তথ্য অধিদফতর (পিআইডি) গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

তথ্যবিবরণী 24/2/2018

তথ্যবিবরণী                                                                                নম্বর : ৬০৩
 
চতুর্থ গ্লোবাল বিজনেস সামিটের গোলটেবিল বৈঠকে বক্তৃতাকালে শিল্পমন্ত্রী
বাংলাদেশের শিল্পখাতে প্রভূত অগ্রগতি
 
ঢাকা, ১২ ফাল্গুন (২৪ ফেব্রুয়ারি) : 
 
শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ নেতৃত্বে বিগত কয়েকবছরে বাংলাদেশের শিল্পখাতে প্রভূত অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। এর ফলে জিডিপিতে শিল্পখাতের অবদান ৩২ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে। ইতোমধ্যে দেশে প্রায় ১০ লাখ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প গড়ে উঠেছে। এসব এসএমই শিল্প ডিজিপিতে শতকরা ২৩ ভাগ এবং মোট শিল্প কর্মসংস্থানে শতকরা ৮০ ভাগ অবদান রাখছে বলে তিনি উল্লেখ করেন। 
 
শিল্পমন্ত্রী আজ নয়াদিল্লির হোটেল তাজ প্যালেসে আয়োজিত ‘ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টির মাধ্যমে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন’ শীর্ষক গোলটেবিল আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন। দু’দিনব্যাপী এশিয়ান টাইমস্ চতুর্থ গ্লোবাল বিজনেস সামিট-২০১৮ উপলক্ষে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।  
 
বাংলাদেশে অর্জিত সাম্প্রতিক অর্থনৈতিক অগ্রগতির উল্লেখ করে শিল্পমন্ত্রী বলেন, গত তিন বছরে বাংলাদেশ ৭ শতাংশেরও বেশি জিডিপি প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে। একই সাথে বৈদেশিক মুদ্রা রিজার্ভ ৩০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে গেছে। এ দেশের তৈরি পোশাকশিল্প বিশ্বে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করার পাশাপাশি চাল উৎপাদনে বাংলাদেশ চতুর্থ, জনশক্তি রপ্তানিতে পঞ্চম এবং রেমিট্যান্স আহরণে বাংলাদেশ অষ্টম স্থানে রয়েছে। আন্তর্জাতিক রেটিং এজেন্সি প্রাইস ওয়াটার হাউস কুপারস্ এর মতামত তুলে ধরে তিনি বলেন, বাংলাদেশ ২০৩০ সাল নাগাদ বিশ্বের তিনটি দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির মধ্যে একটিতে পরিণত হবে। 
 
মন্ত্রী বলেন, বিনিয়োগের জন্য দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ সবচেয়ে উৎকৃষ্ট স্থান। এদেশে দেশি বিদেশি বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে সরকার ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছে। এসব অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগকারীদের বিশেষ প্রণোদনা ও আর্থিক সুবিধা দেয়া হচ্ছে। তিনি এসব সুবিধা উপভোগ করে বাংলাদেশে বিনিয়োগে এগিয়ে আসতে ভারতীয় উদ্যোক্তাদের প্রতি আহ্বান জানান। 
 
#
 
জলিল/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/২০০০ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                নম্বর : ৬০২
 
ভোলা-বরিশাল ব্রিজের স্থান নির্ধারণ
ভোলাবাসীর দাবি পূরণ হচ্ছে
                -- বাণিজ্যমন্ত্রী 
 
ভোলা, ১২ ফাল্গুন (২৪ ফেব্রুয়ারি) : 
 
বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, অবশেষে ভোলাবাসীর দাবি পূরণ হতে যাচ্ছে। ভোলা-বরিশাল সংযোগ সড়ক নির্মাণ হচ্ছে। ভোলাবাসীকে দেওয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়িত হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট সকলের অক্লান্ত পরিশ্রম ও আন্তরিক প্রচেষ্টায় আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে ভোলা-বরিশাল সংযোগ সড়ক। মন্ত্রী বলেন, সড়কটি নির্মাণের মাধ্যমে ভোলাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরণ হবে। এজন্য ভোলাবাসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞ। ভোলায় ২ ট্রিলিয়নের বেশি প্রাকৃতিক গ্যাস আবিষ্কৃত হয়েছে। অনুসন্ধান চলছে, আরো গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কৃত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে ভোলায় গ্যাসভিত্তিক শিল্পকলকারখানা গড়ে উঠতে শুরু করেছে। কারখানায় উৎপাদিত পণ্য পদ্মাসেতু দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহ করা যাবে এবং বিদেশে রপ্তানি করার সুযোগ সৃষ্টি হবে। 
 
