তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১১ জানুয়ারি ২০১৮

তথ্যবিবরণী ১০ জানুয়ারি ২০১৮

তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ১১৪
 
ব্লকচেইন ডাটা দেশের জন্য গৌরবের
                           -- ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :
ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলছেন, ব্লকচেইন ডাটা নিয়ে কাজ করা বাংলাদেশের জন্য গৌরবের বিষয়। বাংলাদেশ ব্লকচেইন নিয়ে কাজ করতে পারে এটা এক সময় কল্পনাই করা যেত না। তাই এটি নিয়ে কাজ করা বাংলাদেশের জন্য অন্যতম এক অর্জন।
মন্ত্রী আজ কাওরান বাজারের বেসিস মিলনায়তনে, বৈশ্বিক অর্থায়ন ব্যবস্থায় ‘ব্লকচেইন-বাংলাদেশের করণীয়’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে এসব কথা বলেন। দেশের শীর্ষ আইটি প্রতিষ্ঠান ইজেনারেশন লিমিটেড এ গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে। 
মন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তির প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আগ্রহ অত্যন্ত লক্ষণীয়। ইউনিয়ন পরিষদের ডিজিটাল সেন্টারে যারা কাজ করছে তারা ইচ্ছাশক্তি ও প্রযুক্তি ব্যবহার করেই এগিয়েছে। তিনি বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে একটি সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন হয়েছে। তিনি আরো বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত তথ্যপ্রযুক্তিকে সাধারণ জনগণের কাছে পৌঁছাতে না পারি, জনগণ যদি সেই প্রযুক্তিকে ব্যবহার করতে না পারে, তাহলে এ সম্ভাবনা কোন কাজে আসবে না। 
গোলটেবিল বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার, ইজেনারেশনের চেয়ারম্যান শামীম আহসানসহ আইটি বিশেষজ্ঞগন বক্তৃতা করেন।
#
 
এনায়েত/ফারহানা/আলী/জয়নুল/২০১৮/২০৩০ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ১১৩
 
মিয়ানমার নাগরিকদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত
 
উখিয়া (কক্সবাজার), ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) ঃ 
কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের জন্য মানবিক সহায়তার অংশ হিসেবে বেসরকারি উৎস হতে প্রাপ্ত ত্রাণ সরকারি উদ্যোগে বিতরণ অব্যাহত রয়েছে। 
      উখিয়ায় স্থাপিত নিয়ন্ত্রণকক্ষে আজ ১৮ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান ৩৭ ট্রাকের মাধ্যমে ১ শত ৪৯ মেট্রিক টন ত্রাণ জমা দিয়েছে। প্রাপ্ত এসব ত্রাণসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে ১০ হাজার ১ শত ৮০ প্যাকেট শুকনো খাবার, ৪ হাজার ৩ শত প্যাকেট শিশুখাদ্য, ৩ হাজার ৫ শত ৪০ পিস গৃহস্থালিসামগ্রী ও ৪ হাজার ২ শত  পিস কম্বল। এসব ত্রাণ আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।  
কক্সবাজার জেলা ত্রাণ অফিস সূত্রে জানা গেছে, আজ পর্যন্ত কক্সবাজার ৪টি খাদ্যগুদামে প্রাপ্তি ও প্রদানের পর ২ হাজার ৮ শত ৪২ মেট্রিক টন চাল, ৬৯ মেট্রিক টন ডাল, ৮৭ হাজার ৯ শত ৬৯ লিটার তেল, ৪৬ মেট্রিক টন লবণ, ৫৫ মেট্রিক টন চিনি, ২ হাজার ২ শত ৮ কেজি আটা, ৫৭ হাজার ৩ কেজি গুঁড়ো দুধ, ৭ হাজার ২ শত পিস ও ৪৯ বান্ডেল কম্বল, ৫১১ টি তাঁবু ও ত্রিপল মজুদ রয়েছে।   
জেলা প্রশাসক, কক্সবাজার এবং ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা কর্তৃক যৌথভাবে পরিচালিত ‘অবৈধভাবে অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমার নাগরিকদের মানবিক সহায়তা’ নামক সোনালী ব্যাংক, কক্সবাজার শাখার চলতি হিসাব নং ৩৩০২৪৬২৫ এ আজ পর্যন্ত ৪ কোটি ৯৮ লাখ ১১ হাজার ৩ শত ৯ টাকা জমা রয়েছে।
#
সাইফুল/ফারহানা/আলী/জয়নুল/২০১৮/২০১৫ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ১১২
 
