তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৪ জানুয়ারি ২০২০

তথ্যবিবরণী 24/1/2020

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর: ২৯৪

 

সাভার সবসময় সংস্কৃতির চারণভূমি

                    -- সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

 

ঢাকা, ১০ মাঘ (২৪ জানুয়ারি) :

 

সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেছেন, সাভার মৃৎশিল্পের জন্য বিখ্যাত। এখানে জাতীয় স্মৃতিসৌধ অবস্থিত এবং সর্ববৃহৎ রথ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। সাভার সবসময় সংস্কৃতির চারণভূমি ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, সাভার উপজেলা শিল্পকলা একাডেমি নির্মাণ প্রকল্পের ডিপিপি প্রণয়ন প্রায় শেষ পর্যায়ে। খুব শীঘ্রই এটি পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হবে।

 

প্রতিমন্ত্রী আজ সন্ধ্যায় ঢাকার সাভারস্থ এনাম মেডিকেল কলেজ মিলনায়তনে জাগরণী থিয়েটারের ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে জাগরণী থিয়েটার আয়োজিত Ôরজতজয়ন্তী আন্তর্জাতিক থিয়েটার উৎসব ২০২০’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উদ্বোধকের বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মোঃ এনামুর রহমান।

 

জাগরণী থিয়েটারের সভাপতি রাশেদ আহমেদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট এর সহ-সভাপতি ঝুনা চৌধুরী, সাভার উপজেলা নির্বাহী অফিসার পারভেজুর রহমান, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন এর সাধারণ সম্পাদক কামাল বায়েজিদ, বাংলাদেশ পথনাটক পরিষদ এর সাধারণ সম্পাদক আহমেদ গিয়াস, সাভার সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট এর সভাপতি কাদের তালুকদার প্রমুখ। স্বাগত বক্তৃতা করেন জাগরণী থিয়েটারের সাধারণ সম্পাদক ও রজতজয়ন্তী আন্তর্জাতিক থিয়েটার উৎসব ২০২০ এর প্রধান সমন্বয়কারী স্মরণ সাহা।

 

অনুভূতি জ্ঞাপন করে বক্তৃতা করেন জাগরণী সম্মাননা প্রাপ্ত নাট্যজন আবুল হায়াত, দিলারা জামান ও শর্মিলী আহমেদ।

 

#

 

ফয়সল/ইসরাত/মোশারফ/সেলিম/২০২০/২২৩০ ঘন্টা

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর: ২৯৩

 

চলচ্চিত্র সমাজ পরিবর্তনের একটি শক্তিশালী মাধ্যম

-- আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

                       

ঢাকা, ১০ মাঘ (২৪ জানুয়ারি) :

 

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহ্‌মেদ পলক বলেছেন, চলচ্চিত্র সমাজ পরিবর্তনের একটি শক্তিশালী মাধ্যম। চলচ্চিত্র সমাজে বিভিন্ন অনিয়ম ও অসঙ্গতি সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করে এবং দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করতে চলচ্চিত্র অপরিসীম ভূমিকা রাখে। চলচ্চিত্র এমন একটি শিল্প মাধ্যম যে মাধ্যমে শিশুদের মেধা ও মননের বিকাশ ঘটানো যায়।

 

প্রতিমন্ত্রী আজ ঢাকায় কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরির শওকত ওসমান মিলনায়তনে ৮দিনব্যাপী ১৩তম আন্তর্জাতিক শিশু চলচ্চিত্র উৎসবের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

 

আধুনিক প্রযুক্তি, মেধা ও সৃজনশীলতা কাজে লাগিয়ে  শিশু-কিশোর-সহ  সকল শ্রেণির দর্শকদের উপযোগী সুস্থধারার চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য প্রতিমন্ত্রী সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, আইসিটি বিভাগের অধীন দেশে ২৮টি হাইটেক পার্ক প্রতিষ্ঠা করা হচ্ছে।  দেশের মানুষকে সুস্থ বিনোদনে উদ্বুদ্ধ করতে হাইটেক পার্কে আধুনিক  সিনেপ্লেক্স নির্মাণ করা হবে। এর মাধ্যমে দেশের মানুষ চলচ্চিত্র দেখায় আগ্রহী হবে । তিনি আরও বলেন, দেশের প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে অ্যানিমেশন ল্যাব প্রতিষ্ঠিত করা হচ্ছে। এই সকল ল্যাবে শিশু-কিশোরদের জন্য অনুশীলনের সুযোগ রাখা হবে।

