তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮

তথ্যবিবরণী ২৪/৯/২০১৮

তথ্যবিবরণী                                                                               নম্বর : ২৬১৫ 
২০১৭-১৮ অর্থবছরে ইলিশের উৎপাদন ৫ লাখ টন ছাড়িয়ে যাবে
                                                 - নারায়ণ চন্দ্র চন্দ
ঢাকা, ৯ আশ্বিন (২৪ সেপ্টেম্বর) :
মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ বলেছেন, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ইলিশের উৎপাদন ৫ লাখ টন ছাড়িয়ে যাবে। মন্ত্রী আজ ঢাকায় নিজ দপ্তরে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এসব কথা বলেন।
বাংলাদেশের মোট উৎপাদিত মাছের প্রায় ১২ শতাংশ আসে শুধু ইলিশ থেকে। দেশের জিডিপিতে ইলিশের অবদান এক শতাংশের অধিক। কাজেই একক প্রজাতি হিসেবে ইলিশের অবদান সর্বোচ্চ। ফলে মাত্র 
৯ বছরের ব্যবধানে এ উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে প্রায় ৬৬ শতাংশ। এসময়ে সার্বিক মাছের উৎপাদনও ২৭ লাখ 
১ হাজার মেট্রিক টন থেকে ৪১ লক্ষ ৩৪ হাজার মেট্রিক টনে উন্নীত হয়েছে। এটি ২০১৬-১৭ সালের উৎপাদন-লক্ষ্যমাত্রা ৪০ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টনের চেয়ে ৮৪ হাজার মেট্রিক টন বেশি। ২০১৭-১৮ সালে ইলিশের উৎপাদন যেমন ৫ লাখ মেট্রিক টন ছাড়িয়ে যাবে; তেমনই মাছের উৎপাদনও বৃদ্ধি পেয়ে ৪২ লাখ ৭৭ হাজার মেট্রিক টন হবে বলে আশা করা যায়। 
ইতিমধ্যে পেটেন্ট, ডিজাইন ও ট্রেডমার্ক অধিদপ্তর প্রয়োজনীয় পরীক্ষানিরীক্ষা ও আইনানুগ কার্যক্রমশেষে বাংলাদেশের জাতীয় মাছ ইলিশের ভৌগোলিক নিবন্ধন (জিআই সনদ) প্রদান করে। ইতিপূর্বে ইলিশের কোনো ব্র্যান্ডিং ও ট্রেডমার্কও ছিল না। বিশ্বে ইলিশের ব্র্যান্ডিং বাংলাদেশেই সর্বপ্রথম সম্পন্ন হয়েছে। ফলে বিদেশের ক্রেতারা এখন সহজেই বাংলাদেশি সুস্বাদু ইলিশমাছ শনাক্ত করতে পারবে। 
সামাজিক নিরাপত্তা র্কমসূচির আওতায় ২০১৬-১৭ অর্থবছরে জাটকা সমৃদ্ধ ১৭ জেলার ৮৫টি উপজেলায় জাটকা আহরণে বিরত রাখতে ২ লাখ ৩৮ হাজার ৬৭৩ জন জেলে পরিবারকে মাসিক ৪০ কেজি হারে ৪ মাসের জন্য মোট ৩৮ হাজার ১৮৮ মেট্রিক টন এবং ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ২ লাখ ৪৮ হাজার ৬৭৪টি জেলে পরিবারকে মোট ৩৯ হাজার ৭৮৮ মেট্রিক টন চাল প্রদান করা হয়েছে। 
বর্তমান সরকারের আমলে প্রকৃত জেলেদের শনাক্ত করে নিবন্ধকরণ ও পরিচয়পত্র প্রদানের লক্ষ্যে জুন ২০১৭ পর্যন্ত ১৬ লাখ ২০ হাজার মৎস্যজীবীদের নিবন্ধন ও ডাটাবেইজ প্রস্তুত এবং ১৪ লাখ ২০ হাজার জেলের পরিচয়পত্র বিতরণ সম্পন্ন করে সরকার ইলিশসহ মাছের উৎপাদন বৃদ্ধিতে বাস্তবমুখী অবদান রেখে চলেছে। ইলিশ আহরণে জড়িত প্রায় ৭ লাখ জেলে এবং মা-ইলিশ আহরণ নিষিদ্ধকালে ২২দিনের জন্য ৩ লাখ ৯৫ হাজার জেলে পরিবারকে  ২০ কেজি হারে  প্রায় ৭ হাজার টন খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়ে থাকে। 
#
শাহ আলম/অনসূয়া/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/২১২০ ঘণ্টা    

Handout                                                                                                                                                                               Number: 2618

PM makes 3 proposals for resolving Rohingya crisis

New York, September 24: 

Prime Minister Sheikh Hasina this morning addressed the High-level Event on the Global Compact on Refugees: A Model for Greater Solidarity and Cooperation at the United Nations Headquarters. Organized by UN High Commissioner for Refugees, the high level event was attended by the United Nations Secretary General António Guterres and the World Bank President Jim Yong Kim.  

