তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৮ জানুয়ারি ২০১৯

তথ্যবিবরণী - 08.01.2019

তথ্যবিবরণী                 নম্বর :  ৮৩
 
প্রত্যেকের ধর্মীয় অধিকার প্রতিষ্ঠা করা হবে 
                           -- ধর্ম প্রতিমন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
 
আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মোঃ আব্দুল্লাহ ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে আজ দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। তিনি দুপুরে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে তাঁর কার্যালয়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাথে মতবিনিময় করেন। নতুন ধর্ম প্রতিমন্ত্রীকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ আনিছুর রহমান। 
 
মতবিনিময়কালে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত বাংলাদেশের সংবিধানের চারটি স্তম্ভের মধ্যে অন্যতম হলো ধর্ম নিরপেক্ষতা। ধর্ম নিরপেক্ষতা বলতে সকল ধর্মের মানুষের নিজ নিজ ধর্ম পালনের অধিকার ভোগ করার নিশ্চয়তাকেই বুঝায়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে সমৃদ্ধির বাংলাদেশ গড়ার কাজ এগিয়ে চলছে সেখানে আমরা সামনের সারিতে থাকতে চাই। ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় আওয়ামী সরকারের ইশতেহারের আলোকে প্রয়োজনীয় সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করবে। প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত দুর্নীতি, মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি অগ্রাধিকার ভিত্তিতে বাস্তবায়ন করবে। এছাড়া হজ ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব। হজ ব্যবস্থাপনাকে সর্বোত্তম ব্যবস্থাপনায় উন্নীত করার জন্য আমি সকলের সহযোগিতা চাই। এক্ষেত্রে কোনো ধরনের অনিয়ম বরদাস্ত করা হবে না। তিনি বাংলাদেশে বসবাসরত হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টানসহ সকল ধর্মীয় জনগোষ্ঠীর মানুষকে নিজ নিজ ধর্ম স্বাধীনভাবে পালনের ক্ষেত্রে সকল প্রকার রাষ্ট্রীয় সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস দেন। 
 
ধর্ম সচিব মোঃ আনিছুর রহমানের নেতৃত্বে অনুষ্ঠানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক সামীম মোহাম্মদ আফজাল, ওয়াকফ প্রশাসক মোঃ শহীদুল ইসলাম, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত পাল, খ্রিস্টান ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সচিব নির্মল রোজারিও, বৌদ্ধ ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সচিব জয়দত্ত বড়ুয়া প্রমুখ। সভায় ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং এর আওতাধীন দপ্তর ও সংস্থাসমূহের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তা ও কর্মচারী উপস্থিত ছিলেন।
 
#
 
আনোয়ার/মাহমুদ/পারভেজ/সেলিমুজ্জামান/২০১৯/২১২০ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                 নম্বর : ৮২
 
তৈরি পোশাক শিল্পে চলতি মাসেই মজুরি সমন¦য় করা হবে 
                           -- শ্রম প্রতিমন্ত্রী মন্নুজান সুফিয়ান
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
 
তৈরি পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের জন্য ঘোষিত নতুন মজুরি কাঠামোর দু’তিনটি গ্রেডে কিছুটা অসামঞ্জস্যতা পাওয়া গেছে, কমিটি গঠন করে চলতি মাসের মধ্যে মজুরি সমন্বয় করা হবে। এর ফলে  বেসিক হোক কিংবা গ্রস হোক কোন গ্রেডের মজুরি কমবে না।  আগামীকালই শ্রমিকদের কাজে যোগ দেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। 
 
আজ শ্রম ভবনের সম্মেলন কক্ষে শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ানের সভাপতিত্বে ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট কোর কমিটির জরুরি বৈঠকে এ আহ্বান জানানো হয়। বৈঠকে বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুনশি আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। 
 
বৈঠকে বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, যারা তৈরি পোশাক শিল্পে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে তারা এ খাতের ভালো চায় না। চলতি মাসের মধ্যে মজুরি নিয়ে ভুল বুঝাবুঝির সমাধান হবে। এর পরও বিশৃঙ্খলার অপচেষ্টা হলে তাদের বিরুদ্ধে শক্ত ব্যবস্থা নেয়া হবে। 
 
শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, শ্রমিকদের নিজেদের ভাল নিজেদের বুঝতে হবে। মালিক পক্ষের পাঁচজন, শ্রমিক পক্ষের পাঁচজন, শ্রম সচিব, বাণিজ্য সচিব এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতিনিধির সমন্বয়ে কমিটি গঠন করা হবে। 
 
বৈঠকে সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মুর্শেদী, শ্রম মন্ত্রণালয়ের সচিব আফরোজা খান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মফিজুল ইসলাম, ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশের কমিশনার মোঃ আছাদুজ্জামান মিয়া, বিজিএমইএয়ের সভাপতি মোঃ  সিদ্দিকুর রহমান, এফবিসিসিআইয়ের প্রেসিডেন্ট শফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন,শিল্প পুলিশের মহাপরিচালক আব্দুস সালাম, বিজিএমইএয়ের সাবেক সভাপতি মোঃ আতিকুল ইসলাম, জাতীয় গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি আমরুল ইসলাম আমিন, বাংলাদেশ টেক্সটাইল গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি মোঃ মাহবুবুর রহমান ইসমাইলসহ মালিক-শ্রমিক নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। 
 
#
 
আকতারুল/মাহমুদ/সঞ্জীব/সেলিমুজ্জামান/২০১৯/২১২০ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                 নম্বর :  ৮১
 
বেকারত্ব দূর করে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় কাজ করবো
                               -- বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
 
‘সুশাসন আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। সেজন্য বেকারত্ব দূর করে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় কাজ করবো। পাট ও বস্ত্র বাংলাদেশের  বড় শিল্পখাত। দেশের শিল্পায়ন, কর্মসংস্থান ও রপ্তানি বৃদ্ধি করে কারিগরি প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ জনবল সৃষ্টি এবং নতুন প্রজন্মকে কর্মসংস্থানের সুযোগ দেওয়ার মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচনে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।’  সচিবালয়ে প্রথম দিনে নিজ দপ্তরে ফুলেল শুভেচ্ছায় সিক্ত হয়ে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী এসব কথা বলেন।
 
মন্ত্রী বলেন, ‘আগের অসমাপ্ত কাজগুলো যত দ্রুত সম্ভব সমাপ্ত করা হবে।’ তিনি আরো বলেন,  ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী দ্রুতগতিতে রূপকল্প ২০২১ এবং রূপকল্প ২০৪১ অর্জনে কাজ করে যাবো। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পাটশিল্পের প্রতি খুবই আন্তরিক। বিজেএমসি’র মৃতপ্রায় পাটকল পুনরুজ্জীবিত করার জন্য পুরাতন মেশিনের পরিবর্তে আধুনিক মেশিন সংযুক্তকরণের কাজ দ্রুত করা হবে।’
 
এ সময় বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের বিদায়ি মন্ত্রী মুহাঃ ইমাজ উদ্দিন প্রামাণিক, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মিজানুর রহমানসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়াধীন দপ্তর ও সংস্থার প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।
 
#
 
সৈকত/মাহমুদ/পারভেজ/সেলিমুজ্জামান/২০১৯/১৮২৫ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                 নম্বর :  ৮০
 
ভূমিতে দুর্নীতির ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স 
                         -- ভূমিমন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
                                                                  
নবনিযুক্ত ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী বলেছেন, ভূমি ব্যবস্থাপনায় দুর্নীতির ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করা হলো। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার  নেতৃত্বে দক্ষ, স¦চ্ছ ও জনবান্ধব ডিজিটাল ভূমি ব্যবস্থাপনা গড়ে তোলা হবে।
 
আজ ভূমি মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা কর্মচারীদের সাথে মতবিনিময়কালে ভূমিমন্ত্রী এসব কথা বলেন। 
 
