তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৫ জুলাই ২০২০

তথ্যবিবরণী - ৫ জুলাই ২০২০

তথ্যবিবরণী                                                                                                       নম্বর : ২৪৩৫

‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍

আইসিটি বিভাগের ২০২০-২১ অর্থ বছরের প্রথম এডিপি পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) : 

          তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ২০২০-২১ অর্থ বছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি (এডিপি) বাস্তবায়নের প্রথম পর্যালোচনা সভা আজ অনলাইন প্লাটফর্মে অনুষ্ঠিত হয়েছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

          সভায় আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তর-সহ বিভাগের বিভিন্ন সংস্থা প্রধানগণ এবং বিভিন্ন প্রকল্প পরিচালকগণ অনলাইনে যুক্ত হন।

          সভায় আইসিটি বিভাগের চলতি অর্থ বছরে গৃহীত প্রকল্পসমূহের বাস্তবায়ন কর্মপরিকল্পনা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। সংস্থা প্রধান ও প্রকল্প পরিচালকগণ নিজ নিজ প্রকল্পের বাস্তবায়ন পরিকল্পনা তুলে ধরেন। প্রতিমন্ত্রী কর্মপরিকল্পনা অনুযায়ী প্রকল্পের কার্যক্রম যথাযথভাবে এগিয়ে নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা প্রদান করেন। এছাড়া চলমান প্রকল্পসমূহের সর্বশেষ অগ্রগতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। প্রতিমন্ত্রী মান বজায় রেখে প্রকল্পের কাজ যথাসময়ে শেষ করতে প্রকল্প পরিচালকগণকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ প্রদান করেন।

          উল্লেখ্য, গত ২০১৯-২০ অর্থবছরে আইসিটি বিভাগের এডিপি বাস্তবায়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে ৮৮ দশমিক ২৯ শতাংশ। চলতি অর্থবছরে আইসিটি বিভাগের অধীন মোট ২৫ টি প্রকল্পের জন্য এডিপিতে বরাদ্দ রয়েছে ১৪১৪ দশমিক ৭৯ কোটি টাকা। 

#

শহিদুল/রাহাত/সঞ্জীব/কানাই/২০২০/২১১৫ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                               নম্বর : ২৪৩৪

করোনাকালে রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স

প্রবাসীদের অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) :

          করোনাকালেও রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্স প্রেরণের জন্য প্রবাসী কর্মীদের আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ।

          মন্ত্রী দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে প্রবাসী কর্মীরা তাদের কষ্টার্জিত বৈদেশিক মুদ্রা দেশে প্রেরণ করছেন বলে অভিমত ব্যক্ত করেন। এ সময় প্রবাসীদের আয় দেশে বৈধভাবে প্রেরণের ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। এ ছাড়া প্রবাসী কর্মীদের সর্বাত্মক কল্যাণে সরকার সবসময় তাদের পাশে থাকবে মর্মে তিনি অঙ্গীকার পুর্নব্যক্ত করেন।

          উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) এর প্রভাবে বিশ্বব্যাপী অর্থনৈতিক সংকট এবং বৈশ্বিক শ্রমবাজারে মন্দা সত্ত্বেও বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশি কর্মীরা ২০১৯-২০ অর্থবছরে ১৮ দশমিক ২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার রেমিট্যান্স দেশে প্রেরণ করেছে। যা বিদ্যমান করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য বিরাট সুখবর। গত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এর পরিমাণ ছিল ১৬ দশমিক ৪২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

#

রাশেদুজ্জামান/রাহাত/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২০/২০৩০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                       নম্বর : ২৪৩৩

কুড়িগ্রামে বন্যাকবলিত মানুষের মাঝে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর উপহার সামগ্রী বিতরণ

সদর (কুড়িগ্রাম), ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) : 

          প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাকির হোসেন আজ কুড়িগ্রামের সদর উপজেলায় ধরলা নদীর তীরে বন্যাকবলিত দুর্গত মানুষের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেছেন। উপহার সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, তেল, চিড়া, মুড়ি ও সাবান ইত্যাদি। 

          উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী বলেন, কুড়িগ্রাম জেলা চর ও নদীভাঙন এলাকা হওয়ায় প্রতিবছরই বন্যা-সহ বিভিন্ন প্রাকৃতিক দুর্যোগ লেগে থাকে। এবছর করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে মানুষ আরো কষ্টে আছে। তিনি বলেন, বর্তমান সরকার জনবান্ধব সরকার। যতই দুর্যোগ আসুক না কেন, কোনো মানুষ অনাহারে থাকবে না। সরকার দুর্যোগকালীন অসহায় দরিদ্র মানুষের মাঝে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র-সহ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করে যাচ্ছে।

          এ সময় কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোঃ রেজাউল করিম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ময়নুল ইসলাম ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমান উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু উপস্থিত ছিলেন।  

#

রবীন্দ্রনাথ/রাহাত/সঞ্জীব/কানাই/২০২০/১৯৫০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                       নম্বর : ২৪৩২

সরকারের ঘোষণা অনুযায়ী জুন মাসের মজুরি পাচ্ছেন পাটকল শ্রমিকরা

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) : 

‌            বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ পাটকল কর্পোরেশন (বিজেএমসি) এর নিয়ন্ত্রণাধীন আলিম জুট মিল বাদে অন্য পাটকলসমূহের শ্রমিকদের জুন, ২০২০ মাসের চার সপ্তাহের বকেয়া মজুরি পরিশোধের নিমিত্ত ৫৮ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে সরকার। আজ অর্থ মন্ত্রণালয় এ অর্থ বরাদ্দ প্রদান করে। বরাদ্দকৃত এ অর্থ শ্রমিকদের নিজ নিজ অ্যাকাউন্টে চেকের মাধ্যমে দেওয়া হবে।

          অর্থ মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে জানানো হয়, 'পরিচালন ঋণ' হিসেবে এ টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। বরাদ্দকৃত অর্থ ২০১৯-২০ অর্থবছরের বিজেএমসি’র মিলগুলোর জন্য বর্ণিত খাত ব্যতীত অন্য কোনো খাতে ব্যয় করা যাবে না এবং বিজেএমসিকে শ্রমিকদের প্রত্যেকের ব্যাংক এ্যাকাউন্টে টাকা পরিশোধ করতে হবে।

          এর আগে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী, বীরপ্রতীক গত শুক্রবার সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছিলেন ‘মজুরি কমিশন-২০১৫’ অনুযায়ী পাটকল শ্রমিকদের জুন মাসের মজুরি আগামী সপ্তাহে পরিশোধ করা হবে।

          উল্লেখ্য, পাটকল শ্রমিকদের নোটিশ মেয়াদের অর্থাৎ জুলাই-আগস্টের ৬০ দিনের মজুরিও উভয় মাসে যথারীতি পরিশোধ করা হবে। পিএফ, গ্র্যাচুইটি ও গোল্ডেন হ্যান্ডশেক সুবিধা-সহ অবশিষ্ট সকল পাওনার ৫০ শতাংশ স্ব স্ব ব্যাংক হিসাবে এবং বাকি ৫০ শতাংশ স্ব স্ব নামে সঞ্চয়পত্র আকারে সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে পরিশোধ করা হবে। সব ক্ষেত্রেই মজুরি কমিশন-২০১৫ এর ভিত্তিতেই পাওনা হিসাব করা হবে। ২০১৪ সাল হতে অবসরপ্রাপ্ত ৮,৯৫৪ জন শ্রমিকের প্রাপ্য সকল বকেয়া, বর্তমানে কর্মরত ২৪,৮৮৬ জন শ্রমিকের প্রাপ্য বকেয়া মজুরি, শ্রমিকদের পিএফ জমা, গ্র্যাচুইটি এবং সে সাথে গ্র্যাচুইটির সর্বোচ্চ ২৭ শতাংশ হারে অবসায়ন সুবিধা একসাথে শতভাগ পরিশোধ করা হবে। এজন্য সরকারি বাজেট হতে প্রায় ৫ হাজার কোটি টাকা প্রদান করা হবে।

