলি টানেল নির্মাণ প্রভৃতিসহ অর্থনীতির এমন কোনো ক্ষেত্র নেই যেখানে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি।  
সচিব আজ জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের উদ্যোগে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্র মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত ‘বিজয় দিবসের তাৎপর্যঃ উন্নয়নের অগ্রযাত্রা’ শীর্ষক এক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
প্রধান অতিথি বলেন, বাংলাদেশ শুধু অর্থনৈতিকভাবেই এগিয়ে যাচ্ছে না, উন্নয়নকে টেকসই করার লক্ষ্যেও কাজ করে যাচ্ছে; টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার সাথে বাংলাদেশ পূর্ণমাত্রায় সম্পৃক্ত রয়েছে। উন্নয়নের সাথে সবাইকে এক থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা প্রগতি, উন্নয়ন ও অসাম্প্রদায়িকতার সাথে আছি। অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে আরো প্রয়োজন খেলাধুলা ও সংস্কৃতি চর্চা। তবেই আমাদের যুব সমাজ মাদকসহ সামাজিক অবক্ষয় ও জঙ্গিবাদ হতে মুক্ত থাকতে পারবে।’
সারাদেশে সুষ্ঠু সংস্কৃতি চর্চা ও বিকাশে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় কাজ করে যাচ্ছে উল্লেখ করে সচিব আরো বলেন, প্রতি উপজেলায় কালচারাল কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হচ্ছে। জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রকে পরিকল্পনা মাফিক শাহবাগে নির্মিতব্য সুপরিসর আধুনিক পাবলিক লাইব্রেরি কমপ্লেক্সে স্থানান্তর করা হবে।
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব মোঃ মজিবর রহমান আল মামুনের সভাপতিত্বে সেমিনারে আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সভাপতি ফরিদ আহমেদ এবং অন্যপ্রকাশ এর সম্পাদক, প্রকাশক ও স্বত্বাধিকারী মাজহারুল ইসলাম।
সেমিনারে জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের পরিচালক এ কে এম রেজাউল করিম রচিত প্রবন্ধ পাঠ করেন জাতীয় গ্রন্থকেন্দ্রের উপপরিচালক সুহিতা সুলতানা। 
#  

ফয়সল/মাহমুদ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/১৯১০ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                      নম্বর :  ৩৪২২       

শিক্ষামন্ত্রীর প্রেস ব্রিফিং
জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা ফল প্রকাশ

ঢাকা, ১০  পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ আজ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা ২০১৮এর ফলাফল প্রকাশ উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন,  সুষ্ঠু, শান্তিপূর্ণ ও নকলমুক্ত পরিবেশে ২০১৮ সালের জেএসসি ও জেডিসি পরীক্ষা ১ নভেম্বর শুরু হয়ে ১৫ নভেম্বর শেষ হয়। 

শিক্ষামন্ত্রী  জেএসসি ও  জেডিসি পরীক্ষার ফলের বিভিন্ন পরিসংখ্যান তুলে ধরেন। তিনি বলেন, এবার জেএসসিতে অংশগ্রহণকারী পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২৫ লাখ ৯৯ হাজার ১৬৯ জন, যা গত বছর ছিল ২৪ লাখ ৮২ হাজার ৩৪২ জন। বেড়েছে ১ লাখ ১৬ হাজার ৮২৭ জন। পাস করেছে ২২ লাখ ৩০  হাজার ৮২৯  জন, যা গত বছর ছিল ২০ লাখ ১৮ হাজার ২৭১ জন। বেড়েছে ২ লাখ ১২ হাজর ৫৫৮ জন। পাসের হার ৮৫ দশমিক ৮৩। গতবছর ছিল ৮৩ দশমিক ৬৫। বেড়েছে ২ দশমিক ১৮%। মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ৬৮ হাজার ৯৫ জন।  

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, পরীক্ষার ফল বিশ্লেষণ করে শিক্ষা ব্যবস্থার জন্য কিছু ইতিবাচক দিক লক্ষ্য করা গেছে। যেমন, এ বছর মোট পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে। কেন্দ্র ও প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও বেড়েছে। ছাত্রের তুলনায় ২ লাখ ১৩ হাজার ৪৬৫ জন ছাত্রী বেশি অংশগ্রহণ করেছে, ২ লাখ ৫৫ জন ছাত্রী বেশি উত্তীর্ণ হয়েছে, ১ দশমিক ৩১% বেশি পাস করেছে এবং ১১ হাজার ৭১৫ জন জিপিএ-৫ বেশি পেয়েছে। তিনি বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের গৃহীত নানা পদক্ষেপ, শিক্ষার্থী-শিক্ষক-অভিভাবকগণের অক্লান্ত প্রচেষ্টাসহ সমগ্র শিক্ষা পরিবারের সহযোগিতায় এ অবস্থায় পৌঁছানো সম্ভব হয়েছে।

