তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১০ মে ২০২০

তথ্যবিবরণী ১০ মে ২০২০

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :  ১৬৮৮

 

 ‘আদালত কর্তৃক তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার অধ্যাদেশ, ২০২০’ একটি যুগান্তকারী আইন

                                                                                -- আইনমন্ত্রী
 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

 

          আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বিচারিক কার্যক্রম পরিচালনার উদ্দেশ্যে প্রণীত ‘আদালত কর্তৃক তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার অধ্যাদেশ, ২০২০’ বা ভার্চুয়াল কোর্ট পরিচালনা আইন একটি যুগান্তকারী আইন। এটি বাংলাদেশে একটি নতুন অধ্যায়ের সূচনা করবে।


          মন্ত্রী আজ ঢাকায় তাঁর বাসভবন থেকে ভার্চুয়াল কোর্ট সম্পর্কিত বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এক ভিডিও বার্তায় এসব কথা বলেন।


          মন্ত্রী বলেন, সাক্ষ্য আইন সংশোধন হওয়ার পর এই অধ্যাদেশে প্রদত্ত ক্ষমতাবলে বিচারিক কাজগুলো শুরু করা যাবে। তখন আমাদের নিম্ন আদালত এবং বিচারিক আদালত তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে ট্রায়াল, সাক্ষ্য গ্রহণ এবং যুক্তিতর্ক শুনতে পারবে এবং রায় প্রদান করতে পারবে। এর আগে এই অধ্যাদেশে প্রদত্ত ক্ষমতাবলে প্রধান বিচারপতি, সুপ্রিম কোর্ট ও হাইকোর্ট বিভাগ প্র্যাকটিস নির্দেশনার মাধ্যমে কার্যবিধি নির্ধারণ করে দিয়ে অন্যান্য মামলার শুনানী বিশেষ করে জামিন শুনানী গ্রহণ করতে পারবে।

         

          মন্ত্রী বলেন, কিছুদিন আগে  যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট  করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে ভার্চুয়াল কোর্ট বসিয়ে তাদের আদালত পরিচালনার চিন্তাভাবনা শুরু করে। সেক্ষেত্রে বলতে পারি বাংলাদেশ খুব একটা পিছিয়ে নেই।

 

#

 

রেজাউল/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/২১৪০ ঘণ্টা

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :  ১৬৮৭

 

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে আইসিটি বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনুদানের চেক হস্তান্তর

 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

 

          করোনা ভাইরাসজনিত মহামারী মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে আইসিটি বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা তাদের একদিনের বেতনের সমপরিমাণ ২২ লাখ ৯৫ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছেন।  

 

          তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক আজ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুদানের চেক হস্তান্তর করেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে এই অনুদানের চেক গ্রহণ করেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে গণভবন থেকে সংযুক্ত হয়ে করোনা মোকাবিলায়  ত্রাণ তহবিলে মানবিক সহায়তা প্রদানের জন্য আইসিটি বিভাগের কর্মকর্তা কর্মচারীদের ধন্যবাদ জানান।

 

          চেক প্রদানকালে প্রতিমন্ত্রী করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় গত ৬০ দিনে স্বাস্থ্য, শিক্ষা, খাদ্য,  কৃষি ও সরবরাহ ব্যবস্থাপনায় প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বিভিন্ন সেবা প্রদানের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করেন। তিনি বলেন, corona.gov.bd এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে দেশের ৬০ লাখ নাগরিক সেবা গ্রহণ করেছে। তিনি জানান, "তথ্য ও সেবা সব সময়" হটলাইন ৩৩৩ এর মাধ্যমে এ পর্যন্ত ১৬ লাখ লোক কল করে করোনা বিষয়ে সেবা গ্রহণ করেছে।

 

          প্রতিমন্ত্রী বলেন, ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারের হটলাইনের মাধ্যমে খাদ্য সহায়তা চেয়েছে এমন প্রায় ৩০ হাজার পরিবারকে খাদ্য পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। এছাড়া, মানবিক সহায়তা প্রদানের জন্য ৫০ হাজার নাগরিকের ডাটাবেজের মাধ্যমে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা হচ্ছে ।

 