#

সৈকত/রাহাত/সঞ্জীব/কানাই/২০২০/১৯৩৫ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                 নম্বর : ২৪৩১

যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীকে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের অভিনন্দন

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) :

          আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা কর্তৃক ‘করোনাযোদ্ধা’ সম্মান অর্জন এবং আমেরিকার জর্জ ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটি অভ্ পিস কর্তৃক শান্তি প্রতিষ্ঠায় ২০২০-২১ ফেলো মনোনীত হওয়ায় যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাহিদ আহসান রাসেলকে অভিনন্দন জানিয়েছে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর।

          আজ সচিবালয়ে যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পক্ষে অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ আখতারুজ্জামান কবীর যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রীর হাতে শুভেচ্ছা স্মারক তুলে দেন। এ সময় যুব ও ক্রীড়া সচিব মোঃ আখতার হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

          করোনার এই দুঃসময়ে অসহায় ক্রীড়াবিদ আর ক্রীড়া সংশ্লিষ্টদের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ ও ব্যক্তিগত তহবিল থেকে সহায়তা প্রদান এবং নিজ এলাকায় গরিব-দুস্থ অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর স্বীকৃতিস্বরূপ প্রতিমন্ত্রী এ সম্মান অর্জন করেছেন।

         #

আরিফ/রাহাত/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২০/২০৩০ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর : ২৪৩০

 

পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রীর সাথে নরওয়ের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) :

          পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিনের সাথে আজ নরওয়ের বিদায়ি রাষ্ট্রদূত সিডসেল ব্লেকেন অনলাইনে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাৎকালে তাঁরা বাংলাদেশের ওপর জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলা, সমুদ্র সম্পদের টেকসই ব্যবহার, সামুদ্রিক জঞ্জাল, বিভিন্ন প্রকার দূষণ নিয়ন্ত্রণ, বর্জ্য ব্যবস্থাপনা-সহ অন্যান্য ক্ষেত্রে নরওয়ের বাংলাদেশকে সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা করেন।

          মন্ত্রী নরওয়ের বিদায়ি রাষ্ট্রদূতকে তার সার্বিক সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, স্বাধীনতার পর থেকেই নরওয়ে বাংলাদেশকে অব্যাহত সমর্থন যুগিয়ে যাচ্ছে। তিনি জানান, জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলা এবং পরিবেশ দূষণ নিয়ন্ত্রণে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করছে। জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশ নেতৃত্ব প্রদান করছে উল্লেখ করে তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বর্তমানে ক্লাইমেট ভালনারেবিলিটি ফোরামের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তাছাড়াও গ্লোবাল সেন্টার অভ্ এডাপটেশনের আঞ্চলিক অফিস ঢাকায় স্থাপনের কাজ পুরোদমে শুরু হয়েছে।

          আলোচনাকালে উভয়েই সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলো চিহ্নিত করে ভবিষ্যতে একসাথে এগিয়ে যাওয়ার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। জাতিসংঘ-সহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক ফোরামে দু’দেশের মধ্যে সহযোগিতা আরো গভীর করার বিষয়েও উভয়ে ঐকমত্য পোষণ করেন।

#

দীপংকর/রাহাত/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২০/১৯১০ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                        নম্বর : ২৪২৯

দক্ষ ইলেক্ট্রিশিয়ানের চাহিদা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে

                                                  -বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) : 

          বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বৈদ্যুতিক সেবা সম্প্রসারণের ফলে দক্ষ ইলেক্ট্রিশিয়ানদের চাহিদা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। ইলেক্ট্রিশিয়ানদের চাহিদা বিদেশেও রয়েছে। ইংরেজি ভাষা ও যথাযথ প্রশিক্ষণ পেলে তারা বহির্বিশ্বে কাজ করে দেশের সুনাম বৃদ্ধি করতে পারবে।