In her address, the Prime Minister welcomed the adoption of global compact on refugees. She mentioned that currently 65 million people are livings as refugees and mostly the developing countries are hosting them. She invited the world leaders to come forward with political will and commitment in resolving Refugee crisis.

Highlighting on the magnitude of Rohingyas crisis and its impact on Bangladesh, the Prime Minister underscored the need for addressing the root causes of forced displacement and urged the international community to intensify its efforts in resolving protracted crises by ensuring safe and sustainable return of the refugee population to their homelands.

Prime Minister also requested the international partners to help the UN in implementing its joint response plan – the humanitarian assistance programme for the Rohingyas with necessary funding.

For resolution of longstanding Rohingya crisis peacefully and sustainably, Prime Minister made three specific recommendations:

First, Myanmar must abolish discriminatory laws, policies and practices against Rohingyas and address the root causes of forced displacement in a genuine and timely manner.

Second, Myanmar must create a conducive environment by building trust and guaranteeing protection, rights and pathway to citizenship for all Rohingyas. If needed, create a “safe zone” inside Myanmar to protect all civilians.

Third, prevent atrocity crimes against Rohingyas in Myanmar by bringing accountability and justice, particularly in light of the recommendations of the Fact-Finding Mission of the UN Human Rights Council.

                Prime Minister reiterated that Rohingya crisis has been originated in Myanmar and the solution has to be found in Myanmar. By opening the border and sheltering the displaced Rohingyas, Bangladesh has not only saved lives, we have stabilized the entire region by containing the crisis within our border, she added. 

The Prime Minister referred to the impacts of Rohingya influx on Bangladesh’s socio-economic life and environment and announced that pending return, the Rohingyas will be relocated to a newly developed island called Bhashan Char. She also reiterated that Bangladesh does not have any policy of local integration and the Rohingyas must return to their own country to secure their own future.

The event was also attended by a number of world leaders, humanitarian and development agencies and representative of NGOs and business community. Hon’ble Prime Minister of Bangladesh was invited by the UN High Commissioner for Refugees to deliver her perspectives on the occasion of adoption of Global Compact on Refugees.