          চেক হস্তান্তরকালে আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম উপস্থিত ছিলেন।

 

#

 

শহিদুল/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/২২০০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :  ১৬৮৬

 

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ২৮ লাখ টাকা প্রদান

 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

 

          কোভিড- ১৯ মহামারী মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ২৮ লাখ ৪০ হাজার টাকা দিয়েছে  মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও এর অধীন দপ্তর-সংস্থাসমূহের কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ তাদের এক দিনের বেতনের সমপরিমাণ  এই অর্থ প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে প্রদান করেন।

 

          আজ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষে প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউসের নিকট অনুদানের চেক হস্তান্তর করেন। মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী রওশন আক্তার এ সময় উপস্থিত ছিলেন। 

 

          চেক হস্তান্তরের সময় ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে সংযুক্ত থেকে কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবিলায় ত্রাণ তহবিলে মানবিক সহায়তা প্রদানের জন্য মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও অধীনস্ত দপ্তর-সংস্থার কর্মকর্তা কর্মচারীদের ধন্যবাদ জানান। 

 

#

 

আলমগীর/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/২০৩০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :  ১৬৮৫

 

কেপিএম'র জীবাণুনাশক উৎপাদন: নিজস্ব চাহিদা পূরণ করে অন্য প্রতিষ্ঠানকেও দেওয়া হবে

 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

 

          দেশের করোনা পরিস্থিতিতে কারখানার কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শ্রমিকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে উৎপাদন কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে জীবাণুনাশক ব্লিচ উৎপাদন শুরু  করেছে কর্ণফুলী পেপার মিলস লিমিটেড (কেপিএম)। উৎপাদিত জীবাণুনাশক ব্লিচ নিজেদের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি প্রয়োজনে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানকেও সরবরাহ করা হবে। শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন বাংলাদেশ  কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ কর্পোরেশন (বিসিআইসি) স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে উৎপাদন কার্যক্রম অব্যাহত রাখতে কেপিএম-কে নির্দেশনা প্রদানের প্রেক্ষিতে কারখানাটি এ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

 

          কেপিএম-এর সূত্রে জানা যায়, জীবাণুনাশক ব্লিচ উৎপাদনের জন্য গত ১৫ এপ্রিল হতে কারখানাটির অব্যবহৃত ব্লিচ উৎপাদনের প্ল্যান্টটির সিভিল, মেকানিক্যাল ও ইলেকট্রিক্যাল রক্ষণাবেক্ষণের কার্যক্রম শুরু হয় এবং ৩০ এপ্রিল এক ব্যাচে এক টন ক্যালসিয়াম হাইপোক্লোরাইটের ব্লিচ লিকার উৎপাদন করা হয়। প্ল্যান্টটিতে পূর্বে পাল্প সাদা করার জন্য ব্লিচ উৎপাদন করা হতো। বর্তমানে কর্মকর্তা-কর্মচারী-শ্রমিকদের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা, যানবাহন জীবানুমুক্তকরণ-সহ কারখানার পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা  বজায় রাখার কাজে এই জীবাণুনাশক ব্যবহৃত হচ্ছে। 

 

          কারখানার উৎপাদন কার্যক্রম সম্পর্কে কেপিএম'র ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী ড. এম এম এ কাদের বলেন, কর্ণফুলী পেপার মিলস বর্তমানে আমদানিকৃত পাল্প ও রিসাইকেল পেপার হতে কাগজ উৎপাদন করছে। তিনি বলেন, গত তিন বছরের মধ্যে চলতি অর্থবছরে ৯ মে পর্যন্ত সর্বোচ্চ ৫ হাজার ৭৮৫ মেট্রিক টন কাগজ উৎপাদিত হয়েছে। উৎপাদন কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে চলতি অর্থবছরে সাড়ে সাত হাজার থেকে ৮ হাজার মেট্রিক টন কাগজ উৎপাদিত হতে পারে।

 

#

 

মাসুম/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/২০২০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :  ১৬৮৪

 

খাদ্য সংকট নিয়ে চিন্তার কোনো কারণ নেই

                        -- নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

 

বোচাগঞ্জ (দিনাজপুর), ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :


          নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহ্‌মুদ চৌধুরী বলেছেন, করোনার প্রাদুর্ভাবে পৃথিবীর অনেক দেশ খাদ্য সংকট নিয়ে চিন্তিত। তখন বাংলাদেশে আমাদের খাদ্য সংকট নিয়ে চিন্তার কোনো কারণ নেই। বোরো ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় দেশের চাহিদা মিটিয়ে অন্যদেশকেও খাদ্য সহায়তা দেওয়া যাবে ।


          প্রতিমন্ত্রী আজ দিনাজপুরের বোচাগঞ্জে বোরো মওসুমের চাল ক্রয় কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।


          প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকারের সুষ্ঠু তত্ত্বাবধানের কারণে এবার বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। সরকার শুরু থেকেই কৃষিতে বাড়তি নজর দিয়ে আসছে। কৃষি উপকরণে ভর্তুকি দিয়ে আসছে। বিএনপি আমলে সারের জন্য কৃষককে গুলি খেয়ে মরতে হয়েছে, আর আওয়ামী লীগ ভর্তুকি দিয়ে কৃষকের দ্বারে সার পৌঁছে দিয়েছে। তিনি এ সময় বলেন, করোনা মোকাবিলায় সরকারের মানবিক সাহায্য অব্যাহত আছে। ৫০ লাখ লোক প্রধানমন্ত্রীর নগদ অর্থ সহায়তা পাচ্ছেন। এক কোটি মানুষ দশ টাকা কেজি চালের আওতায় আসছেন।


          এর আগে প্রতিমন্ত্রী উপজেলার ৫০ জন শিল্পীর হাতে নগদ আর্থিক সহায়তা তুলে দেন ।

 

#

 

জাহাঙ্গীর/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/২০৪০ ঘণ্টা

 

 

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :  ১৬৮৩

 

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে জুডিসিয়াল সার্ভিস এসোসিয়েশনের

সদস্যদের একদিনের বেতনের চেক প্রদান 
 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :


          করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে সদস্যদের একদিনের বেতনের সমপরিমাণ   ৩০ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করেছে বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস এসোসিয়েশন।

 
          আজ ঢাকায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের অধস্তন আদালতের  সকল পর্যায়ের বিচারকদের একদিনের বেতনের চেক হস্তান্তর করেন জুডিসিয়াল সার্ভিস  এসোসিয়েশনের  মহাসচিব বিকাশ কুমার সাহা। চেক গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে  ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন। আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মোঃ গোলাম সারওয়ার ও এসোসিয়েশনের সভাপতি মোঃ হেলাল চৌধুরী  এ সময় উপস্থিত ছিলেন।


           এদিকে আজ একই অনুষ্ঠানে নিবন্ধন অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সংগঠন বাংলাদেশ রেজিস্ট্রেশন  সার্ভিস এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকেও প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে এসোসিয়েশনের সদস্যদের একদিনের বেতনের সমপরিমাণ ১০ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করা হয়।

 

#

 

রেজাউল/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/১৯৩০ ঘণ্টা

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :  ১৬৮২

 

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ২৩ কোটি টাকা প্রদান

 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

 

          করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে কর্মহীন, অসহায়, দরিদ্র মানুষকে সহায়তা প্রদানের জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে ২৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা দিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয় এবং এর আওতাধীন অধিদপ্তর/সংস্থার কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষকগণ বৈশাখী ভাতার ২০ শতাংশ হিসেবে এই টাকা প্রদান করেন।  

 

          আজ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোঃ জাকির হোসেন, সচিব মোঃ আকরাম-আল-হোসেন ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোঃ ফসিউল্লাহ্ এই চেক প্রদান করেন।  প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে চেক গ্রহণ করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সময় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে সংযুক্ত ছিলেন। 

 

          প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে বৈশাখী ভাতার অংশ দেওয়ায় সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীকে আন্তরিক অভিনন্দন জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

 

#

 

রবীন্দ্রনাথ/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/১৯৫০ ঘণ্টা

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :  ১৬৮১

 

বিস্ফোরক পরিদপ্তরের কার্যক্রম জনবান্ধব করার উদ্যোগ অব্যাহত রাখতে হবে

                                        -- জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

 

          বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, বিস্ফোরক পরিদপ্তরের কার্যক্রম জনবান্ধব করার উদ্যোগ অব্যাহত রাখতে হবে। বিস্ফোরক বা দাহ্য পদার্থ মজুদ, ব্যবহার বা পরিবহন সংক্রান্ত শিষ্ঠাচার অংশীজনদের কাছে পৌঁছে দিতে হবে। পরিদপ্তর ও অংশীজনদের যৌথ উদ্যোগে সাধারণ জনগণ ও ব্যবহারকারীদের সচেতন করতে নিয়মিত আলোচনা সভা, সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, টক শো আয়োজন করতে হবে।

 

          প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকায় তাঁর বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত ‘বিস্ফোরক পরিদপ্তর, ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তর, হাইড্রোকার্বন ইউনিট ও খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরো’র কার্যক্রম ও অগ্রগতি পর্যালোচনা সভায় এসব কথা বলেন।

 

          প্রতিমন্ত্রী বলেন, উন্নত বিশ্বের সাথে সমন্বয় করে বিস্ফোরক পরিদপ্তরকে আধুনিক করা প্রয়োজন। সেই সাথে প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়াতে হবে এবং কারিগরি জ্ঞানসম্পন্ন  অধিক লোকবল নিয়োগ দিতে হবে।  তিনি ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তরকে লৌহ খনির সঠিক অবস্থা নির্ণয়ের সাথে সাথে বাণিজ্যিকভাবে লাভজনক কিনা সে বিষয়েও প্রয়োজনীয় ফিজিবিলিটি স্টাডি করার নির্দেশ দেন। এ সময় তিনি খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোকে মন্ত্রণালয় ও জেলা পর্যায়ে আরো সমন্বিতভাবে কাজ করারও নির্দেশ দেন।

 

          ভার্চুয়াল এই সভায় এ সময় অন্যান্যের মাঝে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মোঃ আনিছুর রহমান, খনিজ সম্পদ উন্নয়ন ব্যুরোর মহাপরিচালক মোঃ জাফর উল্লাহ, হাইড্রোকার্বন ইউনিটের মহাপরিচালক এ এস এম মঞ্জুরুল কাদের,  ভূতাত্ত্বিক জরিপ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ নিজাম উদ্দিন ও বিস্ফোরক পরিদপ্তরের প্রধান বিস্ফোরক পরিদর্শক মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজ  উপস্থিত ছিলেন।

 

#

 

আসলাম/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/১৯২০ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                         নম্বর :  ১৬৮০

দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মন্তব্য করার আগে

ইউরোপ-আমেরিকার দিকে তাকান -বিএনপি’কে তথ্যমন্ত্রী

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

            তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ বিএনপি'র উদ্দেশে বলেছেন, 'দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মন্তব্য করার আগে  ইউরোপ-আমেরিকা-ভারত-পাকিস্তানের পরিস্থিতির দিকে তাকান, তাহলেই তাদের তুলনায় আমাদের পরিস্থিতিটা বুঝতে পারবেন।' এ সময় দেশের গণমাধ্যম বিষয়ে মন্তব্যকারী কূটনীতিকদের উদ্দেশে তথ্যমন্ত্রী বলেন, অন্যের বিষয়ে বলার আগে নিজের দেশের প্রশ্নগুলো নিরসন করাই শ্রেয়।

            আজ সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সমসাময়িক বিষয়ে সংক্ষিপ্ত প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

            মন্ত্রী বলেন, ‘সরকারের সময়োচিত নানা পদক্ষেপের কারণে এখনও অনেক দেশের তুলনায় আমাদের দেশে পরিস্থিতি ভালো। কিন্তু যেকোনো পরিস্থিতিই তৈরি হতে পারে, মারাত্মক আকারও ধারণ করতে পারে। সেজন্যও সরকার নানা ধরণের প্রস্তুতি নিয়েছে এবং নিচ্ছে। সেই সাথে জনগণকে প্রতিদিন পরিস্থিতি অবহিত করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সরকারের পাশাপাশি দলের নেতৃবৃন্দ ও জনপ্রতিনিধিরা ইতোমধ্যেই প্রায়  ১ কোটি মানুষের কাছে ত্রাণ ও নগদ সহায়তা পৌঁছে দিয়েছেন এবং তা অব্যাহত রয়েছে।'

