তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ৮ অক্টোবর ২০১৮

তথ্যবিবরণী 7/10/2018

তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৭৭৪
সিঙ্গাপুরে ‘বাংলাদেশ উন্নয়ন মেলা ২০১৮’ অনুষ্ঠিত
সিঙ্গাপুর, ৭ অক্টোবর :
গত এক দশকে বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়ন এবং সরকারের অর্জন সমূহকে তুলে ধরার প্রয়াসে দেশে-বিদেশে চলমান উন্নয়ন মেলার সঙ্গে মিল রেখে বাংলাদেশ হাইকমিশন, সিঙ্গাপুরের উদ্যোগে আজ ‘বাংলাদেশ উন্নয়ন মেলা ২০১৮’ আয়োজন করা হয়। মেলার শুরুতে ‘উন্নয়নের অভিযাত্রায় অদম্য বাংলাদেশ’ বিষয়ক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। হাইকমিশনার বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপনপূর্বক গত এক দশকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে বিভিন্ন উন্নয়ন সূচকে বাংলাদেশ যে অভূতপূর্ব সাফল্য  অর্জন করেছে, সেগুলোর প্রতি আলোকপাত করেন। 
অনুষ্ঠানে বর্তমান সরকার গৃহীত বিভিন্ন জনকল্যাণমুখী প্রকল্প, সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় সুবিধাবঞ্চিত প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে বিভিন্ন কল্যাণমূলক প্রকল্প গ্রহণ, বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিতকরণসহ আর্থসামাজিক উন্নয়ন নিশ্চিতে সরকারের প্রচেষ্টা ও সাফল্যের চিত্র তুলে ধরা হয়। হাইকমিশনার সরকারের ভিশন ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে সবাইকে বিশেষ করে সিঙ্গাপুর প্রবাসী বাংলাদেশিদের অবদান রাখার আহ্বান জানান এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে তাদের সহযোগিতা কামনা করেন। মেলায় বাংলাদেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের ওপর একটি প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। 
দূতাবাস প্রাঙ্গণে স্থাপিত বিভিন্ন স্টলে বাংলাদেশি হস্তশিল্প, কারুপণ্য, রপ্তানি পণ্য, দেশীয় খাবার, বাংলা বই, পর্যটন সংক্রান্ত পোস্টার প্রদর্শন করা হয়। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি এবং বিদেশি অতিথির উপস্থিতিতে মেলা প্রাঙ্গণ মুখরিত হয়ে ওঠে। উপস্থিত সকলেই হাইকমিশনের এ ধরনের ব্যতিক্রমী উদ্যোগের প্রশংসা করেন। অনুষ্ঠানশেষে অতিথি-দর্শনার্থীদেরকে বাংলাদেশি খাবার সহযোগে আপ্যায়ন করা হয়।
#
মেজবাহ উদ্দিন/ফারহানা/মোশারফ/জয়নুল/২০১৮/২২০০ঘণ্টা  
তথ্যবিবরণী                                                                                                  নম্বর : ২৭৭৩
প্রতিবন্ধিতাবান্ধব দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্সের ৩য় সভা অনুষ্ঠিত
ঢাকা, ২২ আশ্বিন (৭ অক্টোবর) :
প্রতিবন্ধিতাবান্ধব দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা বিষয়ক জাতীয় টাস্কফোর্সের ৩য় সভা আজ দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বীরবিক্রম সভাপতিত্ব করেন। এডভোকেসি গ্রুপ অন ডিসএবিলিটি ইনক্লুসিভ ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্টের ফোকাল পয়েন্ট সায়মা হোসেনসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সদস্যগণ সভায় উপস্থিত ছিলেন।