মন্ত্রী বলেন, মাঠ পর্যায়ের ভূমি অফিসগুলোকে অটোমেশনের আওতায় আনা এবং প্রত্যেক অফিসে সিসি ক্যামেরা বসানো হবে। ভূমির মাঠ পর্যায়ে অনেক দক্ষতা, জবাবদিহিতা থাকতে হবে। সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করতে হবে। মাঠ পর্যায়ে  সেবা গ্রহীতারা যেন হয়রানির শিকার না হয় সে বিষয়ে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, দুর্নীতি  ছেড়ে  দেশের উন্নয়নে সকলকে সঠিকভাবে কাজ করতে হবে।
 
ভূমি মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব  মোঃ মাকছুদুর রহমান পাটওয়ারীর সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ কর্মকর্তা কর্মচারীরা এসময় উপস্থিত ছিলেন।
 
#
 
রেজুয়ান/মাহমুদ/রফিকুল/সেলিমুজ্জামান/২০১৯/১৯৫০ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                 নম্বর :  ৭৯
 
আগামী পাঁচ বছর দেশের উন্নয়নে চমক থাকবে
-- এলজিআরডি মন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
 
নবনিযুক্ত স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গঠনে আগামী পাঁচ বছর দেশের অবকাঠামো খাতে উন্নয়নে চমক থাকবে। দেশের প্রতিটি গ্রামে শহরের সকল নাগরিক সুবিধা পৌঁছে দেয়া হবে। 
 
মন্ত্রী আজ সচিবালয়স্থ অফিস কক্ষে প্রথম কর্মদিবসে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তাদের সাথে অভিনন্দন জ্ঞাপন ও মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম অবহিতকরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য, স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব এস এম গোলাম ফারুক এবং পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের সচিব মোঃ কামাল উদ্দিন তালুকদারসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং দপ্তর ও সংস্থার প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।
 
মন্ত্রী বলেন, স্থানীয় সরকারকে শক্তিশালী করলে দেশ সুষম উন্নয়নের ছোঁয়া পাবে। বাংলাদেশ এখন অপার সম্ভাবনার দেশ। আমাদের বিপুল পরিমাণ জনসংখ্যা রয়েছে। এ জনসংখ্যাকে দারিদ্র্যের হাত থেকে মুক্ত করে জনসম্পদ হিসেবে ব্যবহার করলে ২০৪১ সালের পূর্বেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলায় পরিণত হবো।
 
মন্ত্রী ভবিষ্যৎ চ্যালেঞ্জ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দারিদ্র্যমুক্ত একটি সমৃদ্ধ জনপদে পরিণত হওয়ার লক্ষ্যে কাজ করছি। প্রতিটি গ্রামকে শহরে পরিণত করার অঙ্গীকার বাস্তবায়ন করার জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ করেছি। গুণগত কাজ ও সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে দেশে আগামী পাঁচ বছরে উন্নয়নে চমক দেখাতে চাই। সকল ধরনের উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে দুর্নীতির প্রতি জিরো টলারেন্স নীতিতে কাজ করবো।
 
মন্ত্রী কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেন, মানুষের অর্থনৈতিক মুক্তি ও উন্নত জীবন যাপনের পবিত্র দায়িত্ব এ মন্ত্রণালয়ের ওপর ন্যস্ত। প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীগণ দেশপ্রেম ও নিষ্ঠার সাথে এ দেশে দুঃখী জনগণের ভাগ্যোন্নয়নে কাজ করবেন।
 
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য বলেন, সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে ‘টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা’ বাস্তবায়ন করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করতে হবে।
 
পরে মন্ত্রণালয় এবং অধীনস্থ দপ্তর ও সংস্থার পক্ষ হতে মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা প্রদান করা হয়।
 
#
 
জাকির/মাহমুদ/সঞ্জীব/সেলিমুজ্জামান/২০১৯/১৮২৫ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                         নম্বর : ৭৮
 
