তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৩rd মার্চ ২০২০

তথ্যবিবরণী ২৩ মার্চ ২০২০

তথ্যবিবরণী                                                                                                    নম্বর : ১০৮৫

   বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীরের মৃত্যুতে মন্ত্রী  ও প্রতিমন্ত্রীর শোক  

ঢাকা, ৯ চৈত্র (২৩ মার্চ):

 

একুশে পদকপ্রাপ্ত বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক, শিক্ষাবিদ ও গবেষক বোরহানউদ্দিন খান জাহাঙ্গীরের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন ও সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

তাঁরা পৃথক শোকবার্তায় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

 

#

তৌহিদুল/ফারহানা/রফিকুল/আব্বাস/২০২০/২০৪১ ঘণ্টা   

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                                নম্বর : ১০৮৪

কোভিড-১৯ (করোনা ভাইরাস) সংক্রান্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন

ঢাকা, ৮ চৈত্র (২৩ মার্চ) :

            ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স কো-অর্ডিনেশন সেন্টার (NDRCC) এর আজ বিকাল ৫টা পর্যন্ত সর্বশেষ প্রতিবেদন অনুযায়ী করোনা ভাইরাস শনাক্তকরণের জন্য এ পর্যন্ত দেশে ৬ লাখ ৫৮ হাজার ৯ শত ৮১ জনকে স্ক্রিনিং করা হয়েছে। তন্মধ্যে ৩টি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ৩ লাখ ২১ হাজার ৭ শত ৬ জন,  দু’টি সমুদ্রবন্দরে ৯ হাজার ৪ শত ১৭ জন, ঢাকা ক্যান্টনমেন্ট ও বেনাপোল রেলওয়ে স্টেশনে ৭ হাজার ২৯ জন এবং অন্যান্য চালু স্থলবন্দরসমূহে ৩ লাখ ২০ হাজার ৮ শত ২৯ জনকে স্ক্রিনিং করা হয়েছে।  রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) এর তথ্যানুযায়ী গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৬ জনের দেহে করোনা ভাইরাস পাওয়া গেছে। বাংলাদেশে বর্তমানে  COVID-19 আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৩৩ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন মোট ৫ জন। এ রোগে মৃত্যুবরণ করেছে ৩ জন।

 

            আজ সকাল ৮টার পূর্বের ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ৭ হাজার ১শ’ ৪ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইন করা হয়েছে এবং ছাড়পত্র পেয়েছেন ১ হাজার ৪৬৩ জন। এছাড়া বর্তমানে দেশে হাসপাতালগুলোতে কোয়ারেন্টাইনে অবস্থানরত রোগীর সংখ্যা  মোট ৪৬ জন। 

            করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে ইতোমধ্যে সরকার নিম্নরূপ পদক্ষেপ নিয়েছে :

  • আগামী ২৬ মার্চের সরকারি ছুটি এবং ২৭-২৮ মার্চের সাপ্তাহিক ছুটির সাথে ২৯ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল ২০২০ পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে এবং ৩ ও ৪ এপ্রিল ২০২০ সাপ্তাহিক ছুটির দিন এই বন্ধের সাথে সংযুক্ত থাকবে। কাঁচাবাজার, খাবার এবং ঔষধের দোকান, হাসপাতাল এবং জরুরি সেবার জন্য এই ব্যবস্থা প্রযোজ্য হবে না।
  • বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তৃক কোভিড-১৯ মোকাবিলায় জনস্বার্থে আইনের প্রয়োগ বিষয়ে একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন ২০১৮ এর বিভিন্ন ধারা, উপধারা প্রয়োজনে প্রয়োগ করা হতে পারে বলে গণবিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ রয়েছে। 
  • স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখার পরিচালনায় আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, সমুদ্রবন্দর ও স্থলবন্দরসমূহে বিদেশ থেকে আগত সকল যাত্রীর তাপমাত্রা পরীক্ষা করা হচ্ছে; 
  • সিঙ্গাপুর, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ইতালিতে ও সৌদি আরবে কয়েকজন প্রবাসী বাংলাদেশি কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন।
  • বিদেশ থেকে এসে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ অমান্য করায় ৯ জেলায় ১৭ জন প্রবাসীকে জরিমানা করা হয়েছে।
  • সার্কভুক্ত দেশের সরকার প্রধানগণ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার প্রয়াসে ভিডিও কনফারেন্স করেছেন।