সভায় জানানো হয়, এ পর্যন্ত দেশব্যাপী ১৫ লাখ ৯৩ হাজার ৭০ জন প্রতিবন্ধী ব্যক্তি শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে ঘূর্ণিঝড়প্রবণ ১৯টি জেলায় ৪ লাখ ৩৩ হাজার প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে নিবন্ধন করা হয়েছে। এ কার্যক্রম চলমান। 
সভায় আরো জানানো হয়, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের লিঙ্গ, বয়স, পেশা ও শ্রেণিভিত্তিক উপাত্ত সংগ্রহের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এ পর্যন্ত ১৯ হাজার রোহিঙ্গা নারী ও শিশুকে মনোসামাজিক কাউন্সেলিং করা হয়েছে বলে সভায় উল্লেখ করা হয়। প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের বিভিন্ন পর্যায়ে প্রশিক্ষণ প্রদানের নিমিত্ত প্রশিক্ষক ও প্রশিক্ষণের সংখ্যা বাড়ানোর ওপর সায়মা হোসেন গুরুত্বারোপ করেন। এ সময় সভায় জানানো হয়, এ পর্যন্ত ৩ হাজার ১ শত ৫ জন কর্মকর্তা ও শিক্ষককে প্রশিক্ষক হিসেবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। তারা প্রান্তিক পর্যায়ে প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকবেন। প্রশিক্ষণ মডিউল হালনাগাদ করার ওপরও সায়মা হোসেন গুরুত্বারোপ করেন।
সভায় মে মাসে অনুষ্ঠিত প্রতিবন্ধিতা ও দুর্যোগ ঝুঁকি ব্যবস্থাপনা বিষয়ক ২য় আন্তর্জাতিক সম্মেলন নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। সভায় জানানো হয়, ২০১৮ সালের জুলাই মাসে মঙ্গোলিয়ার রাজধানী উলান বাটোরে অনুষ্ঠিত এশিয়ান মিনিস্টিরিয়াল কনফারেন্স অন ডিজাস্টার রিস্ক রিডাকশনের ঘোষণায় ‘ঢাকা ঘোষণা ২০১৫+’ ভূয়সী প্রশংসা পেয়েছে। আলোচনায় ঢাকা ঘোষণা ও এর বাস্তবায়ন কৌশলের কথা উঠে আসে। সভায় জানানো হয়, ঢাকা ঘোষণার আলোকে নির্দিষ্ট কর্মপন্থা নিয়ে কাজ করছে মন্ত্রণালয়। বিশেষত বছরভিত্তিক টার্গেট নিয়ে বিভিন্ন দেশের সাথে মতবিনিময় করা হচ্ছে। সভায় জানানো হয়, ঢাকা ঘোষণায় ২০২১ সালের মধ্যে ২০টি দেশকে প্রতিবন্ধী জেন্ডার ও বয়স সংবেদনশীল প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করার কথা বলা হয়েছে। একই সময়ের মধ্যে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সিদ্ধান্ত গ্রহণে নেতৃত্ব প্রদানের সক্ষমতা অর্জনের সুযোগ সৃষ্টির কথা বলা হয়েছে।
সার্বজনীন রূপরেখার নীতি অনুসরণ করে দুর্যোগ সহনশীল অবকাঠামো নির্মাণের মডেল প্রতিষ্ঠা ও স্থানীয় পর্যায়ে এর প্রচলনের লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ২০২১ সালের মধ্যে অন্তত ২০টি দেশকে।
গ্লোবাল ফ্লাটফর্ম অভ্ ডিজাস্টার রিস্ক রিডাকশনের ৬ষ্ঠ সম্মেলনে ঢাকা ঘোষণা বিশদভাবে তুলে ধরা হবে বলে সভায় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
#
ওমর ফারুক/সেলিম/সঞ্জীব/জয়নুল/২০১৮/১৯৩০ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৭৭২
ব্রাজিল বাংলাদেশের সাথে এফটিএ স্বাক্ষর এবং চেম্বার গঠন করতে আগ্রহী
---বাণিজ্যমন্ত্রী
ঢাকা, ২২ আশ্বিন (৭ অক্টোবর ):
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ব্রাজিল-বাংলাদেশ চেম্বার গঠন ও উভয় দেশের বাণিজ্য বৃদ্ধির জন্য এফটিএ স্বাক্ষরের বিষয়ে একমত। ব্রাজিল-বাংলাদেশ চেম্বার গঠনের উভয় দেশের ব্যবসায়ীগণ বাণিজ্যে উৎসাহিত হবে। পারস্পরিক যোগাযোগ বৃদ্ধি পাবে। ব্রাজিল বাংলাদেশের তৈরিপোশাকের একটি সম্ভাবনাময় বাজার। কিন্তু অধিক টেরিফের কারণে ব্রাজিলে আশানুরূপ রপ্তানি করতে পারছে না বাংলাদেশ। এফটিএ স্বাক্ষরের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্রাজিলের কাছ থেকে বাণিজ্য সুবিধা পেতে পারে। 