#

Tohidul/Nice/Mosharf/Rezaul/2018/2338 hours

তথ্যবিবরণী                                            নম্বর : ২৬১৭

 প্রযুক্তির বিস্ময় মোকাবিলায় সন্তানদের ডিজিটাল যুগের উপযোগী করে গড়ে তুলুন
                                   -- মোস্তাফা জব্বার
ঢাকা, ৯ আশ্বিন (২৪ সেপ্টেম্বর) : 
ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, যে জাতি তিনটি শিল্প বিপ্লবের কোনটিতেই অংশ নিতে পারেনি, সেই পশ্চাৎপদ জাতি হিসেবে আমরা প্রযুক্তিতে ৩২৪ বছর পিছিয়ে থেকেও ডিজিটাল শিল্পবিপ্লবে বৈশ্বিক নেতৃত্ব দিচ্ছি। বাংলাদেশকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এখন সম্ভাবনাময় দেশ হিসেবে দেখছে। প্রযুক্তি মানুষকে বিস্ময়কর জায়গায় নিয়ে যাবে। প্রযুক্তির আগামী দিনের বিস্ময়কর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় আমাদের সন্তানদের ডিজিটাল যুগের উপযোগী করে গড়ে তুলতে হবে। অন্যথায় এর দায় অভিভাবকদেরই নিতে হবে।
মন্ত্রী আজ ঢাকায় বাংলাদেশ স্কাউট জাতীয় সদর দপ্তরে কাবিং ও রোভারিংয়ের শতবর্ষ উপলক্ষে প্রকাশিত স্মারক ডাকটিকিট, স্যুভেনির শিট ও উদ্বোধনী খাম অবমুক্তকরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ স্কাউট এর সহ-সভাপতি মোঃ হাবিবুল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ স্কাউটের প্রধান জাতীয় কমিশনার ও দুদক কমিশনার ড. মোঃ মোজাম্মেল হক খান, বাংলাদেশ ডাক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সুশান্ত কুমার ম-ল এবং বাংলাদেশ স্কাউটের নির্বাহী পরিচালক আরশাদুল মোকাদ্দিস বক্তৃতা করেন।
ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী বলেন, স্কাউটিংয়ের সাথে ডিজিটাল বাংলাদেশের সম্পর্ক আছে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশ স্বাধীন করেছে। স্কাউটরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাস্তবায়ন করবে ডিজিটাল বাংলাদেশ। তিনি বলেন, ইন্টারনেট হচ্ছে পৃথিবীর সবচেয়ে বড় এবং শ্রেষ্ঠ গ্রন্থাগার। তিনি নিরাপত্তার সাথে ইন্টারনেট ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, ইন্টারনেটের খারাপ দিক বর্জন করে উদ্ভাবনী শক্তি হিসেবে ইন্টারনেট ব্যবহারে নতুন প্রজন্মকে অনুপ্রাণিত করতে স্কাউটদের এগিয়ে আসতে হবে। তিনি বাংলাদেশের স্কাউটরা বিশ্বে পঞ্চম বৃহত্তম উল্লেখ করে বলেন, গত সাড়ে নয় বছরে অনেক কিছুতেই বাংলাদেশের রূপান্তর বিস্ময়কর। ৫৫০ ডলারের মাথা পিছু আয়ের বাংলাদেশ গত ৯ বছরে ১৭৫২ ডলারের মাথা পিছু আয়ের বাংলাদেশ। ২০০৮ সালে ইন্টারনেট ব্যান্ডউডথ ব্যবহার ছিল ৭ জিবিপিএস যা বেড়ে ৮০০ জিবিপিএসে উন্নীত হয়েছে। মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর সংখ্যা সাড়ে তিন কোটি থেকে সাড়ে পনেরো কোটিতে উন্নীত হয়েছে। ইন্টারনেট ব্যবহারকারী ৪০ লাখ থেকে ৯ কোটিতে উন্নীত হয়েছে। 
ড. মোজাম্মেল হক খান বলেন, স্কাউটিংয়ে বাংলাদেশ এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে নেতৃত্বকারী দেশ। স্কাউট বাংলাদেশের ভাবমূর্তি বৃদ্ধিতে অবদান রাখছে। সরকারের আন্তরিকতা ও সদিচ্ছার ফলে বিশ্বে ১৬৭টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশ শীর্ষ অবস্থানে উপনীত হতে সক্ষম হয়েছে। একুশ শতকের বাংলাদেশ নির্মাণে স্কাউটদের তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর করে গড়ে তুলতে হবে।
#
শেফায়েত/নাইচ/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/২২৩৫ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                   নম্বর : ২৬১৬
আবুল হাসান ছিলেন একজন অত্যন্ত প্রতিভাবান ও সম্ভাবনাময়ী কবি
                                               --- সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী
ঢাকা, ৯ আশ্বিন (২৪ সেপ্টেম্বর) :
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, আবুল হাসান ছিলেন একজন অত্যন্ত প্রতিভাবান ও সম্ভাবনাময়ী কবি। তিনি ছিলেন আমাদের সমসাময়িককালের কবি। তিনি বাংলা কবিতায় একটি নতুন ধারা প্রবর্তন করেন। কিন্তু দুঃখের বিষয়, তিনি অল্প বয়সে আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক (ইউসিবি) লিমিটেডকে তার নামে এ নতুন সাহিত্য পুরস্কার প্রবর্তনের জন্য ধন্যবাদ জানাই।