 

সাবেক অর্থমন্ত্রী ও বরেণ্য রাজনীতিবিদ আবুল মাল আবদুল মুহিত পতাকা উত্তোলন এবং প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। উৎসব উপদেষ্টা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তফা মনোয়ারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, চিল্ড্রেন্স ফিল্মস সোসাইটি বাংলাদেশ এর সভাপতি প্রখ্যাত লেখক মুহাম্মদ জাফর ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক মুনিরা মোরশেদ মুন্নী, চলচ্চিত্র নির্মাতা মোরশেদুল ইসলাম, উৎসব পরিচালক ফারিহা জাহিন বিভা।

 

পরে  বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শৈশব নিয়ে সুদীপ্ত সাহা নির্মিত Ôখোকা যখন ছোট ছিলেন’ নামের স্বল্পদৈর্ঘ্যের এনিমেটেড চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়।

 

আজ থেকে শুরু হওয়া এ উৎসব চলবে ৩১ জানুয়ারি পর্যন্ত চিল্ড্রেন ফিল্মস সোসাইটি বাংলাদেশ এর উদ্যোগে উৎসবে ৫টি ভেন্যুতে ৩৯টি দেশের ২৭৯টি শিশুতোষ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে।

 

#

 

শহিদুল/ইসরাত/মোশারফ/সেলিম/২০২০/২২৩০ ঘন্টা

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                       নম্বর : ২৯২   

 

টেকসই উন্নয়নের জন্য সরকার শত বছরের পরিকল্পনা গ্রহণ করছে

                                                      ---স্থানীয় সরকার মন্ত্রী

 

কুমিল্লা, ১০ মাঘ (২৪ জানুয়ারি) :   

 

          স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মোঃ তাজুল ইসলাম বলেছেন, সরকার রূপকল্প এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য শত বছরের পরিকল্পনা গ্রহণ করছে। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সবাইকে সম্মিলিতভাবে কাজ করতে হবে। 

 

          আজ কুমিল্লার পুরাতন বিমানবন্দর এলাকায় বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর (বিএনসিসি) কুমিল্লা ময়নামতি রেজিমেন্টের আয়োজনে ১০ দিনব্যাপী রেজিমেন্ট ক্যাম্পিংয়ের বিশেষ উদ্বুদ্ধকরণ ক্লাসে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন।

 

          বিএনসিসি ক্যাডেটদের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, প্রশিক্ষণের মাধ্যমে নিজেকে সকলের জন্য কল্যাণকর মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

 

          রেজিমেন্ট ক্যাম্পিংয়ে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের ১০টি জেলার ৫টি বিশ্ববিদ্যালয়সহ ১০০ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ১২৩ বিএনসিসি প্লাটুন থেকে ৫৫০ ক্যাডেট ও কর্মকর্তা অংশ নেন। ক্যাডেটদের সামরিক প্রশিক্ষণসহ মুক্তিযুদ্ধ, পরিবেশ সংরক্ষণ, প্রাথমিক চিকিৎসা, অগ্নিনির্বাপণ, ক্ষুদ্রাস্ত্র ফায়ারিং এবং আত্মোন্নয়নমূলক প্রশিক্ষণ খেলাধুলা ও সাংস্কৃতিক চর্চার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়।

 

          অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন সাবেক সংসদ সদস্য জোবেদা খাতুন পারুল, ময়নামতি রেজিমেন্টের রেজিমেন্ট কমান্ডার লে. কর্নেল সালাহউদ্দিন আল মুরাদ।

 

#

হাসান/মাহমুদ/মোশারফ/আব্বাস/২০২০/২০৪৫ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                       নম্বর : ২৯১   

 

মাতারবাড়ী হবে দ্বিতীয় সিঙ্গাপুর

        ---নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

 

বিরল (দিনাজপুর), ১০ মাঘ (২৪ জানুয়ারি) :   


          নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী  খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মিত হলে মহেশখালীর মাতারবাড়ী দ্বিতীয় সিঙ্গাপুর সিটি হিসেবে গড়ে উঠবে।  তিনি বলেন, আগামী ২০২৪ সালের মধ্যে গভীর সমুদ্র বন্দর নির্মাণের কাজ শেষ হবে। ২০৪১ সালের মধ্যে ছোট্ট এ দ্বীপে সিঙ্গাপুরের আদলে একটি শহর গড়ে উঠবে।