বাণিজ্যমন্ত্রী আজ বাংলাদেশ সচিবালয়ে বাংলাদেশে ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত ঔড়ব্দড় ঞধনধলধৎধ ফব ঙষরাবরৎধ ঔúহরড়ৎ এর সাথে মতবিনিময় করে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন।
ব্রাজিলের রাষ্ট্রদূত বলেন, বাংলাদেশ ব্রাজিলের বন্ধুরাষ্ট্র। দু’দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। ব্রাজিল বাংলাদেশের সাথে বাণিজ্য বৃদ্ধি করতে আগ্রহী। দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্যে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে উভয় দেশের মধ্যে ব্যবসায়ীদের নিয়ে চেম্বার গঠন এবং এফটিএ স্বাক্ষর হওয়া প্রয়োজন। 
এ সময় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব শুভাশীষ বসু ও অতিরিক্ত সচিব (টিও) মোঃ ওবায়দুল আজম উপস্থিত ছিলেন।
#
বকসি/সেলিম/রফিকুল/আব্বাস/২০১৮/১৯০০ ঘণ্টা  
তথ্যবিবরণী                                                                                                    নম্বর : ২৭৭১
শিশুর প্রতিটি প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করতে হবে
                         ---মেহের আফরোজ চুমকি 
ঢাকা, ২২ আশ্বিন (৭ অক্টোবর ) :
মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি বলেছেন, শিশুরা কৌতূহলী তারা নানা বিষয়ে প্রশ্ন করে। শূন্য থেকে ৫ বছর বয়সের মধ্যে শিশুর ৮০ শতাংশ বিকাশ সাধিত হয়। তাই শিশুকে ধমক দেয়া, প্রহার করা কিংবা অপমান করা থেকে  বিরত থাকতে  হবে। তাদের প্রত্যেকটি প্রশ্নের উত্তর দেয়ার চেষ্টা করতে হবে। 
প্রতিমন্ত্রী আজ বাংলাদেশ শিশু একাডেমি মিলনায়তনে বিশ্ব শিশু দিবস ও বিশ্ব শিশু অধিকার সপ্তাহের কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। বিশ্ব শিশু দিবসের প্রতিপাদ্য ‘গড়তে শিশুর ভবিষ্যৎ, স্কুল হবে নিরাপদ’।
মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগমের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন  মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব লায়লা জেসমিন, ইউনিসেফ বাংলাদেশের চাইল্ড প্রোটেকশন সেকশনের চিফ জন লিবি। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ শিশু একাডেমির পরিচালক আনজির লিটন।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, শিশুরা হলো আমাদের আগামী। আগামী দিনকে সমৃদ্ধ করতে হলে সুস্থ শিশুর বিকল্প নেই। সুস্থ শিশুর  পূর্বশর্ত সুস্থ মা। প্রতিটি নারী কারো ও না কারো মা। আমাদের আগামীকে সুন্দর করতে হলে প্রতিটি  নারীকে ভাল রাখতে হবে। তাদের যতœ নিতে হবে।
অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লেখা বই ‘আমাদের ছোট রাসেল সোনা’ বইয়ের ব্রেইলের মোড়ক উন্মোচন করেন এবং এক জন প্রতিবন্ধীর হাতে ব্রেইল তুলে দেন। আলোচনা সভা শেষে প্রতিমন্ত্রী শিশু একাডেমির প্রাঙ্গণে ৭ দিনব্যাপি খেলনা মেলার উদ্বোধন করেন।  নানা আয়োজনে মন্ত্রণালয় বিশ্ব শিশু দিবস ও বিশ্ব শিশু অধিকার সপ্তাহ  উদ্যাপন করবে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে ৮ তারিখ বিকাল ৩টায় ‘আমার কথা শোন’  শিরোনামে আলোচনা সভা, যেখানে শিশুরা  বলবে বড়রা শুনবে। ৯ তারিখ সকাল ১০টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়  জগন্নাথ হল খেলার মাঠে পথশিশু সমাবেশ, বিভিন্ন প্রতিযোগিতা ও খেলাধুলার উদ্বোধন। সকাল ১০.৪৫ টায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমিতে পথশিশুদের  আর্ট ক্যাম্প  উদ্বোধন। সকাল ১১.৩০ টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ  দিবস উপলক্ষে মানববন্ধন। ১০ তারিখ  সকাল ৯টায়  জাতীয় কন্যাশিশু  দিবস উপলক্ষে  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে  র‌্যালি। কন্যাশিশু দিবসের  প্রতিপাদ্য ‘থাকলে কন্যা সুরক্ষিত, দেশ হবে আলোকিত’।  
তাছাড়া প্রতিদিন  বিকাল ৩টায়  শিশু একাডেমি মিলনায়তনে আমার কথা শোন শিরোনোমে একটি  অনুষ্ঠান করা হবে। সেখানে শিশুরা বলবে বড়রা শুনবে এবং প্রতিদিন  বিকাল ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৮টা পর্যন্ত  বাংলাদেশ শিশু একাডেমি  প্রাঙ্গণে শিশুদের খেলনা মেলা চলবে। মেলায় প্রতিদিন ১০০ শিশুকে ফ্রি  খেলনা উপহার দেয়া হবে।
#
খায়ের/সেলিম/রফিকুল/আব্বাস/২০১৮/১৮২২ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৭৭০
বাংলাদেশ হাইকমিশনের উদ্যোগে  ইসলামাবাদে ৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলা 
ইসলামাবাদ, ৭ অক্টোবর :
বাংলাদেশ হাইকমিশন ৬ অক্টোবর পাকিস্তানের রাজধানী ইসলামাবাদে আনন্দ ও উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ‘৪র্থ জাতীয় উন্নয়ন মেলার’ আয়োজন করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিগত  এক দশকে দেশে বিভিন্ন আর্থসামাজিক ক্ষেত্রে যে অভূতপূর্ব উন্নয়ন ও অগ্রগতি সাধিত হয়েছে তা প্রবাসী বাংলাদেশি, স্থানীয় গণ্যমাণ্য ব্যক্তি ও বিদেশি কূটনীতিবিদদের কাছে যথাযথ ভাবে তুলে ধরার লক্ষ্যে এই মেলার আয়োজন করা হয়। 
ইসলামাবাদের সেরিনা হোটেলে আয়োজিত এ মেলায় বাংলাদেশের আর্থসামাজিক ও অবকাঠামো উন্নয়নের বেশ কয়েকটি বাধাইকৃত বৃহদাকৃতির পোস্টার এবং বিভিন্ন তথ্যসমৃদ্ধ প্রদর্শনী বোর্ড স্থাপন করা হয়।
মেলার শুরুতে পাকিস্তানে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার  তারিক  আহসান তাঁর স্বাগত বক্তব্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি শান্তিময় সমৃদ্ধ ‘সোনার বাংলা’  গড়ার স্বপ্নের কথা স্মরণ করেন। তিনি বলেন,  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সর্বক্ষেত্রে উন্নয়ন সাধনের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা’ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে জাতিকে নেতৃত্ব দিয়ে চলেছেন।  হাইকমিশনার গত  এক দশকে দেশে দারিদ্র্যের হার ২০ শতাংশে কমিয়ে আনা, সাক্ষরতার  হার ৭২.৯ ভাগ বৃদ্ধি পাওয়া, মানুষের গড় আয়ু বেড়ে ৭২ বছরে উন্নীত হওয়া এবং জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭.৮৬ শতাংশে উন্নীত হওয়ার কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন। আগামী প্রজন্মের জন্য একটি উন্নত ভবিষ্যৎ রেখে যাবার লক্ষ্যে রূপকল্প ২০২১, রূপকল্প ২০৪১ এবং ডেল্টা প্ল্যান ২১০০ এর আওতায় সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচি ও পরিকল্পনার কথা হাইকমিশনার উল্লেখ করেন।   