            অথচ গত কয়েকদিন ধরে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ-সহ বিএনপি নেতারা নানা ধরণের কথা বলে আসছেন উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান বলেন, ‘তাদের এই কথা বলার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে,  সরকারের ভালো উদ্যোগগুলো যাতে বাধাগ্রস্ত হয়। সেই লক্ষ্য নিয়েই তারা এসব কথা বলছে। অথচ এই সময় বাদানুবাদের রাজনীতি কোনোভাবেই কাম্য নয়।’ 

            ‘পৃথিবীর অন্যান্য দেশে সমস্ত রাজনৈতিক দল এই দুর্যোগের মধ্যে সরকারকে সহযোগিতা করার জন্য এগিয়ে এসেছে; এমনকি পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে সোনিয়া গান্ধী অর্থাৎ কংগ্রেস সভাপতি ও বিরোধী কংগ্রেস জোটের চেয়ারপার্সন চিঠি দিয়ে তাদের সরকারের নানা উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন এবং সরকারকে এই বৈশ্বিক দুর্যোগ মোকাবিলায় সহযোগিতা করার জন্য চিঠি দিয়ে জানিয়েছেন, অথচ আমাদের দেশে বিএনপি এবং বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোটের নেতৃবৃন্দ এই কাজটি করতে ব্যর্থ হয়েছে’, জানান তথ্যমন্ত্রী। 

            ‘আবার অনেককে দেখি, তারা গণমাধ্যমে খুব সোচ্চার, কিন্তু একমুঠো চাল নিয়েও তারা জনগণের কাছে যাননি, মানুষের পাশে দাঁড়াননি; আর বিএনপিও কিছু ফটোসেশনের মধ্যেই ব্যস্ত’ মন্তব্য করেন তিনি। 

            ‘আর আমরা দেখতে পাচ্ছি, বিএনপি ঢাকা শহরে কিছু লোক দেখানো ফটোসেশন করা ছাড়া আসলে জনগণের পাশে যেভাবে দাঁড়ানো প্রয়োজন ছিল এবং তাদের সামর্থ্য ছিল, সেই অনুযায়ী তারা দাঁড়ায়নি’ বলেন তিনি। 

অন্যের বিষয়ে বলার আগে নিজের দেশের প্রশ্নগুলো নিরসন করাই শ্রেয় -- কূটনীতিকদের প্রতি তথ্যমন্ত্রী

            এদিকে দেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়ে কয়েকজন বিদেশি কূটনীতিকদের মন্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা লক্ষ্য করেছি যে মার্কিন রাষ্ট্রদূত, ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত-সহ সাতজন রাষ্ট্রদূত টুইট করে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বক্তব্য রেখেছেন। এ ব্যাপারে মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ইতোমধ্যেই তার প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন যে, দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে তাদের এই টুইট করে কথা বলা কূটনৈতিক শিষ্টাচার লঙ্ঘনের শামিল।’ 

            ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেন, ‘বাংলাদেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতা, মানবাধিকার নানা বিষয় নিয়ে বিভিন্ন সময় যে কূটনীতিকরা কথা বলেন, আমি তাদেরকে অনুরোধ জানিয়ে বলবো, তাদের স্ব-স্ব দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিয়েও বিশ্বব্যাপী নানা প্রশ্ন আছে। বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কৃষ্ণাঙ্গ ও ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন, পুলিশি হেফাজতে মৃত্যু এবং বিভিন্ন কারাগারে বন্দিদের ওপর নির্যাতনে বিশ্বব্যাপী নানা প্রশ্ন আছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নে রাজনৈতিক আশ্রয়প্রার্থীদের ওপর নির্যাতন এবং তাদের ওপর বেআইনি আচরণ নিয়ে বহুপ্রশ্ন বহুদিন ধরে বিশ্বব্যাপী আছে, যেগুলো নিরসন অনেক বেশি জরুরি বলে অনেকে মনে করেন।’ 