প্রবাসীদের কল্যাণে সকল চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করা হবে
                                --- প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের নবনিযুক্ত প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ আজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে কর্মকর্তা-কর্মচারী ও গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। তিনি আজ মন্ত্রণালয়ে যোগ দিলে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ তাঁকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানায়। প্রতিমন্ত্রীকে ফুল দিয়ে বরণ করেন মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব রৌনক জাহান। এছাড়াও মন্ত্রণালয়ের অধীন বিভিন্ন দপ্তর ও সংস্থার কর্মকর্তাবৃন্দ মন্ত্রীকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। পরে তিনি সবার সাথে মতবিনিময় করেন। 
মতবিনিময়কালে প্রতিমন্ত্রী ইমরান আহমদ বলেন, সকলের সহযোগিতায় সমন্বিত উদ্যোগে প্রবাসীদের কল্যাণে সকল চ্যালেঞ্জের মোকাবিলা করবো। তিনি আরো বলেন, ভিশন ২০২১ বাস্তবায়নে সরকার নিরলসভাবে কাজ করছে। স্বল্প ব্যয়ে নিরাপদ অভিবাসন ও সুষ্ঠু, নিয়মিত বৈদেশিক কর্মসংস্থানে সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। দেশের অর্থনীতিতে প্রবাসীদের রেমিটেন্সের ভূমিকা অপরিসীম উল্লেখ করে তিনি বলেন, রেমিটেন্স বৃদ্ধির অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে প্রয়োজনীয় সব উদ্যোগ নেওয়া হবে।
মতবিনিময় সভায় ভারপ্রাপ্ত সচিব রৌনক জাহান বলেন, দ্রুত সময়ের মধ্যে বিদেশে গমনেচ্ছু কর্মীদের ডাটাবেজ তৈরি ও কর্মসংস্থান নিশ্চিত করার জন্য মন্ত্রণালয় ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে।
মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব রৌনক জাহান, প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের চেয়ারম্যান বেগম সামছুন নাহার, অতিরিক্ত সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন, ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক গাজী মোহাম্মদ জুলহাস, এনডিসি; বিএমইটি’র মহাপরিচালক মোঃ সেলিম রেজা, বোয়েসেল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মরণ কুমার চক্রবর্তীসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।
#
 
রাশেদুজ্জামান/মাহমুদ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৯/২১১০ঘণ্টা  
তথ্যবিবরণী                         নম্বর : ৭৭
 
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জ্ঞাপন
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
নবনিযুক্ত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমানকে আজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং অধীনস্থ দপ্তর ও সংস্থার প্রধানরা স¦াগত জানান।
এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি ও নির্দেশনা বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশের শান্তি, সমৃদ্ধি ও উন্নয়নের লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যেতে হবে। বর্তমান সরকার দেশের উন্নয়নে বদ্ধপরিকর। সেই ধারাবাহিকতায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের আওতায় বাস্তবায়নাধীন উন্নয়ন প্রকল্পসমূহকে দ্রুত সময়ের মধ্যে শেষ করার জন্য তিনি আহ্বান জানান। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে ২৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন সম্ভব হবে। এ ধরনের প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশ পৃথিবীকে বার্তা দিতে চায় যে এদেশ এ ধরনের একটি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে পারে।
অনুষ্ঠানে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ, মন্ত্রণালয়াধীন সংস্থাপ্রধানগণ এবং প্রকল্প পরিচালকগণ উপস্থিত ছিলেন।
#
 
বিবেকানন্দ/মাহমুদ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৯/২০৫০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                   নম্বর : ৭৬
 