#

তাসমীন/ফারহানা/নাইচ/রাহাত/রফিকুল/রেজাউল/২০২০/২০৩৫ ঘণ্টা 

তথ্যবিবরণী                                                                                                  নম্বর : ১০৮৩

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রথম দাপ্তরিক মিটিং পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের

ঢাকা, ৯ চৈত্র (২৩ মার্চ) :

          করোনা ভাইরাস সংক্রমণের বিদ্যমান পরিস্থিতিতে জনসমাগম এড়াতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রথম দাপ্তরিক মিটিং করেছে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়।

          আজ পানিসম্পদ সচিব কবির বিন আনোয়ারের উদ্যোগে নিজ অফিসকক্ষে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ বিষয়ে মন্ত্রণালয়াধীন একাধিক সংস্থার সাথে এই অনলাইন মিটিং অনুষ্ঠিত হয়।

          এই বিষয়ে পানি সচিব বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনসমাগম ও সংক্রমন এড়াতে প্রথম ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মিটিং করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয়াধীন অধিদপ্তরগুলোর সাথে আজকে আরো একাধিক জরুরি মিটিং রয়েছে যা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমেই অনুষ্ঠিত হবে।

          প্রসঙ্গত, পানি উন্নয়ন বোর্ড, ইনস্টিটিউট অভ্ ওয়াটার মডেলিং এবং সেন্টার ফর এনভাইরনমেন্ট এন্ড জিওগ্রাফিক্যাল ইনফরমেশন সার্ভিসেস (সিইজিআইএস) এর কর্মকর্তারা স্ব স্ব দপ্তর থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মিটিং অংশগ্রহণ করেন। এ সময় মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

#

আসিফ/ফারহানা/রফিকুল/জয়নুল/২০২০/২০২৫ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ১০৮২

 

চট্টগ্রাম বেফাক সচিব মাওলানা ইসহাক নূরের মৃত্যুতে তথ্যমন্ত্রীর শোক

 

ঢাকা, ৯ চৈত্র (২৩ মার্চ) :

          বাংলাদেশ কাওমী মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড (বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ), চট্টগ্রামের সচিব মাওলানা ইসহাক নূরের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখপ্রকাশ করেছেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহ্মুদ।

          এক শোকবার্তায় মন্ত্রী প্রয়াতের আত্মার শান্তি কামনা করেন ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

          উল্লেখ্য মাওলানা ইসহাক নূর আজ দুপুরে চট্টগ্রামে ইন্তেকাল করেন। তিনি একই সাথে চট্টগ্রামের জামেয়া ইসলামিয়া মেহেরিয়া মুঈনুল ইসলাম মাদ্রাসার প্রধান নির্বাহী পরিচালক হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন।

#

আকরাম/ফারহানা/রফিকুল/জয়নুল/২০২০/২০২০ঘণ্টা

 

 তথ্যবিবরণী                                                                                         নম্বর : ১০৮১

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের

পক্ষ হতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে পিপিই ও কিট হস্তান্তর

ঢাকা, ৯ চৈত্র (২৩ মার্চ) : 

          বিদ্যুৎ বিভাগ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ এবং বাংলাদেশ ইন্ডিপেন্ডেন্ট পাওয়ার প্রোডিউসার এসোসিয়েশন (BIPPA)-এর পক্ষ হতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে ৫০ হাজার পিপিই এবং ৫০ হাজার কিট প্রদান করা হবে। ইতোমধ্যে কয়েকটি হাসপাতালে পিপিই ও কিট বিতরণ শুরু হয়েছে।

          বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ আজ সচিবালয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকের কাছে ৪ হাজার পার্সোনাল প্রটেকশন ইকুইপমেন্ট (পিপিই) এবং ৪ হাজার  কিট হস্তান্তর করেন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েকেও পিপিই প্রদান করা হয়েছে। বিদ্যুৎ বিভাগ এবং জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের পক্ষ হতে প্রয়োজনে আরো সহযোগিতা করা হবে।

          এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, পিপিই এবং টেস্টিং কিট দেশে যথেষ্ট পরিমাণ আছে। পটেন্সিয়াল ক্যারিয়াররা যথাযথভাবে কোয়ারেন্টাইনের নিয়ম মানলে করোনা নিয়ন্ত্রণ করা সহজতর হবে।

          বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী এ সময় বলেন, এই ক্রান্তিকাল আমাদের সমন্বিত ও ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় মোকাবিলা করতে হবে। বিদ্যুৎ বিভাগের পক্ষ থেকে এপ্রিল পর্যন্ত সারচার্জ মওকুফের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। জ্বালানি এবং খনিজ সম্পদ বিভাগের পক্ষ থেকে মে পর্যন্ত আবাসিক গ্যাসের বিলের সারচার্জ মওকুফের ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এ সময় তিনি সকলকে সতর্ক থাকার এবং চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী চলার অনুরোধ জানান।

          এ সময় জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব মোঃ আনিছুর রহমান, বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব ড. সুলতান আহমদ, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব মোঃ আসাদুল ইসলাম ও বিপার সভাপতি ইমরান করিম উপস্থিত ছিলেন।

#

আসলাম/ফারহানা/রফিকুল/জয়নুল/২০২০/২০১০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                              নম্বর : ১০৮০

বিদ্যুৎ ও গ্যাসের সারচার্জ/বিলম্ব মাশুল মওকুফ

ঢাকা, ৯ চত্রৈ (২৩ র্মাচ) :

 

          বিদ্যুৎ বিভাগ এবং জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ বর্তমানে নোভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ এড়াতে গ্রাহকদের বিদ্যুৎ ও গ্যাসের সারচার্জ/বিলম্ব মাশুল মওকুফের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

 

          বিদ্যুৎ বিভাগ গতকাল ফেব্রুয়ারি, মার্চ ও এপ্রিল মাসের বিদ্যুৎ বিলের সারচার্জ বা বিলম্ব মাশুল ব্যতিত আবাসিক গ্রাহকদের বিদ্যুৎ বিল পরিশোধের বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) কে অনুরোধ জানিয়েছে।

 

          জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের সিদ্ধান্ত মতো আবাসিক খাতে ফেব্রুয়ারি থেকে  মে  মাসের গ্যাস বিল সারচার্জ বা বিলম্ব মাশুল ব্যতিত জুন  মাসের সুবিধাজনক সময়ে পরিশোধ করতে পারবে।

#

আসলাম/নাইচ/রফকিুল/আব্বাস/২০২০/১৯২৬ ঘণ্টা  

 

তথ্যবিবরণী                                                                                                    নম্বর :  ১০৭৯  

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাথে বৈঠকে তথ্যমন্ত্রী

দুর্যোগের এসময়ে চাকুরিচ্যুতি অনভিপ্রেত

ঢাকা, ৯ চৈত্র (২৩ মার্চ):

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেছেন, বৈশ্বিক এই দুর্যোগের সময় কোনো ধরনের চাকুরিচ্যুতি অনভিপ্রেত ও দুঃখজনক।

আজ সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) নবনির্বাচিত পরিষদের সাথে বৈঠকে সম্প্রতি এসএ টিভি থেকে ২৭ জন ও আগামী নিউজ থেকে ৭ জন গণমাধ্যমকর্মীকে চাকুরিচ্যুতির প্রতিবাদ ও তাদের পুণর্বহালের জন্য ডিইউজে’র পক্ষে সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু উত্থাপিত দাবি’র প্রেক্ষিতে মন্ত্রী একথা বলেন। সেই সাথে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারের পাশাপাশি সাংবাদিক সমাজকে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানান তিনি।    

ড. হাছান মাহ্‌মুদ বলেন, ‘এখন বৈশ্বিক দুর্যোগ। এই দুর্যোগের মধ্যে সবাই অত্যন্ত উৎকণ্ঠিত। এই সময় কারো উৎকণ্ঠা বাড়ানো সমীচীন নয়। এই সময় কোনো ধরনের চাকুরিচ্যুতি অনভিপ্রেত, দুঃখজনক। এই সময়ে গণমাধ্যম সংস্থার মালিক পক্ষের কারণে যদি অসুবিধাও হয়, তাহলেও চাকুরিচ্যুতি না করার জন্য আমি অনুরোধ জানাই। আমার কাছে ব্যক্তিগতভাবে এই সময় কাউকে চাকুরিচ্যুত করা অনভিপ্রেত ও দুঃখজনক।’ 