            অন্য দেশের ব্যাপারে প্রশ্ন তোলার আগে নিজের দেশের ব্যাপারে যে প্রশ্নগুলো আছে সেগুলো নিরসন করাই বরং জনগণ তথা বিশ্ববাসী প্রত্যাশা করে বলে নিজস্ব অভিমতও তুলে ধরেন তথ্যমন্ত্রী। সেই সাথে তিনি স্মরণ করিয়ে দেন, ‘বাংলাদেশ একটি স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র। আমাদের এই স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ বিষয় নিয়ে কোনো বিদেশি রাষ্ট্রদূতের কথা বলা কূটনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত।’

#

আকরাম/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/১৯০০ ঘণ্টা

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর :  ১৬৭৯

 

হলি ফ্যামিলি হাসপাতালকে কোভিড-১৯ হাসপাতাল ঘোষণা স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :


          রেড ক্রিসেন্ট হলি ফ্যামিলি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালটি কোভিড-১৯ হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা করে এর কার্যক্রম উদ্বোধন করেছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক। হাসপাতালটি প্রাথমিকভাবে অক্টোবর মাস পর্যন্ত কোভিড-১৯ হাসপাতাল হিসেবে কার্যক্রম পরিচালনা করবে। তবে করোনার প্রকোপ না কমলে এর মেয়াদ আরো বৃদ্ধি পেতে পারে।

 

          স্বাস্থ্যমন্ত্রী আজ ঢাকায় রেড ক্রিসেন্ট হলি ফ্যামিলি হাসপাতালের অডিটোরিয়ামে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এই চিকিৎসা কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন।


          অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এই হাসপাতালের ৫০০টি বেড শুধুমাত্র কোভিড-১৯ রোগীদের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে। এখানে পর্যাপ্ত দক্ষ ও অভিজ্ঞ চিকিৎসক, নার্স ও কর্মী রয়েছে। এর পাশাপাশি হাসপাতালটিতে আইসিইউ রয়েছে ১০টি, ভেন্টিলেটর ৭টি, ডায়ালাইসিস মেশিন ৭টি-সহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি রয়েছে। এখানে আলাদা কেবিন রয়েছে ৭৫টিরও বেশি। কোভিড-১৯ চিকিৎসার জন্য যদি আরো কিছু প্রয়োজন হয় সরকার এখানে তা প্রদান করবে।"


          করোনার পরীক্ষার টেস্টিং ল্যাব প্রতিষ্ঠা প্রসঙ্গে মন্ত্রী জানান, "দেশে শুরুতে মাত্র ১টি টেস্টিং ল্যাব ছিল। সরকার এখন ৩৫টি  টেস্টিং ল্যাব চালু করেছে। প্রতিদিন ৫ হাজারের ওপরে টেস্ট করা হচ্ছে। খুব দ্রুতই আরো ১৬টি টেস্টিং ল্যাব স্থাপন করা হলে টেস্টের সংখ্যা দিনে ৮-১০ হাজারে পৌছানো সম্ভব হবে। এই হাসপাতালেও খুব দ্রুত অন্তত একটি টেস্টিং ল্যাব স্থাপন করা হবে।"


          উল্লেখ্য,হাসপাতালটিকে কোভিড-১৯ হাসপাতাল হিসেবে চালু করতে গত মে  মাসে সরকারের  সাথে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছিল। সে প্রেক্ষিতেই আজ স্বাস্থ্যমন্ত্রী হাসপাতালটিকে কোভিড-১৯ হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা করলেন।

         

#

 

মাইদুল/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/১৮৫০ ঘণ্টা

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর :  ১৬৭৮

 

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতের ক্ষতি পোষাতে সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে

                                      -- মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

 

          করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতের ক্ষয়-ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সরকারের পক্ষ থেকে সকল ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

  

          মন্ত্রী আজ রাজধানীর বেইলি রোডের সরকারি বাসভবন থেকে মাঠ পর্যায়ের মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাদের সাথে করোনা পরিস্থতিতে করণীয় বিষয়ে মতবিনিময়কালে  এসব কথা জানান।

 