পাকিস্তান ও বাংলাদেশে নিযুক্ত তিউনিসিয়া রাষ্ট্রদূত আদেল এলারবি এবং পাকিস্তানের বিশিষ্ট মানবাধিকার ও উন্নয়ন কর্মী তাহিরা আবদুল্লাহ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। তাহিরা আবদুল্লাহ নারীর ক্ষমতায়নসহ বিভিন্ন সামাজিক উন্নয়ন সূচকে দক্ষিণ এশিয়ার দেশকে পিছনে ফেলে বাংলাদেশের এগিয়ে যাওয়ার ভূয়সী প্রশংসা করেন। মেলায় আর্থসামাজিক ও অবকাঠামো উন্নয়নের ওপর ভিত্তি করে নির্মিত বেশ কয়েকটি প্রামাণ্য ভিডিও চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়।
 বিভিন্ন মিশনের রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার, প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা, স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ, ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ, প্রবাসী বাংলাদেশি নাগরিকগণ এবং বাংলাদেশ হাইকমিশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ মেলার অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।  
#
ইকবাল/রিফাত/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৮/১৬৩৫ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                          নম্বর : ২৭৬৯
৯-১০ অক্টোবর ঢাকায় ‘সাউথ এশিয়া মেরিটাইম এন্ড লজিস্টিক্স ফোরাম ২০১৮’ এর সম্মেলন : 
উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী
ঢাকা, ২২ আশ্বিন (৭ অক্টোবর ):
বাংলাদেশের নৌপরিবহন সেক্টরের শিল্প উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়িদের আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে মেরিটাইম ও লজিস্টিক্সখাতের বর্তমান অবস্থা ও ট্রেড সম্পর্কে আরো বেশি অবহিতকরণ, নৌপরিবহনখাতের অবকাঠামো উন্নয়নে বিনিয়োগ আকৃষ্ট এবং নতুন প্রযুক্তির উদ্ভাবন করতে আগামী ৯-১০ অক্টোবর ঢাকায় হোটেল লা মেরিডিয়ানে ‘সাউথ এশিয়া মেরিটাইম এন্ড লজিস্টিক্স ফোরাম ২০১৮’ এর দ্বিতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। 
নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান আজ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ‘সাউথ এশিয়া মেরিটাইম এন্ড লজিস্টিক্স ফোরাম ২০১৮’ এর দ্বিতীয় সম্মেলন আয়োজন উপলক্ষে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এসব কথা বলেন। 
নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ভারতের ‘গেটওয়ে’ মিডিয়া প্রাইভেট লিমিটেড এবং শ্রীংলকার কলম্বো মেরিটাইম কনফারেন্স ইভেন্টস (সিআইএমসি) এর সহযোগিতায় এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। গত বছরের সেপ্টেম্বরে ভারতের মুম্বাইতে ফোরামের প্রথম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