কাজের মাধ্যমেই মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মূল্যায়ন করা হবে
                                                       --- শিল্প প্রতিমন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
কাজের মাধ্যমেই শিল্প মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মূল্যায়ন করা হবে বলে মন্তব্য করেছেন নবনিযুক্ত শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার। তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বে শ্রমিক নেতারা বেশি কাজ করে থাকেন। সে বিবেচনায় রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প কারখানার সিবিএ নেতাদের কর্মকা-েও পরিবর্তন আনতে হবে। রাষ্ট্রায়ত্ত কারখানা লাভজনক করতে শ্রমিক নেতাদের বেশি করে কাজ করার উদাহরণ স্থাপনের ওপর গুরুত্ব দেন তিনি। 
শিল্প প্রতিমন্ত্রী আজ মন্ত্রণালয়ে তাঁর প্রথম কর্মদিবসে মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠককালে এসব কথা বলেন। বৈঠকে ভারপ্রাপ্ত শিল্পসচিব মোঃ আবদুল হালিম শিল্প মন্ত্রণালয় এবং এর আওতাধীন দপ্তর ও সংস্থার কর্মকা- সম্পর্কে প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করেন। এ সময় তিনি বিগত দশ বছরে শিল্প মন্ত্রণালয় অর্জিত সাফল্যের পাশাপাশি মন্ত্রণালয়ের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে তুলে ধরেন।
ভারপ্রাপ্ত শিল্পসচিব জানান, রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নের পাশাপাশি দেশে শিল্প ও ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে শিল্প মন্ত্রণালয় কাজ করছে। শিল্পখাতে আগামী দিনে গুণগত পরিবর্তনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় সার, চামড়া, সিমেন্ট, বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার, গ্লাস, ওষুধ, স্টিলসহ বিভিন্ন শিল্পপণ্যের উন্নয়নে নতুন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। বর্তমানে বাংলাদেশে উৎপাদিত ওষুধ বিশ্বের ১শ’ ৫২টি দেশে রপ্তানি হচ্ছে। বিদ্যমান কলকারখানা বিএমআরই’র পরিবর্তে নতুন কারখানা স্থাপনের ওপর গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। 
প্রতিমন্ত্রী বলেন, শিল্পখাতের উন্নয়ন ঘটিয়ে প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত নির্বাচনি ইশতেহারের বিরাট অংশ বাস্তবায়ন সম্ভব। এ লক্ষ্যে সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। তিনি নিজের পূর্ব অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে শিল্পায়নের চলমান প্রক্রিয়াকে এগিয়ে নেয়ার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। 
এর আগে শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদারকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। 
#
 
জলিল/মাহমুদ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৯/২০৪৫ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                     নম্বর : ৭৫
 
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে শ্রেষ্ঠ মন্ত্রণালয়ে পরিণত করতে চাই
                                     --- নবনিযুক্ত সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
নবনিযুক্ত সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেছেন, ‘সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়কে শ্রেষ্ঠ মন্ত্রণালয়ে পরিণত করতে চাই। এ লক্ষ্যে মন্ত্রণালয়ের কাজের অগ্রাধিকার তালিকা করে দ্রুততার সঙ্গে সেগুলো সম্পন্ন করবো। আমাদের সামনে দুইটি গুরুত্বপূর্ণ বর্ষ রয়েছে- সেটি হলো বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন। এ উপলক্ষে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ হতে বিশেষ কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন করা হবে।’
প্রতিমন্ত্রী আজ সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সচিবালয়ে তাঁর প্রথম কর্মদিবসে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পক্ষ হতে অভিনন্দন জ্ঞাপন ও মন্ত্রণালয়ের কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিতকরণ অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।
কে এম খালিদ বলেন, ‘জাতির পিতার নেতৃত্বে এ দেশ স্বাধীন হয়েছিল বলেই আজ আমরা স্বাবলম্বী হয়েছি, বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ভোগ করছি। তাঁরই সুযোগ্য কন্যা মাননীয প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী ও বিচক্ষণ নেতৃত্বে বিগত দশ বছরে আমরা উন্নয়নের মহাসড়কে প্রবেশ করেছি। এ ধারা অব্যাহত রাখা ও চলমান কার্যক্রম এগিয়ে নেওয়ার লক্ষ্যে মাননীয প্রধানমন্ত্রী আস্থা রেখে আমার ওপর এ মহান দায়িত্ব অর্পণ করেছেন। আমি সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে আমার ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে চাই।’
কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন। সমাজের ইতিবাচক দিকসমূহ তুলে ধরুন। এমন কিছু করবেন না যাতে জনগণের মাঝে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়।’
অনুষ্ঠানে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিবের রুটিন দায়িত্বে নিয়োজিত অতিরিক্ত সচিব রোকসানা মালেক, অতিরিক্ত সচিব মোঃ নিজাম উদ্দিন ও মোঃ আব্দুল মান্নান ইলিয়াসসহ মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং অধীনস্থ দপ্তর ও সংস্থা প্রধানগণ উপস্থিত ছিলেন।
#
 