কেন্দ্রভিত্তিক মিয়ানমার নাগরিকদের অবস্থান
 
উখিয়া (কক্সবাজার), ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) : 
কক্সবাজারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) রিপোর্ট মোতাবেক আজ পর্যন্ত বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমার নাগরিক সংখ্যা ৬ লাখ ৭৩ হাজার ১ শত ৫০ জন। অনুপ্রবেশ অব্যাহত থাকায় এ সংখ্যা বাড়ছে। ২৫ আগস্ট, ২০১৭ এর পূর্বে আগত মিয়ানমার নাগরিকের সংখ্যা ২ লাখ ৪ হাজার ৬০ জন। 
উখিয়ার কুতুপালং অস্থায়ী কেন্দ্রের ১৫টি জোনে আশ্রয় নেয়া মিয়ানমার নাগরিকের সংখ্যা ২ লাখ ৫৩ হাজার ৫ শত ৭০ জন, বালুখালীর ১৩টি জোনে ১ লাখ ৫২ হাজার ৫ শত ৯৫ জন, ময়নার ঘোনার ৭টি জোনে ১ লাখ ২৬ হাজার ৭ শত ৪৫ জন, উখিয়ার অন্যান্য স্থানের ২টি জোনে ৩৮ হাজার ১ শত ৮১ জন, টেকনাফ উপজেলার ৬টি জোনে ৮৬ হাজার ১ শত ৬২ জন, বান্দবরান পার্বত্য জেলার ৪টি অস্থায়ী কেন্দ্রে ১৫ হাজার ৮ শত ৯৫ জন। 
সমাজসেবা অধিদপ্তর কর্তৃক আজ পর্যন্ত ৩৬ হাজার ৩ শত ৭৩ জন এতিম শিশু শনাক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১৭ হাজার ৩ শত ৯৫ জন ছেলে এবং ১৮ হাজার ৯ শত ৭৮ জন মেয়ে। বাবা-মা কেউ নেই এমন এতিম শিশুর সংখ্যা ৭ হাজার ৭ শত ৭১ জন। মিয়ানমার নাগরিকদের মধ্যে গর্ভবতী নারীর সংখ্যা প্রায় ৩০ হাজার। এদের মধ্যে ৭ হাজার ৫ শত জনকে নিবন্ধনের আওতায় আনা হয়েছে। প্রসূতিসেবায় এ পর্যন্ত ১ হাজার ৪ শত ৪ জন শিশু জন্মগ্রহণ করেছে। 
আশ্রয়নেয়া রোহিঙ্গাদের নির্ধারিত এলাকার বাইরে ছড়িয়ে পড়া নিয়ন্ত্রণে রামু, টেকনাফ, উখিয়া ও সদর উপজেলার ১১টি স্থানে পুলিশ চেকপোস্টের মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে। এ পর্যন্ত কক্সবাজার থেকে উদ্ধারকৃত ৪০ হাজার ৭২ জন এবং অন্যান্য জেলা হতে উদ্ধারকৃত ৭ শত ১২ জনকে ক্যাম্পে ফেরত পাঠানো হয়েছে।
#
 
সাইফুল/ফারহানা/আলী/জয়নুল/২০১৮/২০১০ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ১১১
 
 মিয়ানমার নাগরিকদের সরকারি ব্যবস্থাপনায় বায়োমেট্রিক নিবন্ধন চলছে
 
উখিয়া (কক্সবাজার), ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) : 
কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের ১২টি অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নেওয়া মিয়ানমার নাগরিকদের সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৬টি ক্যাম্পের মাধ্যমে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন কাজ এগিয়ে চলছে। পাসপোর্ট অধিদপ্তর নিবন্ধন কাজ বাস্তবায়ন করছে। 
আজ কুতুপালং -১ ক্যা¤েপ ৮ শত ২০ জন পুরুষ, ৬ শত ২৫ জন নারী মিলে ১ হাজার ৪ শত ৪৫ জন, কুতুপালং-২ ক্যাম্পে ৮ শত ৪৩ জন পুরুষ, ১ হাজার ৩ শত ৯২ জন নারী মিলে ২ হাজার ২ শত ৩৫ জন, নোয়াপাড়া ক্যাম্পে ২ শত ১২ জন পুরুষ, ২ শত ৫০ জন নারী মিলে ৪ শত ৬২ জন, থাইংখালী-১ ক্যাম্পে ৯১ জন পুরুষ, ৮০ জন নারী মিলে ১ শত ৭১ জন, থাইংখালী-২ ক্যাম্পে ৭৫ জন পুরুষ, ৭৫ জন নারী মিলে ১ শত ৫০ জন, বালুখালী ক্যাম্পে ১ হাজার ২৪ জন পুরুষ, ১ হাজার ১ শত ৫১ জন নারী মিলে ২ হাজার ১ শত ৭৫ জন এবং পুরোদিনে ৬টি কেন্দ্রে মোট ৬ হাজার ৬ শত ৩৮ জনের জনের বায়োমেট্রিক নিবন্ধন করা হয়েছে। 
আজ পর্যন্ত বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মোট ৯ লাখ ৭১ হাজার ৬ শত ২৭ জনের নিবন্ধন করা হয়েছে। 
সমাজসেবা অধিদপ্তর কর্তৃক আজ পর্যন্ত ৩৬ হাজার ৩ শত ৭৩ জন এতিম শিশু শনাক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে ১৭ হাজার ৩ শত ৯৫ জন ছেলে এবং ১৮ হাজার ৯ শত ৭৮ জন মেয়ে। বাবা-মা কেউ নেই এমন এতিম শিশুর সংখ্যা ৭ হাজার ৭ শত ৭১ জন। 
উল্লেখ্য, কক্সবাজারের শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনের (আরআরআরসি) রিপোর্ট মোতাবেক আজ পর্যন্ত বাংলাদেশে অনুপ্রবেশকারী মিয়ানমার নাগরিক সংখ্যা ৬ লাখ ৭৩ হাজার ১ শত ৫০ জন । অনুপ্রবেশ অব্যাহত থাকায় এ সংখ্যা বাড়ছে। ২৫ আগস্ট, ২০১৭ এর পূর্বে আগত মিয়ানমার নাগরিকের সংখ্যা ২ লাখ ৪ হাজার ৬০ জন।
#
 