          প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকায় ভার্চুয়ালি ‘প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ইলেক্ট্রিশিয়ানদের মাঝে কারিগরি পারমিট সার্টিফিকেট বিতরণ’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

          প্রতিমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বিদ্যুৎ বিভাগ বৈদ্যুতিক কর্মপেশায় দক্ষ জনশক্তি তৈরির লক্ষ্যে তিন হাজার প্রশিক্ষণার্থীকে প্রশিক্ষণ প্রদানের কার্যক্রম গ্রহণ করেছে। ইতোমধ্যে ৫ হাজার ১৫৫ জনকে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে। আজ ৩ হাজার ৯০০ জনকে কারিগরি পারমিট প্রদানের কার্যক্রম উদ্বোধন করা হলো। এতে তৃণমূল পর্যায়ে কর্মসংস্থান সৃজন হবে এবং এই ইলেক্ট্রিশিয়ানরা বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী হতে ও সাশ্রয়ী বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার-সহ সচেতনতা বৃদ্ধিতে জনগণকে উৎসাহিত করবে। ফলে বৈদ্যুতিক দুর্ঘটনাও অনেকাংশে হ্রাস পাবে।

          এ সময় অনুষ্ঠানে অন্যানের মাঝে বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. সুলতান আহমেদ, বিদ্যুৎ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোসাঃ মাকসুদা খাতুন ও পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসাইন উপস্থিত ছিলেন।  

 

#

আসলাম/রাহাত/সঞ্জীব/কানাই/২০২০/১৮৪৫ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                       নম্বর : ২৪২৮

‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍বিদ্যুৎ বিল নিয়ে প্রাপ্ত অভিযোগ দ্রুততার সাথে সমাধান করা হচ্ছে

                                                                    -বিদ্যুৎ সচিব

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) : 

          বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. সুলতান আহমেদ বলেছেন, বিদ্যুৎ বিল নিয়ে প্রাপ্ত অভিযোগ দ্রুততার সাথে সমাধান করা হচ্ছে এবং হবে। কোনো অবস্থাতেই ব্যবহৃত বিদ্যুতের বেশি বিল গ্রাহকদের পরিশোধ করতে হবে না। গ্রাহকদের সাথে আস্থা ও বিশ্বস্ততার সম্পর্ক সব সময় বিদ্যমান থাকবে। 

          বিদ্যুৎ সচিব আজ সচিবালয় হতে ভার্চুয়ালি ‘বিদ্যুৎ বিল সংক্রান্ত বিতরণ সংস্থা ও কোম্পানিগুলোর প্রদত্ত প্রতিবেদন’ নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা জানান। তিনি দৃঢ়তার সাথে বলেন, অতিরিক্ত বিল প্রদানের সাথে সম্পৃক্তদের অবশ্যই শাস্তির আওতায় আনা হবে। 

          সচিব আরো বলেন, প্রাথমিকভাবে বিতরণ কোম্পানির ২৯০ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে নানারূপ বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পিডিবি ও আরইবি-এর চূড়ান্ত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ সময় তিনি বলেন, বৈশ্বিক মহামারীর কারণে দেশ এখন ক্রান্তিকালীন সময় পার করছে। দেশের অন্য পেশাজীবীদের মতো দেশের বিদ্যুৎ কর্মীরাও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহে ঝুঁকি নিয়ে তাদের দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। এখন পর্যন্ত বিতরণ কোম্পানিগুলোর মোট ৬০১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন এবং ১২ জন মারা গেছেন।  

          এ সময় অন্যান্যের মাঝে পিডিবি’র চেয়ারম্যান মোঃ বেলায়েত হোসেন, আরইবি’র চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অবঃ) মঈন উদ্দিন ও পাওয়ার সেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসাইন উপস্থিত ছিলেন।   

 

#

আসলাম/রাহাত/সঞ্জীব/কানাই/২০২০/১৮৩৫ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                        নম্বর : ২৪২৭

‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍‍বিদেশি সামাজিক মাধ্যম ও ওটিটি প্লাটফর্মকে নিয়ম-নীতি ও করের আওতায় আনা বাঞ্ছনীয়

                                                                                            -তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) : 

          বিদেশি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং ওটিটি প্লাটফর্মে কন্টেন্ট ও বিজ্ঞাপন প্রচার-সহ সামগ্রিক বিষয়টিকে যুগোপযোগী নিয়ম-নীতি ও করের আওতায় আনা হবে বলেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ। 

          আজ সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষ থেকে ভিডিও কনফারেন্সিং এর মাধ্যমে এ বিষয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার শুরুতে মন্ত্রী সাংবাদিকদের এসব কথা জানান। ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার, তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মোঃ মুরাদ হাসান, ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব মোঃ নূর-উর-রহমান, বাংলাদেশ স্যাটেলাইট কোম্পানির চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ, বিটিআরসি’র চেয়ারম্যান মোঃ জহুরুল হক প্রমুখ সভায় অংশ নেন।

          সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং ওভার দ্য টপ (ওটিটি) প্লাটফর্ম বা ইন্টারনেটের মাধ্যমে অডিও-ভিডিওসহ নানা কন্টেন্ট প্রচার বর্তমান যুগের একটি ক্রমবর্ধমান বাস্তবতা উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘সমগ্র পৃথিবীতে এ ধরণের প্লাটফর্ম ব্যবহার করে বিনোদন থেকে শুরু করে নানা কন্টেন্ট সেখানে স্ট্রিমিং করা হচ্ছে, আমাদের দেশেও হচ্ছে। কিন্তু আমরা দেখতে পেয়েছি, এ নিয়ে নানা বিতর্ক হয়েছে, সেন্সরবিহীন কন্টেন্ট প্রদর্শিত হয়েছে এবং এক্ষেত্রে সরকার ঠিকভাবে কর পাচ্ছে না।’

          তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ওটিটি এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রতিটি মানুষের কাছে চলে যাচ্ছে। ফলে এসব মাধ্যম ব্যবহার করে সমাজ বিনির্মাণের যেমন সুযোগ আছে, সমাজকে অস্থিতিশীল করারও সুযোগ থাকে। আমরা সময়ে সময়ে দেখতে পাচ্ছি এ সমস্ত মাধ্যম ব্যবহার করে গুজব রটানো, সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা-হাঙ্গামা তৈরির চেষ্টা করা হয়েছে। একই সাথে যুবা ও কিশোরদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়াও তৈরি হয়েছে। এটি একটি বাস্তবতা। এই মাধ্যমগুলো আমাদেরকে ব্যবহার করতে হবে ঠিকভাবে।’ 

          যারা সরকারের অনুমতি না নিয়ে এ ধরণের ব্যবসা করছে, তাদের বিষয়ে কী ব্যবস্থা, আর কেউ যদি অনুমতি নিয়ে ব্যবসারত কিন্তু অননুমোদিত কন্টেন্ট প্রচার করে, তাদের ব্যাপারে কী ব্যবস্থা নেওয়া যেতে পারে, সে বিষয়ে গ্রামীণফোন এবং রবি’র কাছে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছিল জানিয়ে ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেন, ‘গ্রামীণফোন যে উত্তর দিয়েছে সেখানে ঠিকভাবে ব্যাখ্যা নেই, আর ‘রবি’ উত্তর প্রস্তুত করছে বলে জানিয়েছে। এগুলোকে একটি সমন্বিত নিয়ম-নীতির মধ্যে আনার লক্ষ্যেই আজকের সভা।’ 

          আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান বলেন, ‘২০০৮ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রবক্তা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের তত্ত্বাবধানে আজকে ডিজিটাল বাংলাদেশ আর স্বপ্ন নয়, বাস্তবে রূপায়িত হয়েছে। পাশাপাশি আমাদের দেশে এবং সারা পৃথিবীতেই এ নতুন বাস্তবতা মূল্যবোধ ও আইনগত নানা চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। ফলে যে বিষয়গুলোর সাথে আমরা আগে সংযুক্ত ছিলাম না, সেগুলো নিয়ে আমাদের কাজ করতে হচ্ছে।’ 

          তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ওটিটি প্লাটফর্ম একটি ক্রমবর্ধমান ক্ষেত্র এবং এখানে হাজার হাজার কোটি টাকার ব্যবসার সুযোগ রয়েছে, যা অবশ্যই করযোগ্য। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও অন্যান্য প্লাটফর্ম যেমন নেটফ্লিক্স, ইউটিউব প্রভৃতির কাছে দেশের অনেক অর্থ চলে যাচ্ছে, কিন্তু সেখান থেকে সরকার যেভাবে কর পাওয়ার কথা তা পাচ্ছে না।’ 

          পৃথিবীর অন্যান্য দেশেও শুরুতে এরকমই অবস্থা ছিল, কিন্তু অনেক দেশে নিয়মনীতি প্রবর্তন করা হয়েছে উল্লেখ করে ড. হাছান উদাহরণ দিয়ে বলেন, ‘যেমন ভারতে ওটিটি প্লাটফর্মে অন্য দেশের কন্টেন্ট দেখানোর ক্ষেত্রে নানা আইন-কানুন, নিয়ম-নীতির প্রবর্তন হয়েছে। ভারতে চালু থাকার জন্য ফেইসবুক ভারতীয় কোম্পানি হিসেবে রেজিস্টার্ড হয়েছে। আমাদের দেশে এখনও রেজিস্টার্ড হয়নি, তবে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের ক্রমাগত প্রচেষ্টায় তারা একজন এজেন্ট নিয়োগ করেছে।’ 

          ডাক ও টেলিযোগযোগ মন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের সামাজিক, সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ, রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা, আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা-সহ সকল বিষয়ে আমরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ওটিটি প্লাটফর্ম পরিচালকদের দায়িত্ববোধ প্রত্যাশা করি। আমাদের দেশের আইন ও সংস্কৃতিকে সম্মান দিয়েই তাদেরকে ব্যবসা পরিচালনা করতে হবে।’

          সভার সিদ্ধান্ত অনুসারে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং ওটিটি প্লাটফর্মে কন্টেন্ট ও বিজ্ঞাপন প্রচার-সহ সামগ্রিক বিষয়টিকে যুগোপযোগী নিয়ম-নীতি ও করের আওতায় আনার লক্ষ্যে তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সম্প্রচার)-কে আহ্বায়ক করে পাঁচ সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়, যার অপর চার সদস্য হিসেবে রয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, বিটিআরসি এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন করে প্রতিনিধি ও একজন আইন বিশেষজ্ঞ। 

          অন্যান্যের মধ্যে তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জাহানারা পারভীন এবং মোঃ মিজান-উল-আলম, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য মোঃ মাসুদ সাদিক, বিটিআরসি’র মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ মোস্তফা ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সিনিয়র সিস্টেমস এনালিস্ট মসিউজ্জামান খান সভায় অংশ নেন।

#

আকরাম/রাহাত/সঞ্জীব/কানাই/২০২০/১৮২৫ঘণ্টাতথ্যবিবরণী                                                                                                        নম্বর : ২৪২৬

কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাসসংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) :

          ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স কো-অর্ডিনেশন সেন্টার (এনডিআরসিসি) থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য ৬৪ জেলায় ইতোমধ্যে ২ লাখ ১১ হাজার ১৭ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ করা হয়েছে। এছাড়া শিশু খাদ্য-সহ অন্যান্য সামগ্রী ক্রয়ের জন্য ১২২ কোটি ৯৭ লাখ ৭২ হাজার ২৬৪ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বরাদ্দকৃত এ সাহায্য দেশের সকল জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে বিতরণ করা হচ্ছে।