সবারই আইনি সুরক্ষা প্রয়োজন উল্লেখ করে মন্ত্রী এ সময় বলেন, ‘সম্প্রচার আইন ও গণমাধ্যমকর্মী আইন -এ দু’টি আইন হলে সমস্ত টিভিসহ সমস্ত গণমাধ্যমকর্মীকে আইনি সুরক্ষা দেয়া সম্ভবপর হবে। গণমাধ্যমকর্মী আইন মন্ত্রিসভা হয়ে সংসদের আগামী অধিবেশনেই নিয়ে যাওয়ার জন্য আমরা চেষ্টা করছি। সেটি যদি পাস হয় তাহলে শুধু ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া নয়, অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকদেরও আইনি সুরক্ষা দেয়া সম্ভব। এর পাশাপাশি সম্প্রচার আইনের খসড়া নিয়ে এখন আইন মন্ত্রণালয় কাজ করেছে।’ 

‘এখন বাদানুবাদ বা একে অপরকে দোষারোপ করার সংস্কৃতি বাদ দিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে এই করোনা ভাইরাসের বৈশ্বিক দুর্যোগ মোকাবিলা করা প্রয়োজন বলে আমি মনে করি’ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সরকার নানাবিধ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।জনগণ অনেক সচেতন হয়েছে, তবু গ্রামে-গঞ্জে সচেতনতার কিছুটা অভাব রয়েছে। সবাই যাতে আরো সচেতন হয়, সেজন্য আমাদের ও সাংবাদিক সমাজকে একসাথে কাজ করতে হবে।’  

ডিইউজে’র এবারের তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নির্বাচিত নতুন কমিটি-সহ পুরো সাংবাদিক সমাজকে অভিনন্দন ও করোনা ভাইরাস নিয়ে অত্যন্ত সজাগ থাকার জন্য গণমাধ্যমকর্মীদের ধন্যবাদ জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘জাতি ও সমাজকে সঠিকখাতে প্রবাহিত করার ক্ষেত্রে সাংবাদিকদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আপনারা ইতোমধ্যেই অনেক উদ্যোগী ভূমিকা নিয়েছেন। আমরা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সাথে আলাপ করে আমাদের মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সাংবাদিক ইউনিয়নের সাথে যোগাযোগ করে সাংবাদিকদের সুরক্ষার জন্য পদক্ষেপ নেবো।’ 

ডিইউজে উত্থাপিত সাংবাদিকদের জন্য স্বাস্থ্যবীমা দাবিকে সর্বোতভাবে সমর্থন জানান মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘এটি করা প্রয়োজন। এটি  ইতিপূর্বে আমি সাংবাদিক ইউনিয়নগুলোকে বলেছিলাম, গ্রুপ ইনস্যুরেন্স করলে ভালো হয়। গ্রুপ ইনস্যুরেন্স করলে মিডিয়া হাউজের জন্যই ভালো। কারণ তখন সেখানে একজনকর্মী অসুস্থ হলে কিংবা কোনো দুর্ঘটনা বা অন্য কোনো কারণে অসুবিধা হলে ইনস্যুরেন্সের মাধ্যমে তাদেরকে সহায়তা দেয়া সম্ভবপর হয়। এক্ষেত্রে সাংবাদিক ইউনিয়নগুলো যোগ দিতে পারে। সংগঠনগুলো উদ্যোগ নিতে পারে সদস্যের জন্য গ্রুপ ইনস্যুরেন্স করা। এটি সবার জন্য কল্যাণকর হয়।  

ওয়েজবোর্ড সংস্কার দাবি প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘নবম ওয়েজবোর্ড নিয়ে অনেক কথাবার্তা হয়েছে। যেহেতু এটি একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে হয়েছে, চাইলেই আমার পক্ষে এককভাবে কিছু করা করা সম্ভবপর না। আপনাদের বিষয়গুলো আমি জানি। তবে, যে ওয়েজবোর্ড ঘোষণা হয়েছে, সেটি বাস্তবায়ন করা অত্যন্ত প্রয়োজন। সেই লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় মনিটরিং কমিটি আমরা করে দিয়েছি। সেখানে সাংবাদিক ইউনিয়নের প্রতিনিধিরিাও থাকবেন। আমি আশা করবো, সংবাদপত্রগুলো নবম ওয়েজবোর্ড বাস্তবায়ন করবে।’ 

করোনা ভাইরাস মোকাবিলার এ সময়ে আমাদেরকে সংবাদ সম্মেলন ও গণমাধ্যম সম্পর্কিত সভা অবশ্যই স্বল্প পরিসরেই করতে হবে এবং প্রয়োজনে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে করার কথা আমি ইতিপূর্বে বলেছি ও সে মোতাবেক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে, জানান তথ্যমন্ত্রী।  

