তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭

তথ্যবিবরণী ২৯ ডিসেম্বর ২০১৭

তথ্যবিবরণী                                                                          নম্বর : ৩৫৯৪
 
সুস্থধারার সংস্কৃতিচর্চা সমাজকে সত্য, সুন্দর ও আলোর পথ দেখায়
             ---সমবায় প্রতিমন্ত্রী
ঢাকা, ১৫ পৌষ (২৯ ডিসেম্বর) : 
 
পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মোঃ মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ বলেছেন, সুস্থধারার সংস্কৃতিচর্চা সমাজকে সত্য, সুন্দর ও আলোর পথ দেখায়। নতুন প্রজন্মকে মননশীল সাংস্কৃতিক কর্মকা-ে ব্যাপকভাবে সম্পৃক্ত না করায় একটা অংশ বিপথগামী হয়ে সন্ত্রাস, মাদক ও জঙ্গিবাদের দিকে ধাবিত হচ্ছে। এদের অভিনয়, সংগীত, নৃত্য ও অভিনয়চর্চায় বেশি বেশি করে সুযোগ দিতে সরকারি উদ্যোগের পাশাপাশি সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন ও দেশপ্রেমিকদের পরিকল্পিত কার্যক্রম নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। 
 
প্রতিমন্ত্রী আজ রাজধানীর বেইলি রোড অফিসার্স ক্লাবে আয়োজিত সাঁকো টেলিফিল্ম অ্যাওয়ার্ড-২০১৬ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতা করছিলেন। সংগঠনের উপদেষ্টা মনিরুজ্জামান মনির এর সভাপতিত্বে এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলা টিভির ভাইস চেয়ারম্যান নিশাদ দস্তগীর, সুইডেনভিত্তিক এশিয়ান কিচেন ইন্টারন্যাশনাল এর চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল হাছান ও সংগঠনের পরিচালক নাজমুল খান।  
 
পরে প্রতিমন্ত্রী সাঁকো টেলিফিল্ম এর পক্ষ থেকে সংবর্ধিত গুণীজনদের হাতে পদক তুলে দেন। পদকপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গ হলেন চলচ্চিত্র অভিনয়ে ইমন, নিপুণ, সংগীতে জাহাঙ্গীর সাঈদ, কোনাল, নৃত্য পরিচালনায় ইভান শাহারিয়ার সোহাগ, সাবিলা নুর, সংবাদ পাঠে ফয়জুল্লাহ সাঈদ, শাহানা চৌধুরী সুমী ও বিশেষ পুরস্কারে- দিঘি। সঙ্গীত জগতে বিশেষ অবদান রাখায় সৈয়দ আব্দুল হাদী আজীবন সম্মাননা পদক পান। 
 
 
#
আহসান/সেলিম/মোশারফ/আব্বাস/২০১৭/২০২২ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                        নম্বর :  ৩৫৯৩
 
লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনকে কার্যকর করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে
                           ---আসাদুজ্জামান নূর 
ঢাকা, ১৫ পৌষ (২৯ ডিসেম্বর) :  
 
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশনায় ও শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনকে একটি সত্যিকার অর্থে কার্যকর প্রতিষ্ঠানে রূপান্তরের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। লোকশিল্প জাদুঘরকে আরো সমৃদ্ধকরণসহ এটিকে সম্প্রসারণের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত একটি প্রকল্প প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। লোকশিল্পীদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রস্তুতের জন্য জরিপ কাজ শুরু হয়েছে। তাছাড়া এ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় গবেষণাকর্মের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। অচিরেই প্রতিষ্ঠানটিতে ব্যাপক পরিবর্তন আনয়নপূর্বক জয়নুল আবেদিনের স্বপ্নের লোক ও কারুশিল্পবান্ধব একটি প্রতিষ্ঠানে রূপান্তর করা হবে।
মন্ত্রী আজ সকালে রাজধানীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের বকুলতলায় শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনের ১০৩তম জন্মজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে চারুকলা অনুষদ আয়োজিত “জয়নুল উৎসব ২০১’’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু সবসময় কবি, লেখক ও শিল্পীদের পাশে ছিলেন এবং তাদের যথাযথ সম্মান দিয়েছিলেন। বর্তমান সরকার বঙ্গবন্ধুর পদাংক অনুসরণ করে একইভাবে কবি, লেখক ও শিল্পীদের যথাযথ সম্মান এবং সুযোগ-সুবিধা প্রদানের চেষ্টা করছে । শিল্পকলায় ৬৫ জন ভারতীয় শিল্পীর ছাপচিত্রের প্রদর্শনী চলছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এতে করে ভারত ও বাংলাদেশ দুই বন্ধুপ্রতিম দেশের মধ্যে শিল্প ও সাংস্কৃতিক বন্ধন দৃঢ হবে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এর সেক্রেটারি জেনারেল এম সহিদুল ইসলাম এবং প্রকৌশলী ময়নুল আবেদিন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক নিসার হোসেন।
 