নাহিদ বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ। বরাবরের মত এবারও সম্পূর্ণ পেপারলেস ফল প্রকাশিত হচ্ছে। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব ই-মেইল ঠিকানায় নির্ধারিত সময়ে ফল পৌঁছে যাবে। প্রতিষ্ঠানসমূহ প্রয়োজনে ফল ডাউনলোড করে প্রিন্ট করতে পারবে। প্রত্যেক পরীক্ষার্থী তাদের ফল এসএমএস এর মাধ্যমে জানতে পারবে।

 তিনি আরো বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয়, বোর্ডসমূহ, জেলা ও উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসনের সমন্বিত প্রচেষ্টার কারণে পরীক্ষার সার্বিক ব্যবস্থাপনায় ক্রমশঃ উন্নতির ধারা অব্যাহত রয়েছে। পরীক্ষায় কৃতকার্য সকল পরীক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকবৃন্দকে শিক্ষামন্ত্রী অভিনন্দন জানান। তিনি বলেন, যারা উত্তীর্ণ হতে পারেনি তাদের হতাশ হওয়ার কারণ নেই। আশা করবো তারা নব উদ্যমে পূর্ণ প্রস্তুুতিতে আগামীতে আবার পরীক্ষা দিয়ে সফলকাম হবে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক, মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং বিভিন্ন বোর্ডের চেয়ারম্যানগণ উপস্থিত ছিলেন। 
#

আফরাজুর/অনসূয়া/জসীম/সেলিনা/রেজ্জাকুল/কুতুব/২০১৮/১৫৫২ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ৩৪২১
সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে যানবাহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা
ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
৩০ ডিসেম্বর ২০১৮ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে ভোটগ্রহণের জন্য নির্ধারিত দিবসের পূর্ববর্তী মধ্যরাত অর্থাৎ ২৯ ডিসেম্বর দিবাগত মধ্যরাত ১২ টা হতে ৩০ ডিসেম্বর দিবাগত মধ্যরাত ১২ টা পর্যন্ত যানবাহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। 
সম্প্রতি নির্বাচন কমিশন এ সংক্রান্ত একটি নিষেধাজ্ঞা জারী করেছে। নিষেধাজ্ঞায় বলা হয়েছে উল্লিখিত সময়ে বেবীট্যাক্সি/অটোরিক্সা/ইজিবাইক, ট্যাক্সিক্যাব, মাইক্রোবাস, জিপ, পিকআপ, কার, বাস, ট্রাক, টেম্পো, ইজিবাইক এবং স্থানীয় পর্যায়ে বিভিন্ন যন্ত্রচালিত যানবাহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে। এছাড়া ২৮ ডিসেম্বর দিবাগত মধ্যরাত ১২ টা হতে ১ জানুয়ারি ২০১৯ মধ্যরাত পর্যন্ত মোটর সাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।
উপরোল্লিখিত নিষেধাজ্ঞা রিটার্নিং অফিসারের অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী/তাঁদের নির্বাচনি এজেন্ট, দেশি/বিদেশি পর্যবেক্ষকদের (পরিচয়পত্র থাকতে হবে) ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য করা হয়েছে। তাছাড়া নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত দেশি/বিদেশি সাংবাদিক (পরিচয়পত্র থাকতে হবে), নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত 
কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শক এবং কতিপয় জরুরি কাজ যেমন এম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডাক, টেলিযোগাযোগ ইত্যাদি কার্যক্রমে ব্যবহারের জন্য উল্লিখিত যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। 
তবে জাতীয় মহাসড়ক, বন্দর ও জরুরি পণ্য সরবরাহসহ অন্যান্য জরুরি প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এরূপ নিষেধাজ্ঞা শিথিলের বিষয়ে প্রয়োজনীয় কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন।
#
ফরহাদ/অনসূয়া/জসীম/সেলিনা/রেজ্জাকুল/শামীম/২০১৮/১৩০২ ঘণ্টা    
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ৩৪২০ 
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তার পিতার মৃত্যুতে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রীর শোক  
ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :
মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মোঃ আলমগীর হোসেনের পিতা মোঃ আমজাদ হোসেন মোল্লার মৃত্যুতে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। 
আজ এক শোকবার্তায় মন্ত্রী মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।
উল্লেখ্য, মোঃ আমজাদ হোসেন মোল্লা গতকাল (২৩ ডিসেম্বর) সকালে মাগুরায় মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। 
#
অনসূয়া/জসীম/আসমা/২০১৮/১১৩০ ঘণ্টা 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                     নম্বর : ৩৪১৯

শুভ বড়দিন উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী     

ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :    

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২৫ ডিসেম্বর শুভ বড়দিন উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন

"খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের বৃহত্তম ধর্মীয় উৎসব 'বড়দিন' উপলক্ষে আমি এ সম্প্রদায়ের সকল সদস্যকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি।