          প্রতিমন্ত্রী আজ দিনাজপুরের বিরলে আজিমপুর ইউনিয়নে শতভাগ বিদ্যুতায়নের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

          খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, নোয়াখালীর স্বর্ণদ্বীপেও সিঙ্গাপুরের আদলে আরেকটি শহর গড়ে উঠবে। ২০৪১ সালের মধ্যে সব বৈদ্যুতিক তার মাটির নিচ দিয়ে যাবে, সারা দেশের কোথাও মাথার ওপর কোনো বৈদ্যুতিক তার থাকবে না।

          দিনাজপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার  হরেন্দ্র নাথ বর্মণের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্য উপস্থিত ছিলেন বিরল উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পৌর মেয়র সবুজার সিদ্দিক সাগর, উপজেলা চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান বাবু ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রমাকান্ত রায়।

 

#

জাহাঙ্গীর/মাহমুদ/মোশারফ/আব্বাস/২০২০/২০৩২ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর: ২৯০

 

মুজিব শতবর্ষ নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ করবে

                               -- মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী

 

ঢাকা, ১০ মাঘ (২৪ জানুয়ারি) :

 

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে আজ বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন ইউএসএ, বাংলাদেশ কমিটি আয়োজিত অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল তেরো জন বিশিষ্ট গুণীজনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরসি মজুমদার আর্টস অডিটোরিয়ামে প্রধান অতিথি হিসেবে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা তাদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন।

 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা বলেন, জাতির পিতা আজীবন সংগ্রাম করেছেন বাঙালি জাতি যেন মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারে। বঙ্গবন্ধু যে সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন, আজ বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে কাজ করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ আজ পৃথিবীর সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জনকারী দেশ।

 

প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, সরকার জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ উদযাপনের জন্য বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। বছরব্যাপী বিভিন্ন আয়োজনের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর জীবনাদর্শ শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে যাবে। মুজিব শতবর্ষ উদযাপন নতুন  প্রজন্মকে জাতির পিতার আদর্শকে বুকে ধারণ  ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী দেশপ্রেমিক নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলবে।

 

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন ইউএসএর প্রেসিডেন্টের সভাপতিত্বে গুণীজন সম্মাননা অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য মনিরা সুলতানা, সংসদ সদস্য কাজী কানিজ সুলতানা ও মোহাম্মদ আলাউদ্দিন।

 

বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল অ্যাওয়ার্ড ২০২০ সম্মাননা প্রাপ্ত গুণীজনরা হলেন - আনোয়ার উল আলম (মুক্তিযুদ্ধ), ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক ও মোহাম্মদ আলাউদ্দিন (শিক্ষা), সেলিনা হোসেন (কথাসাহিত্য), রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা ও নবনীতা ভট্টাচার্য (আগরতলা, ভারত) (সংগীত), আনোয়ারা বেগম (চলচ্চিত্র), ফরিদা ইয়াসমিন (সাংবাদিকতা),  সাফিয়া খাতুন (রাজনীতি), সিরাজ উদ্দিন আহমেদ (ইতিহাস), ডা.  সৈয়দা সুরাইয়া আকবর (চিকিৎসা), কাজী আলমগীর (ব্যাংকার), রেহেনা পারভিন (ক্রীড়া), রাখী বিশ্বাস (ভারত) (আবৃত্তি) ও মুশতারি বেগম (সমাজসেবা)।

 

#

 

আলমগীর/মাহমুদ/মোশারফ/সেলিম/২০২০/১৯৩০ ঘন্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                নম্বর: ২৮৯

 

ব্লকচেইন বিষয়ে কোর্স চালু করতে সহায়তা দেওয়া হবে

                                                       -- অর্থমন্ত্রী

 

ঢাকা, ১০ মাঘ (২৪ জানুয়ারি) :

 