সাইফুল/ফারহানা/আলী/জয়নুল/২০১৮/২০০০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                        নম্বর : ১১০
বিশ্ব ইজতেমা (১ম পর্যায়) উপলক্ষে রেলওয়ের বিশেষ ট্রেন
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :
টঙ্গীতে অনুষ্ঠিতব্য আসন্ন বিশ্ব ইজতেমায় অংশগ্রহণকারী মুসল্লি¬গণের ভ্রমণের সুবিধার্থে বাংলাদেশ রেলওয়ে আগামী ১২ থেকে ১৪ জানুয়ারি, ২০১৮ পর্যন্ত বিভিন্ন গন্তব্যে  বেশ কিছু বিশেষ ট্রেন চলাচলের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।
১২ ও ১৩ জানুয়ারি ২০১৮ জামালপুর-টঙ্গী বিশেষ ট্রেন সকাল ৯.১৫ মিনিটে জামালপুর থেকে ছেড়ে দুপুর ২.১৫ মিনিটে টঙ্গীতে পৌঁছবে। ১৩ জানুয়ারি লাকসাম-টঙ্গী বিশেষ ট্রেন লাকসাম থেকে সকাল ১০টায় ছেড়ে টঙ্গীতে বিকেল ৩টা ৪০ মিনিটে পৌঁছাবে ১২ জানুয়ারি ঢাকা থেকে বিশেষ ট্রেনটি সকাল ১০টা ২০ মিনিটে ছেড়ে টঙ্গীতে সকাল ১১টা ২০ মিনিটে পৌঁছাবে। এবং ট্রেনটি টঙ্গী  থেকে দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে ছেড়ে বিকেল ৩টা ৫০ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছাবে।
১৪ জানুয়ারি রবিবার আখেরি মোনাজাতের দিন ভোর ৫.২৫ মিনিটে মোনাজাত বিশেষ ট্রেন-১ ঢাকা থেকে ছেড়ে সকাল ৬টা ১৫ মিনিটে টঙ্গী পৌঁছাবে। মোনাজাত বিশেষ ট্রেন-২ সকাল ৭টা ১৫ মিনিটে ঢাকা থেকে ছেড়ে সকাল ৮টা ১০ মিনিটে টঙ্গী পৌঁছাবে। মোনাজাত বিশেষ ট্রেন-৩ ঢাকা থেকে সকাল ৭টা ৩০ মিনিটে ছেড়ে সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে টঙ্গী পৌঁছাবে। মোনাজাত বিশেষ ট্রেন-৪ ঢাকা থেকে সকাল ৯টায় ছেড়ে সকাল ১০টায় টঙ্গী পৌঁছাবে। মোনাজাত বিশেষ ট্রেন-৫ ঢাকা থেকে সকাল ৯টায় ছেড়ে সকাল ১০টায় টঙ্গী পৌঁছাবে। মোনাজাত বিশেষ ট্রেন-৬ ঢাকা থেকে সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে ছেড়ে সকাল ১১টা ৪০ মিনিটে টঙ্গী পৌঁছাবে। মোনাজাত বিশেষ ট্রেন-৭ ঢাকা থেকে সকাল ১০টা ৫০ মিনিটে ছেড়ে সকাল ১১টা ৪০ মিনিটে টঙ্গী পৌঁছাবে। টঙ্গী-আখাউড়া-লাকসাম বিশেষ ট্রেন টঙ্গী থেকে দুপুর ১২টা ৫০ মিনিটে ছেড়ে বিকাল ৫টা ৫০ মিনিটে লাকসাম পৌঁছাবে। টঙ্গী-আখাউড়া বিশেষ -১ টঙ্গী থেকে দুপুর ২টা ৫৫ মিনিটে ছেড়ে সন্ধ্যা ৬টা ১৫ মিনিটে আখাউড়া পৌঁছাবে। টঙ্গী-ময়মনসিংহ-১ টঙ্গী থেকে দুপুর ১২টা ২০ মিনিটে ছেড়ে বিকাল ৩টা ৩০ মিনিটে ময়মনসিংহ পৌঁছাবে। টঙ্গী-ময়মনসিংহ-২ টঙ্গী থেকে দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে ছেড়ে বিকাল ৩টা ৫৫ মিনিটে ময়মনসিংহ পৌঁছাবে। টঙ্গী-ময়মনসিংহ-৩ টঙ্গী থেকে দুপুর ২টা ১০ মিনিটে ছেড়ে বিকাল ৪টা ৫৫ মিনিটে ময়মনসিংহ পৌঁছাবে। টঙ্গী-ময়মনসিংহ-৪ টঙ্গী থেকে রাত ১০টা ৩০ মিনিটে ছেড়ে রাত ১টায় ময়মনসিংহ পৌঁছাবে। টঙ্গী-ঢাকা বিশেষ ট্রেন ১ ও ২ টঙ্গী থেকে দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটে ছেড়ে দুপুর ১টা ৩৫ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছাবে। টঙ্গী-ঢাকা বিশেষ ট্রেন ৩ টঙ্গী থেকে দুপুর ১টা ১০ মিনিটে ছেড়ে দুপুর ২টা ০৫ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছাবে। টঙ্গী-ঢাকা বিশেষ ট্রেন ৪ টঙ্গী থেকে দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে ছেড়ে দুপুর ৩টা ১০ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছাবে। টঙ্গী-ঢাকা স্পেশাল ট্রেন ৫ টঙ্গী থেকে সন্ধ্যা ৬টা ৫৫ মিনিটে ছেড়ে রাত ৭টা ৫৫ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছাবে। টঙ্গী-ঢাকা স্পেশাল ট্রেন ৬ টঙ্গী থেকে রাত ৭টা ২০ মিনিটে ছেড়ে রাত ৮টা ২০ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছাবে। টঙ্গী-ঢাকা স্পেশাল ট্রেন ৭ টঙ্গী থেকে রাত ৯টা ৩০ মিনিটে ছেড়ে রাত ১০টা ২০ মিনিটে ঢাকায় পৌঁছাবে।
       বিশ্ব এজতেমায় আগত মুসল্লিদের সুবিধার্থে ৯ জানুয়ারি দুপুরের পর  থেকে ১৪ জানুয়ারি আখেরী মোনাজাতের পূর্ব পর্যন্ত ঢাকা অভিমুখী সকল ট্রেন টঙ্গী স্টেশনে ২ মিনিট বিরতি থাকবে। 
         আগামী ১৪ জানুয়ারি রবিবার সুবর্ণ এক্সপ্রেস, মহুয়া এক্সপ্রেস ও তুরাগ-১, ২, ৩ ও ৪ ঢাকা-কুমিল্লা, ঢাকা-টঙ্গী, ঢাকা-জয়দেবপুর ও ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের মধ্যে ডেমু (কমিউটার) ট্রেন  চলাচল করবে না। ১২, ১৩, ও ১৪ জানুয়ারি  ২৫১/২৫২ (লোকাল ট্রেন) এবং ১৩ ও ১৪ জানুয়ারি কুশিয়ারা এক্সপ্রেস ট্রেনসমূহ বন্ধ থাকবে। ১৪ জানুয়ারি মহানগর এক্সপ্রেস ট্রেন সাপ্তাহিক বন্ধের দিনও চলাচল করবে।
       আখেরী মোনাজাতের পরের দিন টিকেটধারী মুসল্লিগণের টঙ্গী  স্টেশন থেকে ট্রেনে আরোহণের সুবিধার্থে ধুমকেতু, রংপুর এক্সপ্রেস, কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস, কালানী, যমুনা, সিরাজগঞ্জ, মহানগর এক্সপ্রেস,  সুন্দরবন, পারাবত,  হাওর, উপকূল, তিস্তা, নীলসাগর, এগারসি›ধুর প্রভাতী, অগ্নিবীনা, একতা, জয়ন্তিকা, মহানগর প্রভাতী ও  সিল্কসিটি এক্সপ্রেস টঙ্গী স্টেশনে ২ মিনিট করে থামবে। যাত্রীদের টিকেট সংগ্রহের মাধ্যমে ট্রেনে ভ্রমণ করতে হবে। 
#
শরিফুল/ফারহানা/আলী/সেলিমুজ্জামান/২০১৭/১৯৩০ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ১০৯
 