মন্ত্রী আজ সন্ধ্যায় রাজধানীর বাংলা একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে অনলাইন সাহিত্য পত্রিকা পরস্পর ও প্রকাশনা সংস্থা অগ্রদূত আয়োজিত আবুল হাসান সাহিত্য পুরস্কার ২০১৭ ও বিশেষ সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
প্রধান অতিথি বলেন, আজকের আবুল হাসান সাহিত্য পুরস্কার ২০১৭ ও বিশেষ সম্মাননাপ্রাপ্ত কবি-সাহিত্যিকদের আমি জানাই আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। মন্ত্রী বলেন, সত্যিকার অর্থে কবি-সাহিত্যিকদের সম্মানিত করতে হলে দোকান থেকে তাদের বই কিনে পড়তে হবে। মন্ত্রী এসময় আগামীতে বিশেষ সম্মাননা প্রাপ্তদেরকেও পুরস্কার হিসেবে অর্থ প্রদান করার জন্য ইউসিবিএল কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানান।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, বিশিষ্ট নাট্যজন নাসির উদ্দীন ইউসুফ, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংকের উপব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ আবদুল্লাহ আল মামুন ও কবি আলতাফ হোসেন। স্বাগত বক্তৃতা করেন পুরস্কার ও সম্মাননা প্রদান কমিটির সভাপতি সোহেল হাসান গালিব।
অনুষ্ঠানে তরুণ কবি অনুপম ম-লকে তার কাব্যগ্রন্থ ‘অহম ও অশ্রুমঞ্জরি’র জন্য আবুল হাসান সাহিত্য পুরস্কার ২০১৭ প্রদান করা হয়।
অধ্যাপক হায়াৎ মামুদকে আজীবন সম্মাননা প্রদান করা হয়। গল্পের বাঁকবদলে উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য কবি ও গল্পকার কাজল শাহনেওয়াজ এবং কবি সাজ্জাদ শরিফকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয়।
উল্লেখ্য, আবুল হাসান সাহিত্য পুরস্কারপ্রাপ্ত তরুণ কবি অনুপম ম-লের হাতে পুরস্কার হিসেবে প্রায় এক লাখ টাকার চেক তুলে দেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী।
#
ফয়সল/নাইচ/মোশারফ/জয়নুল/২০১৮/২১৩০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                        নম্বর : ২৬১৪
প্রাথমিকে ঝরে পড়া রোধে ‘মিনা দিবস’ সহায়ক ভূমিকা রাখবে
ঢাকা, ৯ আশ্বিন (২৪ সেপ্টেম্বর) :
বিদ্যালয়ে যেতে সক্ষম শতভাগ শিশুর বিদ্যালয়ে ভর্তি নিশ্চিতকরণ এবং ঝরে পড়া রোধে সরকারের অঙ্গীকার বাস্তবায়নের লক্ষ্যকে সামনে রেখে এবার উদ্যাপিত হলো ‘মীনা দিবস’। দেশে বিদ্যমান বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু শিক্ষা ও স্বাস্থ্য বিষয়ক উন্নয়নের পাশাপাশি বাল্য বিবাহ, পরিবারে অসম খাদ্য বণ্টন, শিশুশ্রম রোধ ইত্যাদি বিষয়ে জনগণকে সচেতন করা ও কার্যকরী বার্তা পৌঁছানোর ক্ষেত্রে ‘মীনা’ চরিত্রটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। এবার দিবসটির প্রতিপাদ্য ‘মায়ের দেয়া খাবার খাই, মনের আনন্দে স্কুলে যাই’ যা ঝরেপড়া রোধ, শিক্ষার মানন্নোয়ন ও শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার প্রতি মনোযোগী করতে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। 
আজ মিরপুরে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর মিলনায়তনে অধিদপ্তর আয়োজিত ‘মীনা দিবস’ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রাথমিক ও গণ শিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ আকরাম-আল-হোসেন। 
জনপ্রিয় কার্টুন ‘মীনা’ নামের বালিকা চরিত্রটি মেয়ে শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় সোচ্চার। ১৯৯১ সালে একজন ১০ বছর বয়সী বালিকা হিসেবে মীনা চরিত্রের সৃষ্টি। সমাজের কুসংস্কার, ধর্মান্ধতা, বিভেদ ও বৈষম্য দূর করে সমৃদ্ধ জাতি গঠনের বার্তাসমূহ বিনোদনমূলক কার্টুন চরিত্র মীনার মাধ্যমে উপস্থাপন করা হয়। মীনা চরিত্রটি বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত, নেপাল তথা দক্ষিণ এশিয়ার মেয়ে শিশুদের প্রতিনিধিত্বকারী একটি বালিকা চরিত্র। ইতোমধ্যে অনেক বিষয়ে মীনা কার্টুন পর্ব ও মীনা বই তৈরি করা হয়েছে, যার মাধ্যমে চরিত্রটি শিশু ছাড়াও সব বয়সের মানুষের মাঝে সাড়া ফেলেছে। 
প্রতি বছরের মতো এ বছরও মীনা দিবস উদ্যাপন উপলক্ষে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের নিয়ে র‌্যালি, মীনা বিষয়ক রচনা প্রতিযোগিতা, চিত্রাঙ্কন, যেমন খুশি তেমন সাজো ইত্যাদি কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে।  