 ‌         স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এবং রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)-এর তথ্যানুযায়ী আজ দেশে নতুন করে আরো ২ হাজার ৭৩৮ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে। এ নিয়ে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ৬২ হাজার ৪১৭ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৫৫ জন-সহ এ পর্যন্ত ২ হাজার ৫২ জন এ রোগে মৃত্যুবরণ করেছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ১৩ হাজার ৯৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। করোনা ভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৭২ হাজার ৬২৫ জন।

          এখন পর্যন্ত সর্বমোট ২৫ লাখ ২৮ হাজার ২৪৫টি পিপিই সংগ্রহ করা হয়েছে। এর মধ্যে মোট বিতরণ করা হয়েছে ২৪ লাখ ২০ হাজার ১৬৪টি এবং মজুত আছে ১ লাখ ৮ হাজার ৮১টি।

          সারা দেশে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে ৬২৯টি প্রতিষ্ঠান এবং এর মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনের সেবা প্রদান করা যাবে ৩১ হাজার ৯৯১ জনকে।

#

তাসমীন/রাহাত/সঞ্জীব/জয়নুল/২০২০/১৮০০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                        নম্বর: ২৪২৫

মো: আবুল কাশেম আজাদের মৃত্যুতে কৃষিমন্ত্রীর শোক

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) :

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের বগুড়া জেলার উপপরিচালক কৃষিবিদ মো: আবুল কাশেম আজাদের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক।

কৃষিমন্ত্রী মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

শোকবার্তায় কৃষিমন্ত্রী বলেন, আবুল কাশেম আজাদ চাকুরিকালে অত্যন্ত সক্রিয়ভাবে তাঁর দায়িত্ব পালন করে কৃষি উন্নয়নে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছেন। করোনার এই দু:সময়েও তিনি কৃষির সেবায় কৃষকের পাশে থেকে কাজ করে গেছেন। কৃষিক্ষেত্রে তাঁর ভূমিকা এদেশের কৃষিবিদসহ সকলের কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

অপর এক শোক বার্তায় কৃষি সচিব মো. নাসির জামান, উপপরিচালক কৃষিবিদ মো. আবুল আবুল কাশেম আজাদ মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। 

উল্লেখ্য, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের বিসিএস (কৃষি) ক্যাডার এর 8ম ব্যাচের কর্মকর্তা মোঃ আবুল কাশেম আজাদ, আজ ঘটিকায় কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই পুত্র এবং অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

#

কামরুল/অনসূয়া/জসীম/কুতুব/২০২০/১৬৪৫ ঘন্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                        নম্বর: ২৪২৪

করোনার কারণে সম্ভাব্য খাদ্য সংকট মোকাবিলায় সরকার সর্বাত্বক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে - কৃষিমন্ত্রী

ঢাকা, ২১ আষাঢ় (৫ জুলাই) :

কৃষিমন্ত্রী ড. মো: আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, বৈশ্বিক মহামারি করোনার প্রভাবে সম্ভাব্য খাদ্য সংকট মোকাবিলা করতে সরকার সর্বাত্বক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। করোনার দুর্যোগময় পরিস্থিতিতে সারাবিশ্বের সাথে বাংলাদেশ ও এদেশের কৃষকরাও বিরূপ পরিস্থিতির মুখোমুখি। এটি মোকাবিলায় সরকার কৃষিখাতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে ভর্তুকিসহ নানা