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কালাম আজাদ, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সহ-সভাপতি এম. এ কুদ্দুস, বার্তা সম্পাদক খায়রুল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক জিহাদুর রহমান জিহাদ, দপ্তর সম্পাদক জান্নাতুল ফেরদৌস চৌধুরী, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক দুলাল খান, জনকল্যাণ সম্পাদক সোহেলী চৌধুরী, প্রচার সম্পাদক আসাদুজ্জামান, নির্বাহী পরিষদ সদস্য রাজু হামিদ প্রমুখ বৈঠকে অংশ নেন। ডিইউজে নেতৃবৃন্দ তাদের দাবি সংবলিত একটি পত্র এ সময় তথ্যমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করে।

#

আকরাম/ফারহানা/রফিকুল/আব্বাস/২০২০/১৮৫১ ঘণ্টা   

তথ্যবিবরণী                                                                                                                       নম্বর : ১০৭৮

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচি  

ঢাকা, ৯ চৈত্র (২৩ মার্চ) :

            দেশে করোনা ভাইরাসের বিস্তৃতি রোধে সরকারি কার্যক্রম সম্পর্কে আজ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সম্মেলন কক্ষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তাঁর ব্রিফের উল্লেখযোগ্য অংশ নিম্নে প্রদান করা হলো:

  • আগামী ২৬ মার্চের সরকারি ছুটি এবং ২৭-২৮ মার্চের সাপ্তাহিক ছুটির সাথে ২৯ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল ২০২০ পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে এবং ৩ ও ৪ এপ্রিল ২০২০ সাপ্তাহিক ছুটির দিন এই বন্ধের সাথে সংযুক্ত থাকবে। কাঁচাবাজার, খাবার এবং ঔষধের দোকান, হাসপাতাল এবং জরুরি সেবার জন্য এই ব্যবস্থা প্রযোজ্য হবে না।

করোনা ভাইরাসের বিস্তৃতি রোধকল্পে সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সে সঙ্গে জনসাধারণকে এই মর্মে অনুরোধ করা হয়েছে, তারা যেন এ সময় জরুরি প্রয়োজন ব্যতীত (খাদ্য দ্রব্য, ঔষধ ক্রয়, চিকিৎসা, মৃতদেহের সৎকার ইত্যাদি) কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে না আসেন।

  • এই সময়ে বিভিন্ন অফিস আদালতের প্রয়োজনীয় কার্যাবলি অন-লাইনে সম্পাদন করতে হবে। সরকারি অফিসসমূহের মধ্যে যারা প্রয়োজন মনে করবে তারা অফিস খোলা রাখবে।
  • গণপরিবহন চলাচল সীমিত থাকবে। জনসাধারণকে যথাসম্ভব গণপরিবহন পরিহারে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। যারা জরুরি প্রয়োজনে গণপরিবহন ব্যবহার করবেন তাদেরকে অবশ্যই করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হওয়া থেকে মুক্ত থাকার জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। গাড়িচালক এবং সহকারীগণকে অবশ্যই মাস্ক ও গ্লাভস পরা-সহ পর্যাপ্ত সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
  • জনগণের প্রয়োজন বিবেচনায় ছুটিকালীন বাংলাদেশ ব্যাংক সীমিত আকারে ব্যাংকিং ব্যবস্থা চালু রাখার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করবে।
  • আগামীকাল ২৪ মার্চ ২০২০ থেকে বিভাগীয় ও জেলা শহরগুলোতে সামাজিক দূরত্ব ও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সুবিধার্থে সেনাবাহিনী প্রশাসনকে সহায়তায় নিয়োজিত হবে। জেলা ম্যাজিস্ট্রেটদের সমন্বয়ে তারা জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা ব্যবস্থা, সন্দেহজনক ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টাইন ব্যবস্থা পর্যালোচনা করবে।

সেনাবাহিনী বিশেষ করে বিদেশ ফেরত ব্যক্তিদের কেউ নির্ধারিত কোয়ারেন্টাইনের বাধ্যতামূলক সময় পালনে ত্রুটি/অবহেলা করছে কিনা তা পর্যালোচনা করবে।