আগামী ৯ অক্টোবর বিকাল ৪ টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ফোরামের উদ্বোধন করবেন। বাংলাদেশের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিবগণ এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন। এছাড়া  আমেরিকা, ভারত, শ্রীলংকার, সিঙ্গাপুর, নেপাল ও ভুটানের মন্ত্রী, সচিব ও উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণসহ বিভিন্ন দেশ থেকে নৌখাতের সংশ্লিষ্ট বাণিজ্য ও শিল্পের সাথে সম্পৃক্ত ব্যক্তিগণ উক্ত সম্মেলনে যোগদান করবেন বলে আশা করা যাচ্ছে। 
নৌসচিব মো. আবদুস সামাদ এবং নৌপরিবহন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কমডোর সৈয়দ আরিফুল ইসলাম সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন।
#
জাহাঙ্গীর/রিফাত/রেজ্জাকুল/কুতুব/২০১৮/১৫৫২ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৭৬৮
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ম বর্ষ স্নাতক (সম্মান) শ্রেণির ভর্তির সময় বৃদ্ধি  
ঢাকা, ২২ আশ্বিন (৭ অক্টোবর ):
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ১ম বর্ষ ¯œাতক (সম্মান) ভর্তি কার্যক্রমে বিষয়ভিত্তিক ১ম মেধাতালিকায় স্থানপ্রাপ্ত প্রার্থীদের চূড়ান্ত ভর্তির সময় আগামী ১০ অক্টোবর রাত ১২ টা পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে। 
এ ভর্তি সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইট (িি.িহঁ.ধপ.নফ/ধফসরংংরড়হং) থেকে জানা যাবে। 
#
ফয়জুল/রিফাত/জসীম/রেজ্জাকুল/কুতুব/২০১৮/১৫৩০ ঘণ্টা 
তথ্যবিবরণী                                                                                           নম্বর : ২৭৬৭ 
মতলবে ৭০ কিলোমিটার নতুন বিদ্যুৎলাইনের উদ্বোধন 
মতলব উত্তর (চাঁদপুর), ২২ আশ্বিন (৭ অক্টোবর) :  
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীরবিক্রম বলেছেন, সরকার এ বছরের মধ্যে সকলের ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছাতে বদ্ধপরিকর। ইতিমধ্যে অনেক উপজেলাতেই শতভাগ বিদ্যুতায়ন হয়েছে।  বাকী উপজেলাগুলোতেও শতভাগ বিদ্যুতায়ন ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে। 
মন্ত্রী ৬ অক্টোবর চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলার নিজ বাসভবন প্রাঙ্গণে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মতলব উত্তর ও দক্ষিণ উপজেলার ৭০ কিলোমিটার বিদ্যুতের নতুন লাইন উদ্বোধন করেন। 
মন্ত্রী বলেন, বিদ্যুতের প্রায় শুন্য অবস্থা নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকার দেশের ক্ষমতা গ্রহণ করে। অবিরাম লোডশেডিং এর জন্য মানুষের জীবন ওষ্ঠাগত ছিল, কলকারখানা বন্ধ হয়ে যাচ্ছিল। সে অবস্থা থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে দেশ আজ লোডশেডিংমুক্ত হয়েছে। তিনি বলেন, জাতীয় প্রবৃদ্ধির অন্যতম কারণ কলকারখানায় নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের ব্যবস্থাকরণ। দেশে বিদ্যুতের ক্রমবর্ধমান চাহিদার পরও ২৪ ঘন্টা বিদ্যুৎ পরিস্থিতি সচল রাখাকে সরকারের বিরাট অর্জন বলে মন্ত্রী উল্লেখ করেন। 
মতলব উত্তর ও দক্ষিণ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানগণ, স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাগণ ও নেতৃবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। 
#
ওমর ফারুক/রিফাত/রেজ্জাকুল/আসমা/২০১৮/১৫৩০ ঘণ্টা  
Todays handout (5).docx Todays handout (5).docx

Share with :

Facebook Facebook