বাংলাদেশ এখন বিদেশীদের জন্য নিরাপদ
                   --- সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, বাংলাদেশ এখন অতীতের যেকোন সময়ের তুলনায় বিদেশীদের জন্য নিরাপদ স্থান। হলি আর্টিজানের দুঃখজনক ঘটনার পর থেকে বাংলাদেশ ইতোমধ্যে আইপিইউ, সিপিইউ ও ঢাকা লিট ফেস্টসহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সম্মেলন সফলভাবে সম্পন্ন করেছে। খুব শীঘ্রই ঢাকায় বিমসটেকভুক্ত দেশসমূহের সংস্কৃতি মন্ত্রীদের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।
মন্ত্রী আজ সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে বাংলাদেশে নবনিযুক্ত জাপানী রাষ্ট্রদূত হিরোইয়াসু ইজুমি (ঐরৎড়ুধংঁ ওুঁসর) এর সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎকালে এসব কথা বলেন।
সাক্ষাতে দুই দেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, সাংস্কৃতিক বিনিময় সফর ও চলচ্চিত্র উৎসব অনুষ্ঠান বৃদ্ধি প্রভৃতি বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।
জাপানী রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের বৌদ্ধ সভ্যতার নিদর্শনসমূহ সংরক্ষণে গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, জাপানের ওসাকার নারুতো সিটির আদলে নারায়ণগঞ্জকে ঢাকার সিস্টার সিটি হিসেবে গড়ে তুলতে প্রয়োজনীয় আর্থিক সহযোগিতা দেবে জাপান।
নবনিযুক্ত রাষ্ট্রদূত সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রীকে জাপান সফরের আমন্ত্রণ জানান। এসময় মন্ত্রী জাপানকে বাংলাদেশের আর্থসামাজিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে আরো বিনিয়োগের আহ্বান জানান।
এসময় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রোকসানা মালেক এনডিসি, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রীর একান্ত সচিব সরদার মোঃ কেরামত আলী এবং জাপান দূতাবাসের দ্বিতীয় সচিব মাচিকো ইয়ামামুরা (গধপযরশড় ণধসধসঁৎধ) উপস্থিত ছিলেন।
#
 