আজ ভোলা জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সভাকক্ষে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দের সাথে বাংলাদেশ সেতু বিভাগের ঊর্ধ্বতন একটি টিমের মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বাণিজ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন।  
 
মন্ত্রী বলেন, ভোলা-বরিশাল ব্রিজ নির্মাণ হলে আর পদ্মা ব্রিজের কাজ শেষ হলে ভোলার মানুষ ৫ ঘণ্টার মধ্যে ঢাকায় যেতে পারবে। তাছাড়া ভোলায় প্রাপ্ত বিপুল পরিমাণ প্রাকৃতকি গ্যাসের ওপর ভিত্তি করে ব্যাপক শিল্পকারখানা গড়ে উঠবে। এমন এক সময় আসবে যখন ভোলার টাকা দিয়ে ভোলা-লক্ষ্মীপুর মেঘনা ব্রিজও নির্মাণ করা হবে।  
 
সভায় ভোলা-বরিশাল ব্রিজের সম্ভাব্যতা যাচাই (সার্ভে রিপোর্ট) উপস্থাপন করা হয়। রিপোর্টে তিনটি পয়েন্টে ব্রিজ নির্মাণের প্রস্তাব করা হলে ভেদুরিয়া-লাহারহাট পয়েন্টেটিতে ব্রিজ নির্মাণের জন্য বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদসহ উপস্থিত সকলে সম্মতি প্রদান করেন। এদিকে দ্বীপজেলা ভোলাবাসীর দীর্ঘদিনের স্বপ্নের সেতু ভোলা-বরিশাল ব্রিজের সাইট সিলেকশনের খবর ছড়িয়ে পড়লে আনন্দ উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ। 
 
#
 
বকসী/সেলিম/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৯২৪ ঘণ্টা
 
তথ্যবিবরণী                                                                                নম্বর : ৬০১
 
কৃষকদের জন্য ১০ টাকায় ব্যাংক হিসাব খোলার সুযোগ দিয়েছে সরকার
                                                                      -- ত্রাণমন্ত্রী
মতলব উত্তর (চাঁদপুর), ১২ ফাল্গুন (২৪ ফেব্রুয়ারি) : 
 
দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বীরবিক্রম বলেছেন, কৃষকদের উন্নয়নে সেচকলে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়েছে, কৃষিঋণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, কৃষকদের জন্য ১০ টাকায় ব্যাংকের হিসাব খোলার সুযোগ করে দিয়ে বিশ্বে এক নজিরবিহীন উন্নয়নের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে সরকার। 
 
মন্ত্রী আজ মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের মায়া বীরবিক্রম মিলনায়তনে উপজেলা কৃষকলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
 
কৃষকলীগ নেতা অখিল উদ্দিনের সভাপতিত্বে সম্মেলনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা রিয়াজ উদ্দিন মানিক, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মনজুর আহমদ মঞ্জু ও মতলব উত্তর উপজেলা আওয়ামী লীগের সেক্রেটারি এম এ কুদ্দস বক্তব্য রাখেন। 
 
মন্ত্রী বলেন, মতলবের কৃষকদের স্বনির্ভরতার লক্ষ্যে ৬২ কিলোমিটার পরিধির সেচ প্রকল্প করা হয়েছে। সরকার ৫ হাজার একর জমিতে বীজ উৎপাদন খামার করার প্রকল্প হাতে নিয়েছে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ কৃষক বাঁচাও দেশ বাঁচাও সেøাগান নিয়ে ক্ষমতায় এসেই সব কৃষি উপকরণের মূল্য কমিয়েছে। কৃষকদের প্রণোদনা দিয়ে উৎপাদন বৃদ্ধির উদ্যোগ নিয়ে দেশকে কৃষিপণ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ করেছে।
 
#
 
ফারুক/সেলিম/নাইচ/সঞ্জীব/মোশারফ/রেজাউল/২০১৮/১৯১২ ঘণ্টা
তথ্যবিবরণী                                                                                             নম্বর :৬০০
 
আউটসোর্সিংয়ের নামে কিছু লোক অর্থ চুষে খায়
                       --নৌপরিবহণ মন্ত্রী
 
ঢাকা, ১২ ফাল্গুন (২৪ ফেব্রুয়ারি) : 
 
নৌপরিবহণ মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, আউটসোর্সিংয়ের নামে কিছু লোক রক্তচোষার মতো অর্থ চুষে খায়। আউটসোর্সিংয়ের বিষয়ে অর্থমন্ত্রীর সাথে কথা হয়েছে। শীঘ্রই এ বিষয়ে একটি গ্রহণযোগ্য সমাধান হবে। 
 