ফয়সল/মাহমুদ/পারভেজ/জয়নুল/২০১৯/২০৪০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                 নম্বর : ৭৪
 
পরিবেশের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় ঐক্যবদ্ধ হতে হবে 
                                       -- পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
                                                                  
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন ও উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার আজ মন্ত্রণালয়ে যোগদান করেছেন। মন্ত্রণালয়ে আসার আগে তাঁরা মন্ত্রিসভার অন্যান্য সদস্যসহ সকালে ধানমন্ডিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এরপর সাভার জাতীয় স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে নিজ মন্ত্রণালয়ে যোগদান করেন। নিজ দপ্তরে যোগদানের পর তাঁরা মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা কর্মচারীগণের সাথে এক সভায় মিলিত হন। 
পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী মন্ত্রী ও উপমন্ত্রীকে মন্ত্রণালয়ে স্বাগত জানান এবং সভার পরিচালনার কাজ শুরু করেন। মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ সকল দপ্তর ও অধিদপ্তর প্রধানগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন। মন্ত্রী বলেন, বর্তমানে পরিবেশ একটি বড় চ্যালেঞ্জ। এই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। মন্ত্রী ও উপমন্ত্রী তাঁদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন।
 
#
 
পাশা/মাহমুদ/সঞ্জীব/সেলিমুজ্জামান/২০১৯/১৯৫০ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                 নম্বর : ৭২
 
তথ্যমন্ত্রীকে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ, সামাজিক 
সংগঠন ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উষ্ণ শুভেচ্ছা
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
 
দুপুরে নবনিযুক্ত তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদকে ফুলেল শুভেচ্ছা দিয়ে মন্ত্রণালয়ে বরণ করে নেন তথ্যসচিব আবদুল মালেক। এর পরপরই তথ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ ও  এর সকল সংস্থার প্রধানগণ মন্ত্রীকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। 
 
বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি মোল্লা জালাল ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আবু জাফর সূর্য এবং সংগঠনদ্বয়ের সাধারণ সম্পাদক যথাক্রমে শাবান মাহমুদ ও সোহেল হায়দার চৌধুরী তথ্যমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। তথ্যমন্ত্রী দেশের কাজে তাদের সহযোগিতা কামনা করেন।
 
প্রখ্যাত অভিনেতা হাসান ইমামের নেতৃত্বে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি, চিত্রপরিচালক সালাউদ্দিন লাভলুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ ডিরেক্টরস গিল্ড, রুহুল আমিন আকন্দের নেতৃত্বে পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী জাতীয় ঐক্য ফাউন্ডেশন, বাংলাদেশ সচিবালয় কর্মকর্তা-কর্মচারী ঐক্য পরিষদ, বাংলাদেশ ভারত মৈত্রী বন্ধন, সংগীত শিল্পী রফিকুল আলম ও চলচ্চিত্র অভিনেতা-অভিনেত্রীসহ বিভিন্ন সামাজিক ও গণমাধ্যম সংগঠন তথ্যমন্ত্রীকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানান। 
 
#
তথ্যবিবরণী                 নম্বর : ৭৩
 
সাবেক ছাত্রলীগ নেতার অকাল মৃত্যুতে তথ্যমন্ত্রীর শোক
 
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
 
চট্টগ্রাম আইন কলেজ সংসদের সাবেক সহসভাপতি ও ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য ওয়ায়েস কাদেরের অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।
 