#
ফয়সল/সেলিম/মোশারফ/আব্বাস/২০১৭/১৯২৬ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                   নম্বর :  ৩৫৯২
 
বইয়ের প্রতি মানুষের আগ্রহ বাড়ানোর চেষ্টা চলছে 
---সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী
ঢাকা, ১৫ পৌষ (২৯ ডিসেম্বর) : 
 
সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন, বই পাঠের প্রতি কিভাবে মানুষের  আগ্রহ বাড়ানো যায়, সে লক্ষ্যে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় কাজ করে যাচ্ছে। সাধারণ মানুষকে গ্রন্থাগারের প্রতি আকৃষ্ট করার লক্ষ্যে ব্রিটিশ কাউন্সিলের সঙ্গে কাজ করছে সরকার। উন্নত বিশ্বের আদলে লাইব্রেরিকে নিত্যপ্রয়োজনীয় সকল সুযোগসুবিধা সম্পন্ন ওয়ানস্টপ সেন্টারে পরিণত করা হবে যাতে লাইব্রেরির প্রতি সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের আগ্রহ বাড়ে। বইমেলাকে তথাকথিত জনসমাগম কেন্দ্রে পরিণত না করে এটিকে সত্যিকার অর্থে বইপ্রেমীদের একটি মিলনমেলায় পরিণত করার প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। সে লক্ষ্যে এবার আমরা ১৬টি জেলায় বিশেষ বইমেলা করার উদ্যোগ গ্রহণ করেছি-যেখানে রাজধানী ঢাকা থেকে ৭০-৮০টি প্রকাশনা সংস্থা অংশগ্রহণ করবে। 
মন্ত্রী আজ সকালে রাজধানীর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র ভবনের ৮ম তলায় প্রায় ৫০০০ বর্গফুটের ওপর গড়ে তোলা একটি সুপরিসর, আধুনিক ও মানসম্পন্ন বইয়ের সুপার স্টোর “ঢাকা বাতিঘর“ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, বইয়ের প্রতি আবেগ ও ভালোবাসা আছে বলেই বাতিঘর এর কর্ণধার দীপংকর দাশ এ মহাকর্মযজ্ঞ সাধন করতে পেরেছেন। সবাইকে বই কেনার আহ্বান জানিয়ে তিনি আরো বলেন, যদি প্রত্যেকে একটি করে বই কিনি তবেই বাতিঘর তার আলো ছড়াবে।
বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন এমেরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী এবং বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান। বাতিঘর সম্পর্কে বিস্তারিত আলোকপাত করেন প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার দীপংকর দাশ।
আভ্যন্তরীণ সজ্জায় মুঘল স্থাপত্য বিশেষত লালবাগ কেল্লার আদলে নির্মিত ঢাকা বাতিঘরে থাকছে শতাধিক বিষয়ের ওপর দশ হাজারের অধিক লেখকের এক হাজারের বেশি দেশি-বিদেশি প্রকাশনা সংস্থার লক্ষাধিক বইয়ের সংগ্রহ।
 
#
ফয়সল/সেলিম/মোশারফ/আব্বাস/২০১৭/১৯১৩ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                নম্বর : ৩৫৯১
 
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বরফ গলতে শুরু করেছে 
                                      -- সেতুমন্ত্রী
 
উখিয়া (কক্সবাজার), ১৫ পৌষ (২৯ ডিসেম্বর) ঃ 
 
রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে বরফ গলতে শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। মন্ত্রী আজ সকালে কক্সবাজারের উখিয়ায় কুতুপালং ১নং ক্যাম্পে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মাঝে খাবার ও কম্বল বিতরণকালে একথা জানান। এসময় জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মাঝে সাত’শ খাবার প্যাকেট এবং দেড় হাজার কম্বল বিতরণ করা হয়।
 
মন্ত্রী বলেন, সারা বিশে^ যেখানে শরণার্থীরা নিপীড়ন সইছে সেখানে বাংলাদেশে তাদের সাথে অতিথির মতো আচরণ করা হচ্ছে। কিভাবে তারা সম্মানের সাথে নিজ দেশে ফিরে যেতে পারে সে ব্যাপারে কাজ করছে সরকার। তিনি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের স্বাস্থ্যসেবায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগ গঠিত ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্পে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মাঝে ঔষুধ বিতরণ করেন।
 
পরে মন্ত্রী উখিয়া কেন্দ্রীয় পাতাবাড়ি আনন্দ বৌদ্ধবিহারের অধ্যক্ষ ভদন্ত রেবতপ্রিয় মহাথেরোর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া ও জাতীয় বৌদ্ধ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের যেকোনো সংকটে শেখ হাসিনা সরকার তাদের পাশে রয়েছে। মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে, সংঘবদ্ধভাবে যে কোনো সংকট মোকাবিলায় বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।
 
এসময় সাবেক শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়–য়া, সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদি ও আশিক উল্যাহ রফিক, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়–য়া, কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান এবং আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
 