মন্ত্রী আজ ঢাকায় বিএমএ অডিটোরিয়ামে বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী পরিষদের ৬৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন। 
 
বাংলাদেশ সরকারি কর্মচারী পরিষদের সভাপতি মোঃ মতিউর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পরিষদের নেতা হাজী আব্দুল মালেক, আব্দুল মান্নান বিশ্বাস, একেএম শাহ্জালাল, হেদায়েতুল ইসলাম এবং আবুল হোসেন। 
 
শাজাহান খান বলেন, আউটসোর্সিং প্রথা বাতিলের জন্য কর্মচারীদের আন্দোলন করতে হবে না। বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুঃখী মানুষের কষ্ট বোঝেন। তিনি সরকারি কর্মচারীদের নতুন বেতন স্কেল দিয়েছেন, বৈশাখী ভাতা দিয়েছেন। তিনি আরো বলেন, বিএনপি নির্বাচনে আসুক আমরা চাই। কিন্তু সন্ত্রাস সৃষ্টি করে মানুষ হত্যা করে ক্ষমতায় যেতে পারবে না। নির্বাচন বানচাল করার ক্ষমতা বিএনপির নাই।
 
#
জাহাঙ্গীর/সেলিম/সঞ্জীব/আব্বাস/২০১৮/১৭৩৭ ঘণ্টা 
 
তথ্যবিবরণী                                                                                নম্বর : ৫৯৯
 
দেশে অভুক্ত মানুষ খুঁজে পাওয়া যাবে না
                                -- ভূমিমন্ত্রী
 
ঈশ্বরদী (পাবনা), ১২ ফাল্গুন (২৪ ফেব্রুয়ারি) : 
 
ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ বলেছেন, বাংলাদেশে অভুক্ত থাকে এমন একটি মানুষও খুঁজে পাওয়া যাবে না। এ কৃতিত্ব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। তিনি আরো বলেন, কৃষি ব্যবস্থার উন্নয়নের কারণেই বাংলাদেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে অনেক দূর এগিয়েছে। খাদ্যের অভাব দূরীকরণে গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলো কাজ করে যাচ্ছে।
আজ পাবনার ঈশ^রদী উপজেলার ডাল গবেষণা কেন্দ্র ও আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের অভ্যন্তরে সবুজ কুঁড়ি কিন্ডার গার্টেন ও আরএআরএস হাইস্কুলের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও কৃতি শিক্ষার্থীদের মাঝে ক্রেস্ট বিতরণ ও সংবর্ধনা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ভূমিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।
ভূমিমন্ত্রী আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিরলস প্রচেষ্টায় দেশে অব্যাহত উন্নয়ন ঘটে চলেছে। প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক দূরদর্শীতা ও দক্ষভাবে রাষ্ট্র পরিচালনার সুফল জনগণ পেতে শুরু করেছে। যোগাযোগ ব্যবস্থা ও  বিদ্যুৎ ব্যবস্থার অভূতপূর্ব উন্নয়ন ঘটেছে। নিরন্ন মানুষের জন্য অন্ন, বস্ত্র, শতভাগ শিশুর শিক্ষা, চিকিৎসা ও মাথা গোঁজার ঠাঁই নিশ্চিত করতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আন্তরিকতার সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। 
ডাল গবেষণা কেন্দ্র ও আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্রের পরিচালক ড. মুহাম্মদ হোসেনের সভাপতিত্বে এসময় অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের সাবেক সিএসও ড. মোঃ শাহাবুদ্দিন খান, প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মোঃ ওমর আলী, পাবনা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক বশির আহমেদ বকুল ও সবুজ কুঁড়ি কিন্ডারগার্টেন ও আরএসআরএস হাইস্কুলের অধ্যক্ষ কবীর আলী বক্তব্য রাখেন।
পরে মন্ত্রী শহরের অরণকোলায় এম এ গফুর মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় ও চরমিরকামারীর ভাষা শহিদ বিদ্যানিকেতনের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন এবং শিক্ষার্থীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন। মকলেছুর রহমান মিন্টুর সভাপতিত্বে এসময় অন্যান্যের মধ্যে এম এ গফুর মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি আবুল হাশেম, পাবনা জেলা পরিষদের সদস্য শফিউল আলম বিশ^াস, ভাষা শহিদ বিদ্যা নিকেতনের প্রধান শিক্ষক মোক্তার হোসেন বক্তব্য রাখেন। 
#
 
রেজুয়ান/সেলিম/সঞ্জীব/রেজাউল/২০১৮/১৭২৪ ঘণ্টা
Todays handout (5).docx Todays handout (5).docx

Share with :

Facebook Facebook