প্রণোদনা দিয়ে যাচ্ছে। কৃষিমন্ত্রী প্রধান অতিথি হিসাবে রবিবার সকালে তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে আমেরিকান চেম্বার
অভ্ কমার্স (অ্যামচ্যাম) বাংলাদেশ আয়োজিত কোভিড-১৯ এর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত প্রান্তিক কৃষকের মাঝে সহায়তা কার্যক্রম অনলাইনে উদ্বোধনকালে এ কথা বলেন।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে সম্ভাব্য খাদ্য সংকট মোকাবিলা করতে হলে খাদ্য উৎপাদন আরও অনেক বাড়াতে হবে। সে লক্ষ্যে কৃষি মন্ত্রণালয় নিরলসভাবে কাজ করছে। যাতে করে দেশে খাদ্যের কোন ঘাটতি না হয়, খাদ্য আমদানি করতে না হয়। বরং দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিশ্বের সম্ভাব্য খাদ্য সংকটে আর্তমানবতার সেবায় বাংলাদেশ যাতে তার উদ্বৃত্ত খাদ্যশস্য নিয়ে সহযোগিতা করতে পারে। তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় কৃষি মন্ত্রণালয়ের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত গ্রহণ ও বাস্তবায়নের ফলে করোনা দুর্যোগের মাঝেও লক্ষ্যমাত্রার অধিক বোরো ফসল সংগ্রহ করা সম্ভব হয়েছে। ইতোমধ্যে মাঠ পর্যায়ে আউশ ধান বীজ, আমন ধান বীজ ও পাট বীজ কৃষকদের মাঝে সুষ্ঠুভাবে বিতরণ করা হয়েছে। আমনে ও রবি মৌসুমে উৎপাদন বাড়াতে উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে।

কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, বাংলাদেশের কৃষি উন্নয়নে যুক্তরাষ্ট্র সরকার সব সময়ই সহযোগিতা করে আসছে। অ্যামচ্যামের এ ধরনের কর্মসূচি এ সম্পর্ককে আরও সুদৃঢ় করবে। সিরাজগঞ্জ বন্যা কবলিত এলাকার কৃষকরা এ কর্মসূচির মাধ্যমে উপকৃত হবে। কৃষিমন্ত্রী এসময় যুক্তরাষ্ট্র সরকার ও আমেরিকান চেম্বার অভ্ কমার্সকে ধন্যবাদ জানান।

অ্যামচ্যাম নিজেদের দায়িত্বশীলতার অংশ হিসেবে কোভিড- ১৯ মহামারির সংক্রমণে আক্রান্ত প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকদের জন্য ‘কৃষকদের জন্য সহায়তা' কর্মসূচিটি হাতে নিয়েছে। যাতে কৃষকেরা নিজ নিজ পরিবারের তাৎক্ষণিক অর্থনৈতিক চাহিদাগুলো পূরণ করতে পারেন। অ্যামচ্যাম নিজস্ব সদস্যবৃন্দের স্বতস্ফূর্ত সমর্থন-সহায়তার ভিত্তিতে সাজিদা ফাউন্ডেশনের সাথে যৌথ উদ্যোগে এই কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। কর্মসূচিটির আওতায় সিরাজগঞ্জের মোট এক হাজার কৃষক ও তাঁদের পরিবারবর্গকে আর্থিক সহায়তা তথা অনুদান দেওয়া হচ্ছে, যাতে তারা কৃষি কাজে বিনিয়োগের পাশাপাশি জীবিকা উপার্জনের টেকসই উপায় খুঁজে পান। একই সাথে, এর মাধ্যমে সরকারের কৃষিবিষয়ক প্রতিষ্ঠানগুলোর সাথে কৃষকদের সংযোগ ঘটিয়ে দিতে পরামর্শ ও সহায়তা প্রদান করবে।

অ্যামচ্যামের প্রেসিডেন্ট সৈয়দ এরশাদ আহমেদের সভাপতিত্ব এ অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন সিরাজগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মো. হাবিবে মিল্লাত, বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল রবার্ট মিলার, সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহমেদ প্রমুখ । অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন অ্যামচ্যামের ভাইস প্রেসিডেন্ট সৈয়দ মোহাম্মদ কামাল।

#

কামরুল/অনসূয়া/জসীম/কুতুব/২০২০/১৫৫০ ঘন্টা

তথ্যবিবরণী                                                               

2020-07-05-21-22-c2b9b041ffac75ed765a402884913af6.docx 2020-07-05-21-22-c2b9b041ffac75ed765a402884913af6.docx

Share with :

Facebook Facebook