প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. মোঃ আবু হেনা মোস্তফা কামালের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব গোলাম মোঃ হাসিবুল আলম, যাদুশিল্পী জুয়েল আইচসহ মন্ত্রণালয় ও অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন।  
পরে মন্ত্রী বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। 
#
রবীন্দ্রনাথ/ফারহানা/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/২০৪৫ঘণ্টা  
তথ্যবিবরণী                                                                      নম্বর : ২৬১৩
বর্তমান সরকারের সময়ে কোন মানুষকে বঞ্চনার শিকার হতে দেওয়া যাবে না
                      ---পরিকল্পনামন্ত্রী
ঢাকা, ৯ আশ্বিন (২৪ সেপ্টেম্বর) : 
কমিউনিটি পুলিশিং হচ্ছে জনগণের সঙ্গে পুলিশের আস্থার এক সেতুবন্ধন। জঙ্গিবাদ ও মাদক থেকে সমাজকে সচেতন ও মুক্ত রাখার জন্য কমিউনিটি পুলিশিংয়ের অবদান হতে হবে সবচেয়ে বেশি। এ ব্যাপারে কমিউনিটি পুলিশিং এর দায়িত্ব হবে, যেকোন ধরনের মাদক, জঙ্গিবাদ ও সমাজে অপরাধের মূল হোতাদের সম্পর্কে পুলিশকে অবহিত করা। জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বর্তমান সরকার জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করছে। জঙ্গিবাদ ঠেকাতে বেসরকারি সংস্থা (এনজিও) গুলোকেও কাজে লাগাতে সরকার বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। 
পুলিশই জনতা, জনতাই পুলিশ’ স্লোগানকে সামনে রেখে আজ কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদ মাঠে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের উদ্যোগে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, বাল্যবিয়ে, ইভটিজিং, নারী ও শিশু নির্যাতন রোধকল্পে এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। আলোচনাসভায় নানা প্রকার অপকর্ম থেকে নিজেসহ অপরকে বিরত রাখার আহ্বান জানিয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এসব কথা বলেন।
পরিকল্পনামন্ত্রী আরো বলেন, হলি আর্টিজান, কল্যাণপুরের জঙ্গি আস্তানা গুঁড়িয়ে দেওয়াসহ সকল জঙ্গিবাদ নির্মূলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অবদান ইতিহাসের অবিচ্ছেদ্য অংশ হিসেবে থাকবে। দুর্গম অঞ্চলের সাধারণ মানুষের শোষণ, বঞ্চনা ও হাহাকারের ঘটনা কমিউনিটি পুলিশিংয়ের মাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে পৌঁছানো সহজ হবে। আজও বাংলাদেশের দুর্গম অঞ্চলগুলোতে বঞ্চনার শিকার হচ্ছে মানুষ, তাই বর্তমান সরকারের আমলে  কোন মানুষকে বঞ্চনার শিকার হতে দেওয়া যাবে না। মাদক গ্রাম ও জনপদকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। একটি প্রজন্ম এ ধ্বংসের শিকার। এটাকে যদি রক্ষা করা না যায়, তাহলে ভবিষ্যতে প্রজন্ম শূন্যতা দেখা দেবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সবাইকে আন্তরিক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। আর আমরা সে আহ্বানে সাড়া দিয়ে দেশকে একটি সুন্দর ও উজ্জ¦ল ভবিষ্যৎ সমৃদ্ধ প্রজন্ম উপহার দিয়ে দেশেকে নিয়ে যাবো কাক্সিক্ষত অবস্থানে।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেব উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার। 
কুমিল্লার পুলিশ সুপার সৈয়দ নূরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরো উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মোঃ আবুল ফজল মীর, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ কমিউনিটি পুলিশের আহ্বায়ক প্রফেসর আনোয়ার উল্লাহ এবং উপজেলা চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র, ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ।
#
তৌহিদুল/ফারহানা/সঞ্জীব/আব্বাস/২০১৮/২০২৮ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                       নম্বর : ২৬১২
দেশের উন্নয়নে সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে কাজ করতে হবে
                                           --- জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী
কেশবপুর (যশোর), ৯ আশ্বিন (২৪ সেপ্টেম্বর) :
জনগণের দুঃখ-দুর্দশা লাঘবে সরকার অত্যন্ত আন্তরিক। এ লক্ষ্যে সরকার বহুবিধ উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছে। জনগণ এসব কর্মসূচির সুবিধা ভোগ করছে।
জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক আজ যশোরের কেশবপুরে ত্রিমোহিনী ইউনিয়নের বিভিন্ন উন্নয়ন কার্যক্রম পরিদর্শনকালে এসব কথা বলেন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, এদেশ আমাদের সবার। দেশের উন্নয়নে সবাইকে যার যার অবস্থান থেকে অবদান রাখতে হবে। তিনি বলেন, সরকার রূপকল্প ২০২১ ও রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশে পরিণত করতে চায়। উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে অগ্রগতির চলমান ধারা অব্যাহত রাখতে হবে।
কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মিজানুর রহমান, বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ, ত্রিমোহিনী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান, যশোর জেলা পরিষদের সদস্য হাসান সাদেক, কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি তপন কুমার ঘোষ মন্টুসহ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ এবং ত্রিমোহিনী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যগণ এসময় উপস্থিত ছিলেন। 
এর আগে প্রতিমন্ত্রী কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময় করেন।
#
মাসুম/ফারহানা/মোশারফ/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/১৯৫৫ঘণ্টা  
তথ্যবিবরণী                                                                         নম্বর : ২৬১১
টেলিযোগাযোগ খাতে বিনিয়োগের আগ্রহ যুক্তরাষ্ট্রের
                                     --- মোস্তাফা জব্বার
ঢাকা, ৯ আশ্বিন (২৪ সেপ্টেম্বর) :
বাংলাদেশে টেলিযোগাযোগ খাতে বিনিয়োগের আগ্রহ ব্যক্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের সাথে আজ আগারগাঁওস্থ আইসিটি টাওয়ারে তাঁর দপ্তরে বাংলাদেশে মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্সিয়া বার্নিকাট (গধৎপরধ ইবৎহরপধঃ) সাক্ষাৎকালে এ আগ্রহের কথা ব্যক্ত করেন। এসময় তারা দু’দেশের পারস্পরিক সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় বিশেষ করে টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি খাত নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।
মার্কিন রাষ্ট্রদূত বৈশ্বিক টেলিযোগাযোগ খাতে বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করেন। তিনি আসন্ন আইটিইউ নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে বাংলাদেশের সমর্থন কামনা করেন। বার্নিকাট সম্প্রতি পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সম্পর্কে মন্ত্রীর নিকট থেকে অবহিত হন। মন্ত্রী ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রয়োজনীয়তার বিস্তারিত উল্লেখ করে বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ডিজিটাল অপরাধ নিয়ন্ত্রণের জন্য এবং জাতির বৃহত্তর স্বার্থে প্রণয়ন করা হয়েছে। মার্কিন রাষ্ট্রদূত এ বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন। 
এসময় অন্যান্যের মধ্যে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ ও আমেরিকান অ্যাম্বাসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।
#
শহিদুল/ফারহানা/সঞ্জীব/রফিকুল/জয়নুল/২০১৮/১৯৩০ঘণ্টা  
তথ্যবিবরণী                                                                    নম্বর : ২৬১০
সংবিধানের বিধি-বিধান অনুযায়ীই হবে আগামী নির্বাচন
                                           --- খাদ্যমন্ত্রী
ঢাকা, ৯ আশ্বিন (২৪ সেপ্টেম্বর) :
খাদ্যমন্ত্রী মোঃ কামরুল ইসলাম বলেছেন, বর্তমান সংসদ বহাল রেখে সংবিধান অনুসরণ করেই আগামী নির্বাচন যথাসময়ে অনুষ্ঠিত হবে। সংবিধানের বিধি-বিধানের বাইরে যাবার কোনো সুযোগ নেই। 
মন্ত্রী আজ সাভারের ভাকুর্তা ইউনিয়নে এক জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, নির্বাচনকে বাধাগ্রস্ত করার শক্তি কারো নেই। রাজনীতির মাঠে নামসর্বস্ব দল এবং পর্যুদস্ত নেতাদের ঐক্য জনগণের ঐক্য নয়। এতে ভোটারদের মধ্যে কোনো প্রতিফলন ঘটবে না। 
ভাকুর্তা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল্লাহ ব্যাপারীর সভাপতিত্বে মন্জুরুল আলম রাজীব এবং বেলাল হোসেন জনসভায় বক্তৃতা  করেন । 
#
মেহেদী/ফারহানা/ রফিকুল /জয়নুল/২০১৮/১৮৩৫ঘণ্টা  
Todays handout (11).docx Todays handout (11).docx

Share with :

Facebook Facebook