ফয়সল/ফারহানা/আলী/জয়নুল/২০১৮/১৯২০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ১০৮
 
রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে 
সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের পাশে থাকবে সরকার
                                    --- তথ্যমন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :
তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, রাজাকারমুক্ত বাংলাদেশ গড়তে সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামকে সহযোগিতা করবে সরকার।  
আজ সচিবালয়ে তথ্যমন্ত্রী তাঁর নিজ দপ্তরে সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠকে এ প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। 
রাজাকার,যুদ্ধাপরাধী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বিচারের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘রাজাকাররা দেশ, গণতন্ত্র ও সমাজের শত্রু। বাংলাদেশকে অস্থিতিশীল করতে তাদের চক্রান্ত এখনো অব্যাহত রয়েছে। রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে তাদের এ অপতৎপরতা নির্মূল করা মুক্তিযোদ্ধাদের নৈতিক দায়িত্ব। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করে এই ফোরাম।’ 
তথ্যমন্ত্রী তাদের সাথে একমত পোষণ করেন ও ফোরামের সাথে সরকারের একাত্মতা জানান। 
সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব:) কে এম শফিউল্লাহ, বীর-উত্তম, মহাসচিব হারুন হাবীব, ভাইস চেয়ারম্যান লেঃ কর্নেল (অবঃ) আবু ওসমান চৌধুরী, ম হামিদ, নূরুল আলম, স্থপতি মোবাশে^র হোসেন, সহকারী মহাসচিব আবুল কালাম আজাদ পাটোয়ারি এবং ফোরামের কেন্দ্রীয় নারী পরিষদের প্রেসিডেন্ট লায়লা হাসান বৈঠকে অংশ নেন।
#
 
আকরাম/ফারহানা/আলী/জয়নুল/২০১৮/১৮৩০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                        নম্বর : ১০৭
 
২০১৬  সালের তুলনায় ২০১৭ সালে প্রায় ৩৩ শতাংশ 
বেশি কর্মী কর্মসংস্থান নিয়ে বিদেশে গমন করেছে
                             -- প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী
 