 
 
ওয়ালিদ/সেলিম/মোশারফ/সেলিমুজ্জামান/২০১৭/১৮৪৫ ঘণ্টা  
 
তথ্যবিবরণী                                                                                নম্বর : ৩৫৯০
জীবপ্রযুক্তিবিদ্যার ব্যবহারে খাদ্যে দীর্ঘস্থায়ী স্বয়ংসম্পূর্ণতা
-- কৃষিমন্ত্রী
 
ঢাকা, ১৫ পৌষ (২৯ ডিসেম্বর) :
 
স্বাস্থ্য ও কৃষিখাতে উন্নয়ন আমাদের সুস্থ জীবনযাপনের জন্য অপরিহার্য দু’টি উপাদান, যার সাথে জড়িয়ে আছে সমগ্র দেশের উন্নয়ন। এই দুই ক্ষেত্রেই বায়োটেকনোলজি বা জীবপ্রযুক্তিবিদ্যার ব্যবহার আমাদের এনে দিতে পারে খাদ্যে দীর্ঘস্থায়ী স্বয়ংসম্পূর্ণতা এবং সুলভ মূল্যে ঔষধ এবং প্রতিষেধকের নিশ্চয়তা।
 
কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনের সিনেট হলে এষড়নধষ ঘবঃড়িৎশ ড়ভ ইধহমষধফবংযর ইরড়ঃবপযহড়ষড়মরংঃং আয়োজিত “৩ৎফ ওহঃবৎহধঃরড়হধষ ঈড়হভবৎবহপব ড়হ ইরড়ঃবপযহড়ষড়মু রহ ঐবধষঃয ধহফ অমৎরপঁষঃঁৎব” শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। 
 
কৃষিমন্ত্রী জলবায়ু পরিবর্তনের সাথে খাপখাইয়ে ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কৃষিভিত্তিক জ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তি কাজে লাগিয়ে কৃষির আধুনিকায়নে গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন রক্ষণশীলতা, অজ্ঞতা ও মূঢ়তা আমাদের পিছিয়ে দিয়েছে, এ থেকে আমাদের উত্তরণ ঘটাতে হবে, সতর্ক থাকতে হবে। তিনি উপস্থিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে বলেন কিছু কিছু ক্ষেত্রে আমাদের বিদেশি সাহায্য নিতে হচ্ছে, মনে রাখতে হবে শুধু বিদেশের সাহায্য নির্ভরতায় না থেকে আমাদের সমস্যার সমাধান আমাদেরই করতে হবে।  
 
  মন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ, দূরদর্শী ও অগ্রসর চিন্তার নেতৃত্বের ফলে কৃষির আধুনিকায়নে আমরা বিশ্বের অনেক দেশের থেকেই এগিয়ে আছি। বাংলাদেশে ক্ষতিকারক পোকার প্রতিরোধক জিন সন্নিবেশ করে নতুন বেগুনের জাত উদ্ভাবনকে স্বাগত জনিয়ে মন্ত্রী বলেন, সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় ইতোমধ্যেই বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা পাটের জিনোম এবং পাটের কা-পচা রোগের জন্য দায়ী ছত্রাকের জিনোম সিকোয়েন্সে সক্ষম হয়েছে। যার ফলে ভবিষ্যতে মজবুত আঁশযুক্ত পাট বা কা-পচা রোগ প্রতিরোধী জাতের উদ্ভাবন সহজতর হবে। বন্যা সহনশীল ধানের পরীক্ষা চলছে এবং ২০১৮ সালে বাংলাদেশ ভিটামিন এ সমৃদ্ধ গোল্ডেন রাইসের বাণিজ্যিকীকরণ করতে পারবে। ক্রিস্পার ক্যাস নাইন (ঈজওঝচজ-ঈঅঝ৯) নামক   প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিজ্ঞানীরা ব্লাস্ট প্রতিরোধী ধান উৎপাদনে সক্ষম হয়েছে। 
 
  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমিস্ট্রি ও মলিকুলার বায়োলজি বিভাগের প্রফেসর জেবা ইসলাম সিরাজের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন  যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যাঞ্চেলর প্রফেসর ড. এম আনোয়ার হোসেন,  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি অব বায়োলজিক্যাল সায়েন্সেসের ডিন প্রফেসর ড. এম এমদাদুল হক এবং ওধিঃব টহরাবৎংরঃু, ঔধঢ়ধহ এর ফ্যাকাল্টি অব এগ্রিকালচারের এসোসিয়েট প্রফেসর ড. আবিদুর রহমান। সেমিনারে উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যাঞ্চেলর প্রফেসর ড. মোঃ আখতারুজ্জামান। 
 
 
গিয়াস/সেলিম/মোশারফ/সেলিমুজ্জামান/২০১৭/১৮৪৫ ঘণ্টা  
Todays handout (2).docx Todays handout (2).docx

Share with :

Facebook Facebook