ওয়ায়েস কাদের (৩০) মঙ্গলবার বিকেলে চট্টগ্রামে আকস্মিক অসুস্থতায় মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন। তথ্যমন্ত্রী প্রয়াতের আত্মার শান্তি কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
#
আকরাম/মাহমুদ/পারভেজ/সেলিমুজ্জামান/২০১৯/১৯৪০ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                 নম্বর :  ৭১
প্রধানমন্ত্রীর ইশতেহার বাস্তবায়নে গণমাধ্যমকে সাথে চাই 
                            -- তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচনি ইশতেহার বাস্তবায়নে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ মহান কাজে দেশের সকল গণমাধ্যমকে সাথে চাই।’
সোমবার বঙ্গভবনে মন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণের পর মঙ্গলবার সকালে ধানমন্ডিতে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে  জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্প অর্পণ ও সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে মিলিত হন নবনিযুক্ত তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ। তথ্যসচিব আবদুল মালেক, প্রধান তথ্য অফিসার কামরুন নাহার, বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কালাম আজাদ, অতিরিক্ত সচিব মোঃ আজহারুল হক ও মিজান উল আলম এ সময় উপস্থিত ছিলেন। 
তথ্য মন্ত্রণালয়কে রাষ্ট্রের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ বলে অভিহিত করে মন্ত্রী বলেন, ‘রাষ্ট্রের আইন, বিচার ও নির্বাহী বিভাগের পর চতুর্থ স্তম্ভ হলো গণমাধ্যম। নির্বাহী বিভাগের সাথে গণমাধ্যমের সহযোগিতার বন্ধনে রাষ্ট্র উপকৃত হয়, দেশ এগিয়ে যায়। গণমাধ্যম সমাজের দর্পণ। সমাজকে নির্মাণ ও সঠিক খাতে প্রবাহিত করতে গণমাধ্যমের কোনো বিকল্প নেই।’ 
বক্তব্যের শুরুতেই মহান স্রষ্টার কাছে শুকরিয়া এবং হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও সকল শহিদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, দেশের ইতিহাসে চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালনকারী শেখ হাসিনা তাকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়ায় তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ। দীর্ঘ ছয় বছর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পালনের পর তাঁকে রাষ্ট্রের তথ্যের যে দায়িত্ব প্রধানমন্ত্রী দিয়েছেন, তা সফলভাবে পালনের জন্য গণমাধ্যমের সহায়তা কামনা করেন তিনি। 
ড. হাছান মাহমুদ এ সময় বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবসহ পনেরই আগস্টের সকল শহিদ, পঁচাত্তর সালের ৩রা নভেম্বর কারাগারের অভ্যন্তরে নিহত জাতীয় চার নেতা এবং দেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনে আত্মদানকারী সকলের প্রতিও শ্রদ্ধা জানান। 
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘মানুষের উন্নতির জন্য যেমন স্বপ্ন প্রয়োজন, দেশের উন্নতির জন্যও তাই। এজন্যই জাতিকে স্বপ্ন দেখতে হয়। যে দেশে পঞ্চাশের দশক থেকেই খাদ্য ঘাটতি, মানুষের ঘনত্ব সর্বোচ্চ, মাথাপিছু কৃষি জমির পরিমাণ সর্বনিম্ন, সে দেশকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুধু স্বপ্নই দেখাননি, বিশ্বের দরিদ্রতম দেশের কাতার থেকে  উন্নয়নশীল দেশে পরিণত করেছেন।’ 
‘২০০৮ সালের নির্বাচনে জাতিকে আমরা যে স্বপ্ন দেখিয়েছিলাম, তা যেমন বাস্তবায়ন করেছি, ২০১৮ সালের নির্বাচনে দেখানো স্বপ্নও শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা বাস্তবায়ন করবো’ অঙ্গীকার করে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, এ স্বপ্ন পুরণে গণমাধ্যমের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ। 