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :  
২০১৭ সালে বাংলাদেশ হতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মোট ১০ লাখ ৮ হাজার ৫২৫ জন কর্মীর বিদেশে কর্মসংস্থান হয়েছে। যা ২০১৬ সালের তুলনায় ৩৩ শতাংশ বেশি। ২০১৮ সালে ১২ লাখ কর্মী বিদেশে প্রেরণ করার পরিকল্পনা রয়েছে। প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী নুরুল ইসলাম বিএসসি আজ প্রবাসী কল্যাণ ভবনে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাফল্যগাঁথা-২০১৭ উপলক্ষে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এসব কথা বলেন। 
মন্ত্রী জানান, বর্তমানে ৬টি ইনস্টিটিউট অভ্ মেরিন টেকনোলজি ও ৬৪টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রসহ মোট ৭০টি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। 
নুরুল ইসলাম আরো বলেন,   ক্রমান্বয়ে অদক্ষ কর্মী প্রেরণ কমিয়ে আধাদক্ষ ও দক্ষকর্মী প্রেরণ বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতিটি উপজেলায় ১টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র স্থাপনের ১ম পর্যায়ে ৪০টি উপজেলায় ৪০টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজ ইতোমধ্যে শুরু করা হয়েছে। ২য় পর্যায়ে আরো ৫০টি উপজেলায় ৫০টি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র নির্মাণের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। এ প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে বিএমইটি’র প্রশিক্ষণ সক্ষমতা বর্তমানের দেড় লাখ থেকে বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় পাঁচ লাখে উন্নীত হবে।
মন্ত্রী বলেন, বিদেশ গমনেচ্ছুক কর্মীদের সেবা সহজীকরণ ও বিকেন্দ্রীকরণের অংশ হিসেবে বর্তমানে ২৯টি জেলার জেলা কর্মসংস্থান ও জনশক্তি অফিসে বিদেশ গমনেচ্ছু কর্মীদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট কার্যক্রম বিকেন্দ্রীকরণ করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে তা আরো সম্প্রসারিত হবে। এ পর্যন্ত ২ হাজার ৩৪৩  জন প্রবাসী কর্মীর মেধাবী সন্তানকে ৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। বিদেশগামী এ প্রবাসী কর্মী  ও তাদের পরিবারের সদস্যদের কল্যাণার্থে ও  সমস্যা সমাধানে ১৭ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে ডিজিটাল হেল্পডেস্ক (হটলাইন +৮৮ ০১৭৮৪ ৩৩৩ ৩৩৩, +৮৮ ০১৭৯৪ ৩৩৩ ৩৩৩ ও +৮৮ ০২-৯৩৩৪৮৮৮) চালু করা হয়েছে।
প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ২০১৮ সালের কর্মপরিকল্পনা সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, ২০১৮ সালে ১২ লাখ কর্মী প্রেরণের পরিকল্পনা রয়েছে। তবে বর্তমান ধারা অব্যাহত রাখাসহ আরো দক্ষ ও প্রশিক্ষিত কর্মী প্রেরণের ওপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন। এছাড়া বিদেশ ফেরত কর্মীদের ইউনিয়ন ভিত্তিক ডাটাবেজ প্রণয়নের পরিকল্পনা রয়েছে।
এ সময় প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. নমিতা হালদার, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ আমিনুল ইসলামসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ এবং প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
#
জাহাঙ্গীর/ফারহানা/আলী/সেলিমুজ্জামান/২০১৮/১৭৪০ ঘণ্টা
 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ১০৬
 
আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠক 
 
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :
দশম জাতীয় সংসদের আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৪০তম বৈঠক আজ কমিটির সভাপতি আবদুল মতিন খসরু এমপি এর সভাপতিত্বে জাতীয় সংসদভবনে অনুষ্ঠিত হয়। 
কমিটির সদস্য মোঃ আব্দুল মজিদ খান, এডভোকেট মোঃ জিয়াউল হক মৃধা এবং আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী এমপি বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। 
 কমিটি ‘ওয়ান স্টপ সার্ভিস বিল, ২০১৭’ এর ওপর আলোচনার আলোকে বিলটিতে প্রয়োজনীয় সংশোধন, সংযোজন, ড্রাফটিংগত ও অন্যান্য ত্রুটি দূর করার সুপারিশ করে।
বৈঠকে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব মোঃ নজিবুর রহমান, আইন ও বিচার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোঃ মোস্তাফিজুর রহমানসহ আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
#
 
আবছার/ফারহানা/আলী/জয়নুল/২০১৮/১৮১০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ১০৫
 
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ  
প্রতিমন্ত্রীর সাথে ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
 
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :
 
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদের সাথে বাংলাদেশে নিযুক্ত ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূত রিনা পি. সোইমারনু (জরহধ চ. ঝঁবসধৎহড়) আজ সচিবালয়ে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন। এসময় তারা পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। 
রাষ্ট্রদূত এসময় ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রপতির আসন্ন বাংলাদেশ সফরে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সহযোগিতা কিভাবে আরো বৃদ্ধি করা যায় তা নিয়ে আলোচনা করেন। এলএনজি ক্রয়চুক্তি অনেকটাই এগিয়ে। এসময় এলএনজি হতে বিদ্যুৎ বা ডিজেল হতে বিদ্যুৎ উৎপাদনের কাজের অগ্রগতি নিয়ে পর্যালোচনা করা হয়। এছাড়া সমসাময়িক অন্যান্য বিষয়ও আলোচনায় স্থান পায়।
প্রতিমন্ত্রী ইন্দোনেশিয়ার রাষ্ট্রদূতকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ভ্রাতৃপ্রতিম এই মুসলিম দেশটির সাথে কয়লা, এলএনজি ও সংশ্লিষ্ট ব্যবসা বাড়ানোর উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে। বৈঠকে কয়লা আমদানির বিষয় বিশদভাবে আলোচনা প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করা হয়। প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকারি ব্যবস্থাপনার অর্থাৎ জি-টু-জি ব্যবসাবাণিজ্যকে আমরা উৎসাহিত করি। 
বিদ্যুৎ সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এসময় উপস্থিত ছিলেন। 
#
 