Ôবর্তমান বিশ্ব চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এ শিল্প বিপ্লবের প্রধান নিয়ামক হবে প্রযুক্তি। প্রযুক্তিনির্ভর এ বিপ্লবের সুযোগ নিতে সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতা প্রয়োজন। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে যেসব বিষয় প্রধান নিয়ামকের ভূমিকায় থাকবে, সেগুলোর মধ্যে রয়েছে ন্যানো টেকনোলোজি, রোবোটিক্স, ব্লকচেইন, এনার্জি স্টোরেজ ও কোয়ান্টাম কম্পিউটিংয়ের মতো বিষয়। এ শিল্প বিপ্লবের সুফল পেতে হলে তার জন্য উপযোগী জনবল কাঠামো গড়ে তুলতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়কে এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে হবে।’

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন্স সিস্টেমস (এআইএস) বিভাগের এলামনাই এসোসিয়েশনের ২৫ বছর ও এআইএসের ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে আজ অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল  এসব কথা বলেন।

 

অত্যাধুনিক আর্থিক প্রযুক্তি ব্লকচেইন বিষয়ে একাউন্টিং বিভাগ যদি কোনো কোর্স চালু করে, তাহলে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হবে বলে জানান অর্থমন্ত্রী। একই সঙ্গে এলামনাই এসিয়েশনের বৃত্তি তহবিলে নিজ উদ্যোগে অর্থ সহায়তার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

 

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী আ হ ম মুস্তফা কামালকে আজীবন সম্মাননা দেওয়া হয়।

 

#

 

গাজী তৌহিদুল/মাহমুদ/মোশারফ/সেলিম/২০২০/১৮৩০ ঘন্টা

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                       নম্বর : ২৮৮  

জিয়ার স্বাধীনতাবিরোধী রূপ উন্মোচিত হয়েছে

                     ---মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী

সিলেট, ১০ মাঘ (২৪ জানুয়ারি) :   

          মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেছেন, জিয়াউর রহমানের  মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী   ভূমিকায় তার স্বাধীনতাবিরোধী  আসল রূপ উন্মোচিত হয়েছে।   

 

          আজ সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে দক্ষিণ সুরমা ও বালাগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স উদ্ধোধন শেষে মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে  তিনি এ কথা বলেন।

 

          মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ প্রকল্প থেকে প্রায় ২ কোটি ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে দক্ষিণ সুরমা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ করা হয়। একই স্থান থেকে তিনি প্রায় ২ কোটি ৬১ টাকা ব্যয়ে নির্মিত বালাগঞ্জ মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সও উদ্বোধন করেন।

 

          মন্ত্রী বলেন, ‘জিয়াউর রহমান কখনোই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সঙ্গে থাকেননি। তিনি বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের বিভিন্ন দেশে বড় বড় পদে অধিষ্ঠিত করেছিলেন। একটা গরু চোর মারলেও তার হত্যার বিচার হয়। কিন্তু তিনি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার বিচার বন্ধে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করেছিলেন। জিয়া নিষিদ্ধ জামায়াতে ইসলামীকে রাজনীতি করার সুযোগ দেন। তিনি স্বাধীনতাবিরোধী শাহ আজিজ, আবদুল আলিম-সহ রাজাকারদের মন্ত্রী করেছিলেন। এতে বুঝতে হবে তিনি (জিয়া) কোন পক্ষে ছিলেন’।

 

          তিনি বলেন, ‘নতুন প্রজন্ম জানে না পাকিস্তানি হানাদাররা এ দেশের মানুষের ওপর কী নির্যাতন করেছিল। পাঠ্যপুস্তকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সম্পর্কে পুরোপুরি তথ্য নেই। তাই এতে শুধু মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বগাঁথা লিপিবদ্ধ নয়, পাকিস্তানি হানাদার ও তাদের দোসর রাজাকারদের কথাও লেখা হবে। তাহলে পরবর্তী প্রজন্ম বুঝতে পারবে কার কেমন ভূমিকা ছিল।’

 

          মন্ত্রী এ সময় বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কল্যাণে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরেন।

 

          সিলেট জেলা প্রশাসক এম কাজী এমদাদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে সিলেট-৩ আসনের   সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীসহ স্থানীয় প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

 

#

মারুফ/মাহমুদ/মোশারফ/আব্বাস/২০২০/১৮৪০ ঘণ্টা

Handout                                                                                                                  Number : 287

 

Foreign Minister meets Foreign Trade Vice Minister of Ecuador at Quito

 

Quito, 24 January:

 

            Foreign Minister Dr. A. K. Abdul Momen met the Vice Minister for Foreign Trade of Ecuador Diego Caicedo at Quito yesterday.