জেলা ম্যাজিস্ট্রেটগণ এজন্য স্থানীয় আর্মি কমান্ডারের কাছে সেনাবাহিনী কর্তৃক অবস্থা পর্যালোচনার জন্য আইনানুসারে অনুরোধ জানাবে।

  • করোনা ভাইরাসের কারণে নিম্ন-আয়ের কোনো ব্যক্তি শহরে জীবন-যাপনে অক্ষম হলে সরকার তাকে ‘ঘরে ফেরা কর্মসূচি’র অধীনে নিজ গ্রাম/ঘরে প্রয়োজনীয় সহায়তা প্রদানের ঘোষণা করছে। জেলা প্রশাসকগণ এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।
  • সরকার ভাষাণচরে এলক্ষ্যে মানুষের জন্য পর্যাপ্ত আবাসন ও জীবিকা নির্বাহের ব্যবস্থা করেছে। সে সঙ্গে আগ্রহী ব্যক্তিবর্গকে সরকার এই সুযোগ গ্রহণের আহ্বান জানাচ্ছে। ভাষাণচরের সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করে নিজেদের স্বনির্ভর করে তোলার জন্য পর্যাপ্ত সংখ্যক ব্যক্তিবর্গকে সেখানে প্রেরণের জন্য সব জেলা প্রশাসকদেরও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
  • করোনা ভাইরাসজনিত কার্যক্রম বাস্তবায়নের কারণে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আয়-অন্নসংস্থানে অসুবিধা নিরসনে জেলা প্রশাসকদের খাদ্য ও আর্থিক সাহায্য দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
  • মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ইতোমধ্যে ৫০০ ডাক্তারের তালিকা করার জন্য বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ)-কে নির্দেশ দিয়েছেন যেন তারা করোনা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে দায়িত্ব পালন করতে পারেন।
  • সবরকম সামাজিক/রাজনৈতিক/ধর্মীয় জনসমাগমে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। অসুস্থ/জ্বর/সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মসজিদে না যেতে বারংবার নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে। তা ভঙ্গ করে একজন মিরপুরে মসজিদে যাওয়ায় অন্য ব্যক্তিও আক্রান্ত হয়েছে। এ বিষয়ে ধর্মপ্রাণ ব্যক্তিদের ইসলামিক ফাউন্ডেশন এবং ধর্মীয় নেতৃবৃন্দের অনুশাসন কঠোরভাবে মেনে চলতে বিশেষ অনুরোধ জানানো হচ্ছে।

#

নসরুল/নাইচ/রাহাত/রফিকুল/রেজাউল/২০২০/১৮৪৪ ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                                         নম্বর : ১০৭৭

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় কর্তৃক

বিনামূল্যে হাসপাতালসমূহে হ্যান্ড সেনিটাইজার বিতরণ

ঢাকা, ৯ চৈত্র (২৩ মার্চ) : 

            বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (বিসিএসআইআর) কর্তৃক প্রস্তুতকৃত হ্যান্ড সেনিটাইজার গত কয়েকদিন ব্যাপী বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসক ও রোগীদের সুরক্ষায় বিতরণ করা হচ্ছে।

            ২০ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এবং ২২ মার্চ ঢাকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে এবং স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে বিতরণ করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে আরো হাসপাতালসমূহে বিতরণ করা হবে।

            এ কার্যক্রমে সরাসরি সম্পৃক্ত রয়েছেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, সিনিয়র সচিব, মোঃ আনোয়ার হোসেন, বিসিএসআইআর’র চেয়ারম্যান মোঃ ফারুক আহমেদ, বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান-সহ সংশ্লিষ্ট বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তারা।

            উল্লেখ্য, একদল স্বেচ্ছাসেবক বিভিন্ন মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালসমূহের প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড সেনিটাইজার বিতরণ করেছে। এ কার্যক্রম চলমান থাকবে।

#

বিবেকানন্দ/ফারহানা/রফিকুল/জয়নুল/২০২০/১৯২০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                                         নম্বর : ১০৭৬

করোনা ভাইরাসে মৃত ব্যক্তির দাফনের জন্য

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুসরণে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পরামর্শ

ঢাকা, ৯ চৈত্র (২৩ মার্চ) : 

            করোনা ভাইরাস সংক্রমণে মৃত ব্যক্তির দাফন ও জানাজার সময় ‘করোনা (ঈঙঠওউ ১৯) রোগে মৃত ব্যক্তির মৃতদেহ নিরাপদভাবে দাফন বা সৎকার ব্যবস্থাপনার নির্দেশনা বা স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসেজিওর (ঝঙচ)’ অনুসরণ করার জন্য সকলকে বিশেষভাবে অনুরোধ করেছে ইসলামিক ফাউন্ডেশন।