আসলাম/ফারহানা/আলী/জয়নুল/২০১৮/১৮০০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ১০৪
শিক্ষার্থীদের নৈতিক মূল্যবোধসম্পন্ন আদর্শ মানুষ হিসেবে তৈরি করতে হবে 
                                                                   -- শিক্ষামন্ত্রী
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :  
শিক্ষার গুণগতমান বৃদ্ধি করা বর্তমান সরকারের অন্যতম লক্ষ্য এবং আদর্শ জাতি গঠনে নৈতিক শিক্ষা খুবই জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের নৈতিক মূল্যবোধসম্পন্ন ও সমাজের প্রতি দায়বদ্ধ আদর্শ মানুষ হিসেবে তৈরি করতে হবে।
মন্ত্রী আজ ঢাকার আশুলিয়ায় ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (ডিআইইউ) এর ৭ম সমাবর্তনে ইউনিভার্সিটির চ্যান্সেলর রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদের প্রতিনিধি হিসেবে সভাপতিত্বকালে একথা বলেন। 
শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে মন্ত্রী বলেন,  বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্জিত জ্ঞান কাজে লাগিয়ে গবেষণার মাধ্যমে নতুন তথ্যপ্রযুক্তি উদ্ভাবন করতে হবে, যা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে সহায়তা করবে। বক্তব্যের শুরুতেই শিক্ষামন্ত্রী ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের কথা স্মরণ করেন এবং তাঁর লক্ষ্য বাস্তবায়নের প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যে সকল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় নির্ধারিত শর্ত পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এসময় তিনি সংশ্লিষ্ট সবাইকে মুনাফার চিন্তা ত্যাগ করে জনকল্যাণ, সেবার মনোভাব ও শিক্ষার জন্য অবদান রাখার দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।
মন্ত্রী আরো বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সাথে ডিআইইউ চুক্তির মাধ্যমে শিক্ষক ও ছাত্রছাত্রীরা এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রামে যেতে পারছেন। শিক্ষার মানোন্নয়নের ক্ষেত্রে এরকম পদক্ষেপ সত্যিই আশাব্যঞ্জক। এসময় তিনি বাংলাদেশ এগ্রো-প্রসেসর এসোসিয়েশনের সাথে এমওইউ স্বাক্ষর করায় ড্যাফোডিল কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। 
সমাবর্তনে আরো বক্তব্য রাখেন  বিশ^বিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান, ডিআইইউ ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. ইউসুফ মাহবুবুল ইসলাম এবং ইউনিভার্সিটির ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান মো. সবুর খান। সমাবর্তন বক্তা ছিলেন ইন্টারন্যাশনাল এসোসিয়েশন অভ্ ইউনিভার্সিটি প্রেসিডেন্টস-এর সভাপতি এবং জর্জিয়ার ককেসাস ইউনিভার্সিটির প্রেসিডেন্ট ড. কাখা শিঙ্গেলিয়া (উৎ. কধশযধ ঝযবহমবষরধ)।
সমাবর্তনে ৩ হাজার ৪৯৮ জন নবীন গ্র্যাজুয়েট সনদ লাভ করেন। সমাবর্তনে পাঁচজন কৃতী গ্র্যাজুয়েটকে চ্যান্সেলর স্বর্ণপদক প্রদান করেন শিক্ষামন্ত্রী। এছাড়াও অনুষ্ঠানে কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জনকারী ১৫ জন গ্র্যাজুয়েটকে স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের শুরুতে মন্ত্রী সমাবর্তন শোভাযাত্রার নেতৃত্ব দেন। 
#
আফরাজ/ফারহানা/আলী/সেলিমুজ্জামান/২০১৮/১৭২০ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ১০৩
 
এভিয়েশন সেক্টরে সহযোগিতা করতে চায় কানাডা
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :
 
 
ঈবৎঃরভরপধঃরড়হ ড়ভ অরৎ ঈৎধভঃ, আরধঃরড়হ ংধভবঃু ্ ংবপঁৎরঃু এর ক্ষেত্রে সহযোগিতা করতে আগ্রহী কানাডা। এছাড়াও বাংলাদেশের আবহাওয়া উপযোগী এয়ারক্রাফট (যা জলপথে চলতে সক্ষম) সরবরাহে আগ্রহ প্রকাশ করেছে কানাডা।
আজ সচিবালয়ে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী এ, কে, এম শাহজাহান কামালের সাথে বাংলাদেশে কানাডিয়ান হাইকমিশনার বেনওয়া প্রেফন্টেল (ইবহড়রঃ চৎবদভড়হঃধরহব) সাক্ষাৎ করে এ প্রস্তাব দেন। এসময় মন্ত্রী হাইকমিশনারকে এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দিতে বলেন। 
এছাড়াও সাক্ষাৎকালে সম্প্রতি অর্থনৈতিক ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটিতে অনুমোদিত জি টু জি ভিত্তিতে কানাডার বিমান নির্মাতা প্রতিষ্ঠান বোম্বারডিয়ার থেকে বাংলাদেশ বিমানের জন্য তিনটি ড্যাশ-৮ সরবরাহের ব্যাপারে আলোচনা হয়। 
এসময় বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোঃ ইমরান ও এএইচএম জিয়াউল হক উপস্থিত ছিলেন। 
#
 