 

            During the meeting, both the Ministers discussed ways to further strengthen the existing bilateral relations. Foreign Minister briefed him about the history of Bangladesh under Bangabandhu and the recent developments in Bangladesh under the visionary leadership of Sheikh Hasina and mentioned the government’s current priority on economic diplomacy.

 

            Foreign Minister apprised the Vice Minister of Ecuador of the products and services from Bangladesh especially garments, pharmaceuticals and skilled and educated human resources which could be of use for Ecuador. They also discussed the prospect of extending bilateral trade relation through bilateral agreements and through membership in the regional trade organizations of common membership. Foreign Minister thanked Ecuador for their continued support for the Rohingya crisis and informed him of the verdict of the ICJ, which is a victory for global humanity.

 

            Foreign Minister is visiting Ecuador in connection with the conference of Global Forum on Migration and Development.

 

 

#

Tohidul/Mahmud/Mosharaf/Abbas/2020/1746 Hours

 

 

 

তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ২৮৬

 

রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলের আধুনিকায়নে জেবিআইসি এবং এক্সিম ব্যাংক অভ্ থাইল্যান্ডের অর্থায়ন

 

ব্যাংকক, ১০ মাঘ (২৪ জানুয়ারি):

 

          রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলগুলোর আধুনিকায়নের জন্য অর্থায়নের বিষয়ে সম্মত হয়েছে জাপান ব্যাংক ফর ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন (জেবিআইসি) এবং এক্সিম ব্যাংক অভ্ থাইল্যান্ড।  প্রতিষ্ঠান দু'টি রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলের আধুনিকায়ন, পণ্য বৈচিত্র্যকরণ এবং উন্নত জাতের আখ চাষে বাংলাদেশি চাষিদের প্রশিক্ষিত করতে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেবে।

 

          থাইল্যান্ড সফররত শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূনের সাথে বৈঠককালে গতকাল প্রতিষ্ঠান দু'টির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এ সম্মতির কথা জানান। এক্সিম ব্যাংক অভ্ থাইল্যান্ডের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

 

          বৈঠকে জাপান ব্যাংক ফর ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশনের মহাপরিচালক Naomi Tamaki, এক্সিম ব্যাংক অভ্ থাইল্যান্ডের প্রেসিডেন্ট Pisit Serewiwattana, জেবিআইসির পরিচালক Yoshio Okawa, এক্সিম ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট Kaniknun Ramingwong, বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্য শিল্প কর্পোরেশনের (বিএসএফআইসি) চেয়ারম্যান অজিত কুমার পাল এবং শিল্প মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব মোঃ জিয়াউর রহমান খান অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।

 

          বৈঠকে রাষ্ট্রায়ত্ত চিনিকলগুলোর আধুনিকায়ন, সম্প্রসারণ ও পণ্য বৈচিত্র্যকরণের বিষয়ে চিনি শিল্পখাতে থাইল্যান্ডের খ্যাতনামা প্রতিষ্ঠান সুটেক ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি লিমিটেডের কারিগরি প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা হয়। জেবিআইসি এবং এক্সিম ব্যাংক অভ্ থাইল্যান্ডের কর্মকর্তারা এ কারিগরি প্রস্তাবে সন্তোষ প্রকাশ করেন এবং বাংলাদেশে চিনি শিল্পের উন্নয়নে বিনিয়োগের বিষয়ে সম্মতি জানান।

 

          এ সময় শিল্পমন্ত্রী ব্যাংক দু’টির কর্মকর্তাদের বিনিয়োগের বিষয়ে একটি সমন্বিত প্রস্তাব পেশের পরামর্শ দেন। সমন্বিত প্রস্তাব পাওয়ার পর বাংলাদেশ সরকার এ বিষয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বলে তিনি উল্লেখ করেন। কৃষিভিত্তিক ভারী শিল্প হিসেবে চিনি শিল্পের উন্নয়নে বর্তমান সরকার অগ্রাধিকার দিচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ শিল্প খাতে বিনিয়োগে এগিয়ে আসলে সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা প্রদান করা হবে।

 

#

জলিল/মাহমুদ/মোশারফ/আব্বাস/২০২০/১৭৪৪ ঘণ্টা

2020-01-24-23-01-7315667467eec87277fe886838ccc61d.docx 2020-01-24-23-01-7315667467eec87277fe886838ccc61d.docx

Share with :

Facebook Facebook