দেশের উন্নতির জন্য মেধা, মনন ও দেশাত্মবোধের সমন্বয়ের বিকল্প নেই উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘গণমাধ্যমের একটি ছোট্ট সংবাদ যেমন সমাজে অনেক তুলকালাম ঘটিয়ে দিতে পারে, একই সাথে নতুন প্রজন্মের মনন তৈরিতে, প্রতিটি হাতকে কর্মীর হাতে পরিণত করতে এবং মানুষের মাঝে দেশাত্মবোধ জাগ্রত করতেও ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারে গণমাধ্যম। আমার বিশ্বাস, গণমাধ্যম তা করবে।’
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘শেখ হাসিনার সরকার গণমাধ্যমবান্ধব। দেশে গণমাধ্যমের বিকাশ, অনলাইন গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রসারও শেখ হাসিনার আন্তরিকতারই প্রতিফলন। গণমাধ্যমের ক্রমবিকাশ ও অভাব-অভিযোগের প্রতিকারের জন্য গণমাধ্যমকর্মীদের পরামর্শ মন্ত্রণালয় সবসময় স্বাগত জানাবে।’
#
আকরাম/মাহমুদ/পারভেজ/সেলিমুজ্জামান/২০১৯/১৯৪০ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                 নম্বর : ৭০
জনগণের দোরগোড়ায় মানসম্মত  স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দেওয়া হবে
                                                      -- স্বাস্থ্যমন্ত্রী
ঢাকা, ২৫ পৌষ (৮ জানুয়ারি) :
জনগণের দোরগোড়ায় স্বল্প খরচে মানসম্মত  স্বাস্থ্যসেবা  পৌঁছে দেয়ার বিষয়টি সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন নতুন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেন, গত দশ বছরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে  স্বাস্থ্য সেক্টরে প্রশংসনীয় সফলতা এসেছে। সফলতার এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখার পাশাপাশি দেশে সর্বজনীন স্বাস্থ্য সুরক্ষা প্রতিষ্ঠার বিষয়টি গুরুত্ব দেয়া হবে। 
আজ স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় আয়োজিত মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে মতবিনিময় সভায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের নতুন প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলাম, স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ বিভাগের সচিব জি এম সালেহ উদ্দিন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান, নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক তন্দ্র শিকদার, বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ডের চেয়ারম্যান ডা. দিলীপ কুমার রায় প্রমুখ। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, হাসপাতাল, মেডিকেল কলেজ, স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা বিষয়ক বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরসমূহের কর্মকর্তা কর্মচারীরা নতুন মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। 
বিগত সংসদ নির্বাচনে ঘোষিত আওয়ামী লীগের ইশতেহার অনুযায়ী অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেশের প্রতিটি বিভাগে একটি করে কিডনি  ও ক্যান্সার হাসপাতাল স্থাপন করার ঘোষণা দিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, দেশে অসংক্রামক রোগ বিশেষ করে কিডনি ও ক্যান্সার রোগে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। এসব রোগের চিকিৎসা খুবই ব্যয়বহুল। দেশের সর্বত্র এই সব রোগের চিকিৎসাসেবা প্রদানের পর্যাপ্ত অবকাঠামো নেই। জেলা পর্যারের হাসপাতালগুলোতে ক্যান্সার ও কিডনি ইউনিট স্থাপন করার উদ্যোগ নেওয়া হবে বলেও তিনি জানান। 
সরকারি হাসপাতালগুলোতে পূর্ণাঙ্গ জরুরি বিভাগ স্থাপন করার প্রতিশ্রুতি দিয়ে নতুন স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি সরকারি বিবেচনায় রয়েছে। সরকারি হাসপাতালগুলোতে পূর্ণাঙ্গ জরুরি বিভাগ স্থাপিত হলে অনেক মুমূর্ষু রোগীর প্রাণ বাঁচানোর সম্ভাবনা বাড়বে। সরকারি হাসপাতালগুলোতে যন্ত্রপাতিসমূহের সঠিক ব্যবহার নিশ্চিত করা হবে বলে জানান জাহিদ মালেক। 
গত দশ বছরে স্বাস্থ্য সেক্টরের উন্নয়নের খ-চিত্র তুলে ধরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বল
Todays handout (13).docx Todays handout (13).docx

Share with :

Facebook Facebook