          এ সময় মন্ত্রী বলেন, “প্রান্তিক পর্যায়ের ক্ষুদ্র চাষি ও খামারি থেকে শুরু করে বাণিজ্যিক উদ্যোক্তাদের সকল প্রকার সহযোগিতা দিতে ব্যাপক পরিকল্পনা নিয়েছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।  তিনি বলেন, সরকার আর্থিক প্রণোদনা প্রদান, স্বল্প সুদে ও সহজ শর্তে ঋণ প্রদান, কারিগরী সহায়তা এবং মৎস্য ও প্রাণী খাদ্যে ভর্তুকি প্রদানের মাধ্যমে করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের পাশে দাঁড়াবে।

  

          মন্ত্রী আরো বলেন, করোনার কারণে কোনো প্রকারেই যেনো মাছ, মাংস, ডিম ও দুধের উৎপাদন প্রক্রিয়া ব্যাহত না হয়, সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে। মানুষের আমিষ ও পুষ্টির সবচেয়ে বড় যোগান আসে এই খাত থেকে। তাই অত্যন্ত গুরুত্বের সাথে এই খাতের উৎপাদন ও বিপণন প্রক্রিয়াকে সচল রাখতে হবে। এছাড়া তিনি মাছ, দুধ, ডিম ও মাংসের ভ্রাম্যমান বিক্রয় ব্যবস্থাকে সকলের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতেও নির্দেশ দেন।

 

          মন্ত্রী এ সময় মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাদের দেশের এই ক্রান্তিকালে সর্বোচ্চ নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন। দুধ, ডিম, মাছ ও মাংস উৎপাদনে সংশ্লিষ্ট উৎপাদক ও খামারিদের পাশে দাঁড়িয়ে সকল প্রকার সহযোগিতা দিতে তিনি কর্মকর্তাদের প্রতি আহ্বান জানান।

 

#

 

ইফতেখার/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/১৮১০ ঘণ্টা

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর :  ১৬৭৭

 

প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ৩৮ কোটি টাকা প্রদান

 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

 

          করোনা  ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে কর্মহীন, অসহায়, দরিদ্র মানুষকে সহায়তা প্রদানের  জন্য প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ  তহবিলে  ৩৮ কোটি ২২ লাখ ৬৭ হাজার ৩৬৩ টাকা প্রদান করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।  এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ ২৯ কোটি ৯২ লাখ ২৯ হাজার টাকা প্রদান করেছে। বাকী অর্থ প্রদান করেছে মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বিভাগ। করোনা মোকাবিলায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সকল কর্মচারী তাদের একদিনের মূল বেতনের সমপরিমান এই অর্থ প্রদান করেন।

 

          শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি আজ এই অর্থের চেক হস্তান্তর করেন। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে চেক গ্রহণ করেন  প্রধানমন্ত্রীর  মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস।  চেক হস্তান্তরকালে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মোঃ মাহাবুব হোসেন,  কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মুনশী  শাহাবুদ্দীন আহমেদ,  মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মোঃ গোলাম ফারুক প্রমুখ।

 

          শিক্ষামন্ত্রী এ সময় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সকল কর্মচারীকে তাদের একদিনের মূল বেতনের সমপরিমাণ অর্থ প্রদান করায় ধন্যবাদ জানান।

 

#

 

খায়ের/রাহাত/নাসির/সেলিম/২০২০/১৭২০ ঘণ্টা

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :  ১৬৭৬

 

কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাস) সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন

 

ঢাকা, ২৭ বৈশাখ (১০ মে) :

 

          ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স কো-অর্ডিনেশন সেন্টার (এনডিআরসিসি) থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য ৬৪ জেলায় গতকাল পর্যন্ত ১ লাখ ৪৩ হাজার ১১৭ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ করা হয়েছে। এছাড়া শিশু খাদ্য-সহ অন্যান্য সামগ্রী ক্রয়ের জন্য ৭৮ কোটি ৮৭ লাখ ৭২ হাজার ২৬৪ টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে বরাদ্দকৃত এ সাহায্য দেশের সকল জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে বিতরণ করা হচ্ছে । ‌

 

          রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)-এর তথ্যানুযায়ী আজ দেশে নতুন করে আরো ৮৮৭ জনের শরী

2020-05-10-22-10-a6a71d5a73f9b4c78b4ec7e416c60de3.docx 2020-05-10-22-10-a6a71d5a73f9b4c78b4ec7e416c60de3.docx

Share with :

Facebook Facebook