তুহিন/ফারহানা/আলী/জয়নুল/২০১৮/১৭৩০ঘণ্টা 
 
তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ১০২
দ্বিতীয় পর্যায় খানা তথ্যভা-ার শুমারির তথ্য সংগ্রহের কাজ শুরু ১৪ জানুয়ারি
 
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :
 
আগামী ১৪ জানুয়ারি হতে শুরু হচ্ছে ন্যাশনাল হাউজ হোল্ড ডাটাবেজ (এনএইচডি) প্রকল্পের তথ্যভা-ার শুমারির দ্বিতীয়পর্যায়ের  তথ্য সংগ্রহের কাজ। এটি চলবে ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এ পর্যায়ে ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের সকল জেলা এবং ময়মনসিংহ বিভাগের নেত্রকোনা জেলাসহ মোট ২৫টি জেলায় ১ কোটি ৬০ লাখ পরিবারের  তথ্য সংগ্রহ করা হবে। এভাবে তিনপর্যায়ে সারাদেশ থেকে প্রায় ৩ কোটি ৬০ লাখ খানা থেকে সাক্ষাৎকারের জন্য সরাসরি তথ্য সংগ্রহ করা হবে। 
আজ রাজধানীর এনইসি সম্মেলন কক্ষে এ সংক্রান্ত তথ্য সংগ্রহ কার্যক্রমে সকলের অংশগ্রহণ ও সহযোগিতা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এ তথ্য জানান। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে ছিলেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। তথ্য ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব কে এম মোজাম্মেল হকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) মহাপরিচালক আমীর হোসেন ও এনএইচডি প্রকল্পের পরিচালক শফিকুল আলম।
সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ইতিমধ্যেই প্রথমপর্যায়ে রংপুর, বরিশাল ও ময়মনসিংহ বিভাগের ১৭টি জেলায় ৮৬ লাখ ৯ হাজার পরিবার থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে। দ্বিতীয়পর্যায় ২৫ জেলায় তথ্য সংগ্রহ করা হবে। তৃতীয়পর্যায় সিলেট, খুলনা বিভাগের ২২ জেলায় তথ্য সংগ্রহ করা হবে। সারাদেশ থেকে তথ্য সংগ্রহের মাধ্যমে খানা তথ্যভা-ার গড়ে তোলা হবে। যেসব মন্ত্রণালয় সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করে তারা এই তথ্যভা-ার থেকে তথ্য নিয়ে সুবিধাভোগী নির্বাচন করবে। এর ফলে দ্বৈততা পরিহার করা সম্ভব হবে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে ৭শ’ ২৭ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। 
 
অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, এ তথ্যভা-ারের মাধ্যমে দারিদ্র্যপ্রবণ জনগোষ্ঠীকে চিহ্নিত করা হবে। ধনীদরিদ্রের বৈষম্য কমাতে দারিদ্র্যমোচনে সম্পদ হস্তান্তর সংক্রান্ত যেসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে, সেগুলোর সঠিক বাস্তবায়ন সহজ হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।
 
#
তৌহিদুল/অনসূয়া/শহিদ/রফিকুল/শামীম/২০১৮/১৫৪৭  ঘণ্টা 
 
তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর : ১০১
 
উত্তরবঙ্গের জনগণের কর্মসংস্থান বাড়াতে শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে ডেপুটি স্পিকারের আহ্বান
 
 
ঢাকা, ২৭ পৌষ (১০ জানুয়ারি) :  
 
ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া বলেছেন, ব্যাংকগুলো যথাযথভাবে উদ্যোগ নিলে উত্তরাঞ্চলের কোল্ড স্টোরেজগুলো রক্ষা করা সম্ভব। তিনি বলেন, উত্তরবঙ্গের জনগণের কর্মসংস্থান বাড়াতে শিল্পপ্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে ব্যাংকারদের উদ্যোগ নিতে হবে। 
 
ডেপুটি স্পিকার আজ ঢাকায় বিসিআইসি অডিটোরিয়ামে ঢাকাস্থ উত্তরবঙ্গ ব্যাংকার্স কল্যাণ ফোরাম আয়োজিত গুণী ব্যাংকার সম্মাননা ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্ত
Todays handout (10).docx Todays handout (10).docx

Share with :

Facebook Facebook