            মৃত ব্যক্তির জানাজা ও দাফন বিষয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন মোতাবেক স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনা অনুসরণ করার জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশন ইতিবাচক মত প্রদান করেছে। এ বিষয়ে বাংলাদেশের বিশিষ্ট আলেম-ওলামাদের সাথে মতবিনিময় করে উক্ত নির্দেশনার বিষয়ে শরীয়তের বিধানও অনুসরণ করা হয়েছে।

            শুধু করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি নন, আক্রান্ত হয়ে মৃত ব্যক্তির শরীর থেকেও এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে। তাই এই রোগে মৃত ব্যক্তিকে পরিষ্কার করা বা ধোয়ার সময় নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থার প্রতি সতর্ক থাকার জন্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

            নির্দেশনা অনুযায়ী, করোনায় আক্রান্ত হয়ে বা সন্দেহভাজন কেউ মারা গেলে মৃতদেহ সরানো, সৎকার বা দাফন শুরুর আগে অবশ্যই সরকারের রোগতত্ত¦, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) কে জানাতে হবে। চার সদস্যের একটি দল সম্পূর্ণ সুরক্ষা পোশাক পরে মৃতদেহ সৎকার বা দাফনের জন্য প্রস্তুত করবে। মৃত্যুর স্থানেই মৃতদেহ প্লাস্টিকের কাভার দিয়ে মুড়িয়ে রাখতে হবে। কোথায় কবর দেওয়া হবে, সেটিও ঠিক করে রাখতে হবে।

            ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া রোধে মরদেহ গোসল করানো যাবে না উল্লেখ করে নির্দেশনায় বলা হয়েছে, পরিবারের অনুরোধ থাকলে মরদেহ গোসলের পরিবর্তে তায়াম্মুম বা পানি ছাড়া অজু করানো যাবে। আর পরিবারের পক্ষ থেকে কাফনের কাপড়ের জন্য অনুরোধ থাকলে সেলাইবিহীন সাদা সুতির কাপড় কাফনের কাপড় হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। কাফনের কাপড় প্লাস্টিকের ব্যাগে রেখে তার ওপর মরদেহ রাখতে হবে এবং দ্রুত ব্যাগের জিপার বন্ধ করতে হবে। ব্যাগে কাফনের কাপড় দেওয়ার সময় যারা মরদেহ উঁচু করে ধরবেন, তাঁদের অবশ্যই সুরক্ষা পোশাক পরে থাকতে হবে।

            নির্দেশনায় আরো বলা হয়েছে, মৃতদেহ সৎকারের জন্য মৃতদেহের সব ছিদ্রপথ (নাক, কান, পায়ুপথ ইত্যাদি) তুলা দিয়ে ভালো করে বন্ধ করে দিতে হবে, যাতে কোনো তরল গড়িয়ে না পড়ে। এরপর সংক্ষিপ্ত রুটে দ্রুততম সময়ের মধ্যে মৃতদেহ সমাধিস্থলে নিয়ে যেতে হবে।

            পরিবহনে ব্যবহৃত গাড়ি সম্পর্কে বলা হয়েছে, যাত্রাকালীন সুরক্ষা নিশ্চিত করতে মৃতদেহটি দাফন পরিচালনাকারী দলের কাছে হস্তান্তর করতে হবে। পরিবহনে ব্যবহৃত গাড়িতে দু’টি অংশ থাকতে হবে, যাতে চালক ও পরিবহন কামরার মধ্যে প্রতিরক্ষামূলক কাচ বা প্লাস্টিকের আবরণ থাকে। পরিবহনের পর ব্যবহৃত বাহনটি জীবাণুমুক্ত করে নিতে হবে। এ সময় জীবাণুমুক্ত করার কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিকে অবশ্যই প্রতিরক্ষামূলক পোশাক পরতে হবে। দাফনের সময় মৃতদেহ বহনকারী ব্যাগটি কখনোই খোলা যাবে না।