খ্রিষ্টান ধর্মের প্রবর্তক যীশু খ্রিষ্ট এ দিনে বেথেলহেমে জন্মগ্রহণ করেন। পৃথিবীতে ন্যায় ও শান্তি প্রতিষ্ঠা করাই ছিল যীশু খ্রিষ্টের অন্যতম ব্রত। বিপন্ন ও অনাহারক্লিষ্ট মানুষের জন্য মহামতি  যীশু নিজেকে উৎসর্গ করেছেন। Zuvর জীবনাচরণ ও দৃঢ় চারিত্রিক গুণাবলীর জন্য মানব ইতিহাসে তিনি অমর হয়ে আছেন।

বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। আবহমানকাল থেকে এদেশে সকল ধর্মের মানুষ নির্বিঘ্নে বসবাস করে আসছে। বাংলাদেশে সকল ধর্মের মানুষের সমান অধিকার ও মর্যাদা রয়েছে। সকল ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষের নিজস্ব ধর্ম পালনের স্বাধীনতা রয়েছে। ঐতিহ্যগতভাবে এদেশে সকল ধর্মীয় উৎসব আনন্দঘন পরিবেশে পালিত হয়। আমি আশা করি, বড়দিন দেশের খ্রিষ্টান ও অন্যান্য সম্প্রদায়ের মধ্যকার বিরাজমান সৌহার্দ্য ও সম্প্রীতিকে আরো সুদৃঢ় করবে।

এ পুণ্যদিন উপলক্ষে খ্রিষ্টান সম্প্রদায়সহ জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে সকলকে আমি মানবতার মহান ব্রতে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ ও মানুষের কল্যাণে এগিয়ে আসার উদাত্ত আহ্বান জানাচ্ছি।  

উৎসবমুখর বড়দিনে আমি খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বী সকলের সুখ, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করছি।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু

বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।"

#

ইমরুল/অনসূয়া/জসীম/সেলিনা/আসমা/২০১৮/১০৩০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                    নম্বর : ৩৪১৮

শুভ বড়দিন উপলক্ষে রাষ্ট্রপতির বাণী     

ঢাকা, ১০ পৌষ (২৪ ডিসেম্বর) :   

রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ ২৫ ডিসেম্বর শুভ বড়দিন উপলক্ষে নিম্নোক্ত বাণী প্রদান করেছেন :

"শুভ বড়দিন উপলক্ষে আমি দেশের খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীসহ বিশ্ববাসীকে জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

এ পৃথিবীতে মহামতি যীশু খ্রিষ্টের আবির্ভাব ছিল এক অবিস্মরণীয় ঘটনা। তিনি ছিলেন মানবজাতির মুক্তির দূত, আলোর দিশারি। পৃথিবীকে শান্তির আবাসভূমিতে পরিণত করতে বহু ত্যাগের বিনিময়ে সৃষ্টিকর্তার মহিমা ও খ্রিষ্টধর্মের সুমহান বাণী প্রচার করেন। তিনি পথভ্রষ্ট মানুষকে সত্য ও ন্যায়ের পথে আহ্বান জানান। তিনি মানুষের মধ্যে ভালোবাসা, সেবা, ক্ষমা, মমত্ববোধ, সহানুভূতি ও ন্যায় প্রতিষ্ঠাসহ শান্তিপূর্ণ অবস্থানের শিক্ষা দেন। জাগতিক সুখের পরিবর্তে যীশু খ্রিষ্ট ত্যাগ, সংযম ও দানের মাধ্যমে পরমার্থিক সুখ অর্জনের ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। জাতিতে জাতিতে সম্প্রীতি ও ঐক্য স্থাপনসহ অশান্ত বিশ্বে শান্তি প্রতিষ্ঠায় যীশু খ্রিষ্টের শিক্ষা ও আদর্শ খুবই প্রাসঙ্গিক বলে আমি মনে করি।

বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। এ সম্প্রীতি আমাদের আবহমান কালের। বিদ্যমান সম্প্রীতির এই সুমহান ঐতিহ্যকে আরো সুদৃঢ় করতে ধর্মবর্ণনির্বিশেষে সকলকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখতে হবে। জাতির পিতা একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন। আমি একটি সুখী-সমৃদ্ধ ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানাই।

শুভ বড়দিন খ্রিষ্টান ধর্মাবলম্বীসহ সকলের জন্য বয়ে আনুক অশেষ আনন্দ ও কল্যাণ, সবার জীবন ভরে উঠুক সুখ ও সমৃদ্ধিতে - এ কামনা করি।  

খোদা হাফেজ, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।"

#

হাসান/অনসূয়া/জসীম/সেলিনা/আসমা/২০১৮/১০৩০ ঘণ্টা   

 

Todays handout (10).docx Todays handout (10).docx

Share with :

Facebook Facebook