            দাফনের পর কবর বা সমাধিস্থানটি ১০ থেকে ১৫ সেন্টিমিটার গভীর মাটির স্তর দিয়ে ঢাকার পাশাপাশি দাফন করা স্থানের আশপাশ উপযুক্ত জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কারও করতে বলা হয়েছে নির্দেশনায়। এ ছাড়া মৃত ব্যক্তি যে স্থানে মারা গেছেন, সেই স্থানটিও যত দ্রুত সম্ভব জীবাণুমুক্ত করা এবং মৃতদেহ দাফনের পর সেই স্থান ভালোভাবে ঘিরে রাখতে বলা হয়েছে।

            অন্যদিকে নির্দেশনা অনুযায়ী, করোনায় সন্দেহভাজন কারও মৃত্যু হলেও সমান সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। করোনা আক্রান্ত মৃতদেহ কখনোই ময়নাতদন্ত করা যাবে না। আর মৃতদেহ পোড়ালে দেহাবশেষ বা ছাই থেকে করোনা ভাইরাস ছড়ায় না।

            এ বিষয়ে জনমনে কোনো বিভ্রান্তি, গুজব বা শঙ্কা যাতে না ছড়াতে পারে সেজন্য সঠিকভাবে সকলের সচেতনতা সৃষ্টির জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের বিভাগ, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের কর্মীবৃন্দ, মসজিদভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের শিক্ষকবৃন্দ-সহ সকল মসজিদের ইমাম, খতিব ও মুয়াজ্জিনগণকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়েছে।

#

আনিস মাহমুদ/পরীক্ষিৎ/নাইচ/রফিকুল/জয়নুল/২০২০/১৮৩০ঘণ্টা

তথ্যবিবরণী                                                                                                   নম্বর : ১০৭৫

জুম পদ্ধতির ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অফিস করলেন আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক

ঢাকা, ৯ চৈত্র (২৩ মার্চ) : 

          তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক আজ আগারগাঁওস্থ আইসিটি টাওয়ারে তাঁর অফিস কক্ষ থেকে জুম অনলাইন পদ্ধতিতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অফিসের দৈনন্দিন কার্যক্রম পরিচালনা ও নাটোর জেলা প্রশাসনের সাথে মতবিনিময় করেন।

          প্রতিমন্ত্রী করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রযুক্তি ব্যবহার করে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসেডিওর (এসওপি), বিজনেস কনটিনিউটিং প্ল্যান (বিসিপি) এর মাধ্যমে নিরবচ্ছিন্ন নিরাপদ নেটওয়ার্ক, ঘরে বসে স্বাস্থ্য সেবা, ঘরে বসে শিক্ষা, নিরবচ্ছিন্ন সরবরাহ এবং ঘরে বসে বিনোদনসহ গুরুত্বপূর্ণ সেবা চালু রাখতে কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নে আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলম, বিটিআরসি’র চেয়ারম্যান জহিরুল হক, এটুআই এর পলিসি এডভাইজার আনীর চৌধুরীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাথে জুম অনলাইন পদ্ধতিতে মতবিনিময় করেন।

          এছাড়া তিনি আইসিটি বিভাগ ও এর অধীন বিভিন্ন দপ্তর সংস্থার প্রধান ও প্রকল্প পরিচালকদের সাথে অফিসের কার্যক্রম ও প্রকল্পসমুহের সর্বশেষ অগ্রগতির বিষয়ে অবহিত হন এবং কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করেন। ভিডিও কনফারেন্সিংয়ে প্রতিমন্ত্রীর সাথে যুক্ত হন বিভাগের সিনিয়র সচিব, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক, তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ বিভিন্ন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালকগণ।

          পরে প্রতিমন্ত্রী নিজ জেলা নাটোরের জেলা প্রশাসন, পুলিশ সুপার, সিভিল সার্জন ও সিংড়া উপজেলা প্রশাসনের সাথে করোনাভাইরাস বিষয়ে মতবিনিময় করেন। জেলা প্রশাসন করোনাভাইরাসের সর্বশেষ পরিস্থিতি প্রতিমন্ত্রীকে অবহিত করেন। প্রতিমন্ত্রী তাঁর নির্বাচনী এলাকা সিংড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ডাক্তার, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কথা বলেন। তিনি করোনাভাইরাসের সংক্রমন বিষয়ে সাবধানতা অবলম্বনে

2020-03-23-21-01-a3e1fcb15c1d5ac747721984bdc37df9.docx 2020-03-23-21-01-a3e1fcb15c1d5ac747721984bdc37df9.docx

Share with :

Facebook Facebook